কাজী মামুন: জেলার গলাচিপা উপজেলায় মৎস্য ব্যাবসায়িদের কাছ থেকে ভুয়া র‌্যাব কর্মকর্তা পরিচয়ে চাদাঁবাজীর টাকা হাতে না হাতে আটক হয় দুই সাংবাদিক,র‌্যাব -৮ সংবাদ সম্মেলনে জানান সাংবাদিক কার্ড ধাড়ি এই দুইজন এর আগেও জেলার ভিবিন্ন এলাকায় ভুয়া র‌্যাব,ভুয়া মৎস্য কর্মকর্তা, ভুয়া মেজিস্টেট,ভুয়া ডিবি,ভুয়া ব্যোক্তা কর্মকর্তা পরিচয়ে চাদাঁবাজী করে আসছিলো। এসময় অভিযুক্ত দুই জনের কাছে ৩টি মোবাইল, press কার্ড, নগদ টাকা জব্দ করেন র‌্যাব-৮।
খোজঁখবর নিয়ে জানা যায় জেলার গলাচিপা থানাদিন চিকনিকান্দি ইউনিয়ানের বসাবাসরত মোঃ জিল্লুর রহমান জুয়েল বেস কয় এক বছর আগে দৈনিক দ্যা নিউজ সংবাদ পত্রিকায় গলাচিপা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন কিন্তুু পত্রিকাটি হঠাৎ সার্কুলেশন কাজের সমস্যার কারনে বন্ধ হয়ে যায় এরপর। লোক মুখে বলতো এবং তার মোটরসাইকেলে ভিবিন্ন মিডিয়ার ইস্টিকার ব্যবহার করে, হরেক ধরনের আইডি কার্ড দেখিয়ে জেলার ভিবিন্ন পেশার পরিচিত,গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ মানুষের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে তাদের সাথে সেলফী(ছবি) তুলে তা facebook পোষ্ট করে নিজের অবস্থান করে নিয়ে সাধারন মানুষ কে ধোকা দিয়ে অর্থ চাদাঁবাজী করতো কথিত উঠতি হলুদ সাংবাদিক।আর তার এই কাজে সহোযোগী হিসাবে থাকতেন তারই একই এলাকার মুখ ডাকা চাচা মোঃ জাকির হোসেন। সুত্রে জানা যায় জাকির কে দিয়ে ভিবিন্ন স্থান থেকে চাদাঁবাজীর টাকা সংগ্রহ করতো জুয়েল।এদিকে সাংবাদিক জুয়েল বা ভুয়া র‌্যাব জুয়েলকে গ্রেফতারে চিকনিকান্দি এলাকার সাধারন মানুষের মধ্যে দেখা যাচ্ছে উৎসবমুখর পরিবেশ। এমনটা মনে হচ্ছছে তারা এতদিন কণ্ঠাগত ছিলো আতংক আর ভয় তাদের চেপে ধরেছিলো আষ্টেপৃষ্ঠে।খোজঁনিয়ে দেখাযায় কথিত ভুয়া র‌্যাব জুয়েল NPS এর পটুয়াখালী জেলার সেক্রেটারি ছিলেন সেখান থেকেও তাকে বিতাড়িত করে নতুন কমিটি করা হয় এবং বর্তমানে তিনি ST News, দৈনিক দিন প্রতিদিন,CN24.com,channel 7 নামে কিছু যায়গাতে কর্মরত আছেন বলে তার প্রোফাইলে দেখাযায়।এ বিষয়ে নবগঠিত জেলা প্রেসক্লাব পটুয়াখালীর যুগ্ম সাধারন সম্পপদ জানান.. জিল্লুর রহমান জুয়েল এক সময় লেখালেখি করতো কিন্তুু তার নানান ধরনের সমস্যা আর বদ অভ্যাস এর কথা এর আগে প্রায় লোক মুখে শুনতাম কিন্তুু কোন অভিযোগ না থাকায় আমরা তাকে নিয়ে কোনোকথা বলিনি, সে সাংবাদিক পেশাকে হাতিয়ার বানিয়ে কিছু চিন্হিত হলুদ সাংবাদিকের সাথে মিলে সমাজে নানান ধরনের খারাপ কাজের সাথে জড়িত থাকতো বলে আমরা সুনে আসছিলাম। আমরা জেলা প্রেসক্লাব পটুয়াখালী আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ জানাই পটুয়াখালী র‌্যাব -৮ এর সকোল চৌকশ সদস্যদের তারা ঐ সকল হলুদ সাংবাদিকদের আটক করেছেন।সাধারণ জনগন ,সুশীল সমাজ,রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, ব্যবসায়ী, গণমাধ্যম, মিডিয়া জগৎ এর মানুষের ধাবি প্রশাসন ও বিচার ব্যাবস্থা যেনো সব কিছু খোজঁনিয়ে তারপর এদের শাস্তি দেন।শরোজমিন তথ্যে দেখাযায় জনসাধারণের অভিমত জিল্লুর রহমান জুয়েল ও জাকির এই দুই জনে ভুয়া র‌্যাব,ভুয়া মৎস্য কর্মকর্তা, ভুয়া ডিবি, ভুয়া ব্যোক্তা কর্মকর্তা, ভুুুয়া ম্যাজিস্টেট পরিচয়ে এত বড় রেকেট চালাতে পারে না অবশ্যই এদের একটি রেকেট বা টিম আছে তাই সাধারন জনগনের ধাবি যাতে করে সঠিক তদন্তের মাধ্যমে এদের আইনের ঘন্ডিতে এনে সমাজকে চাদাঁবাজীদের হাত থেকে নিরহ ব্যবসায়ী, সাধারন মানুষদের জানমালের সুরক্ষা নিশ্চিত করেন।