নির্যাতন সইতে না পেরে গৃহবধূর বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা

জি এম মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে নির্যাতন সইতে না পেরে অন্তরা (১৭) নামে এক গৃহবধূ বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। নির্যাতনের পূর্বে ঐ গৃহবধুর কাছ থেকে তার আড়াই বছরের বাচ্চা কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
জানা গেছে, উপজেলার সাগরদত্তকাটি গ্রামের আবু বক্কার সিদ্দিক মল্লিকের মেয়ে তাসমিন আক্তার অন্তরা (১৭) কে গত ৪ বছর আগে একই উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামের আনোয়ার হোসেন মোল্যার ছেলে ফারুক হোসেন মোল্যার (২০) সাথে উভয় পরিবারের সম্মতিক্রমে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক ১ লাখ টাকা দেন-মোহরে বিবাহ সম্পন্ন হয়। বিয়ের পর আলী হামজা নামে ১টি ছেলে সন্তান তাদের ঘর আলোকিত করে। স্বামী ফারুক হোসেন মোল্যা ঢাকাতে চাকুরীতে চলে যাওয়ার পর তার স্বামীর কথামত চাচী শ্বাশুড়ি আছিয়া বেগম ও আপন জা সোনালী বেগম মিলে প্রায় সময় সাংসারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ও যৌতুকের দাবী এনে তার উপর চালাত অমানষিক নির্যাতন। নির্যাতনের পরও বাচ্চার ভবিষ্যত চিন্তা করে তিনি স্বামীর ভিটা ছাড়েনি। মঙ্গলবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় ২০ হাজার টাকা যৌতুকের দাবীবে পুনরায় চাচী শ্বাশুড়ি আছিয়া বেগম ও জা সোনালী বেগম মিলে ঘরের ভিতর আটকিয়ে রেখে ঝাটা দিয়ে বেদম মারপিঠ করে কোলের সন্তানকে জোরপূর্বক কেড়ে নিয়ে বাড়ী থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করে। অপমান, নির্যাতন, যৌতুক ও সন্তান হারানোর যন্ত্রনা সইতে না পেরে অন্তরা বিষপান করলে মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে কেশবপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
মেয়ের পিতা আবু বক্কার বলেন, যৌতুকের দাবিতে তার পাষন্ড জামাই ও চাচী শাশুড়ি এবং জা প্রায় সময় তার মেয়ের উপর অমানুষিক নির্যাতর চালাত। তারা আমার মেয়েকে হত্যার উদ্দেশ্যে জোর করে তার মুখে বিষ ঢেলে দিয়েছে। আমি ওদের বিরুদ্ধে মামলা করব।
এব্যাপারে ফারুক হোসেন মোল্যার কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, তার স্ত্রীকে কেউ মারপিঠ করিনি। যৌতুক চাওয়ার কোন প্রশ্নই ওঠে না।