কাগজ প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করে পণ্য আমদানি ও রফতানির সুযোগ পেতে যাচ্ছে ভুটান। এজন্য দিতে হবে নির্দিষ্ট ফি ও চার্জ। বাংলাদেশের সড়ক ও নৌপথ ব্যবহার করে ভারতের মধ্য দিয়ে পণ্য আনা-নেয়া করতে পারবে দেশটি। এ সংক্রান্ত স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি) আগামীকাল স্বাক্ষর হওয়ার কথা রয়েছে।

ইতিমধ্যে এসওপির খসড়া চূড়ান্ত করেছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়। দু’দেশের মধ্যে জয়েন্ট টেকনিক্যাল কমিটির (জেটিসি) বৈঠকও হয়েছে।

এদিকে আজ ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরে আসার কথা রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, ভারতের পর ভুটানকে বাংলাদেশের সমুদ্রবন্দর ব্যবহারের সুযোগ দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশের ভেতরে পণ্য বহনে বাংলাদেশের কার্গো ও ট্রাক ব্যবহার করা হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো এসব তথ্য জানিয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুস সামাদ আজকের কাগজকে বলেন, এসওপি স্বাক্ষর হলে বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা আরও সহজ হবে। এতে বাংলাদেশ লাভবান হবে। তিনি বলেন, দু’দেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে শনিবার এসওপি স্বাক্ষরের কথা রয়েছে।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌপথ ব্যবহার করে দু’দেশের পণ্য পরিবহনে ২০১৭ সালের ১৮ এপ্রিল একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়। ওই এমওইউ বাস্তবায়নে এসওপি স্বাক্ষর হতে যাচ্ছে।

স্বাক্ষর হতে যাওয়া এসওপিতে তিনটি রুটে ভুটান ও বাংলাদেশের পণ্য আসা-যাওয়ার রুট উল্লেখ করা হয়েছে। এ তিনটিই সমুদ্র বন্দর। আর নারায়ণগঞ্জে বন্দর পোর্ট অব কল হিসেবে পণ্য লোডিং ও আনলোডিং করতে পারবে দেশটি। পণ্য আনা-নেয়ার ক্ষেত্রে প্রবেশ ও বাহির হওয়ার পয়েন্ট ধরা হয়েছে বাংলাদেশের ১৩টি এবং ভুটানের ৫টি।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) কর্মকর্তারা বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে পণ্য চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা বন্দরে আসবে। ওইসব বন্দর থেকে পণ্য ছোট জাহাজে করে ভারতের সীমান্ত জেলা কুড়িগ্রামের চিলমারী যাবে। সেখান থেকে সড়ক পথে ভুটান যাবে। একই ভাবে ভুটানও পণ্য রফতানি করতে পারবে। তারা আরও জানান, বাংলাদেশের ভেতরে পণ্য বহনে দেশীয় যানবাহন ব্যবহার করা হবে। এতে বাংলাদেশ আর্থিকভাবে লাভবান হবে বলেও জানান তারা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দু’দেশের সম্মতিতে ইতিমধ্যে এসওপির খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। তার আগে বাংলাদেশ-ভুটানের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌপথ সার্ভে করেছে। ওই প্রতিনিধি দল কুড়িগ্রামের দইখাওয়া ও চিলমারী, সিরাজগঞ্জ, আরিচা, মাওয়া বরিশাল হয়ে মোংলা বন্দর পর্যন্ত পরিদর্শন করেছে। ৩১ মার্চ দু’দেশের মধ্যে জয়েন্ট টেকনিক্যাল কমিটির বৈঠকও হয়। এতে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দেন নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মুহিদুল ইসলাম। সভায় ভুটানকে শেরপুরের নকুগাঁও স্থলবন্দর ব্যবহারের অনুরোধ জানায় বাংলাদেশ। সভায় এসওপির ৭ ও ১৩ ধারা নিয়ে আপত্তি তোলে ভুটান। এ দুটি ধারায় পণ্য পরিবহনের কাস্টমস পদ্ধতি ও নিষিদ্ধ পণ্য বাংলাদেশের ওপর দিয়ে পরিবহন করার নিষেধাজ্ঞার কথা বলা হয়েছে। সভায় ভুটান জানিয়েছে, দেশটির প্রধানমন্ত্রীর সফরকালে পণ্য বাংলাদেশে আনার প্রস্তুতি রয়েছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সহযোগিতার আশ্বাস দেয়া হয়।

খসড়া এসওপিতে দেখা গেছে, পণ্য পরিবহনে তিনটি রুটের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে- ১. চট্টগ্রাম, চাঁদপুর, মাওয়া, আরিচা, সিরাজগঞ্জ, চিলমারী হয়ে দইখাওয়া। ২. মোংলা, বরিশাল, চাঁদপুর, মাওয়া, আরিচা, সিরাজগঞ্জ, চিলমারী ও দইখাওয়া। ৩. পায়রা পোর্ট থেকে বরিশাল হয়ে দইখাওয়া। এসপিওতে বাংলাদেশে প্রবেশ ও বাহির হওয়ার ১৩টি পয়েন্ট নির্ধারণ করা হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে- চট্টগ্রাম বন্দর, মোংলা বন্দর, পায়রা বন্দর, মঙ্গলহাট, নুনখাওয়া, দইখাওয়া, নকুগাঁও, হালুয়াঘাট, বাংলাবান্ধা, বুড়িমারী, তামাবিল ও নারায়ণগঞ্জ।

একইভাবে ভুটানের পাঁচটি পয়েন্ট নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে আরও দেখা গেছে, তৃতীয় দেশ থেকে ভুটানের পণ্য বাংলাদেশে আনতে হলে দেশটির সরকার পণ্যের বিপরীতে গ্যারান্টি লেটার ইস্যু করবে।

বাংলাদেশের কাস্টমস ওই পণ্যের শ্রেণী অনুযায়ী শুল্ক আদায় করবে। পণ্য কনটেইনারবাহী হলে তা বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী সিল করা হবে। জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে বাংলাদেশ কাস্টমস যে কোনো পণ্য খুলে অথবা সিল লক ভেঙে তা যাচাই করার ক্ষমতা পাচ্ছে। নৌ মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, এসব বিধান নিয়ে ভুটানের আপত্তির কারণে কিছুটা সংশোধনী আসতে পারে।

Previous articleসুদানে ক্ষমতা দখল করল সেনাবাহিনী
Next articleনুসরাত জাহান রাফির খুনিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান বিশিষ্টজনরা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।