জয়নাল আবেদীন: বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী বীনা রানীর দুটি কিডনি বিকল হয়ে যাওয়ায় তার শারীরিক অবস্থা দিন দিন অবনতি হচ্ছে । চিকিৎসক দ্রুত কিডনি প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দিয়েছেন। এতে প্রায় ২০ লাখ টাকার প্রয়োজন। তবে তার অসচ্ছল পরিবারের পক্ষে এতো টাকা বহন করা সম্ভব নয়। এ অবস্থায় সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।

রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের মেধাবি শিক্ষার্থী বীনা রানীর বাড়ি পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার টেপ্রীগঞ্জ ইউনিয়নে। পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি বীনার বাবা দীনেশ চন্দ্র রায় কৃষিকাজ করেন। বীনা পাঁচ ভাই-বোনের মধ্যে চতুর্থ। বড় দুই বোনের বিয়ে হয়ে গেছে। এক ভাই মাস্টার্স শেষ করে বেকার। অন্য ভাই দেবীগঞ্জ কলেজে এইসএসসির শিক্ষার্থী।জানা যায়, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বীনার কিডনি সংক্রান্ত দূরারোগ্য ব্যাধি ধরা পড়ে। পরীক্ষা-নীরিক্ষায় দেখা যায় তার দুটো কিডনি বিকল। এরপর ভারতের ক্রিশ্চিয়ান মেডিকেল কলেজে (সিএমসি) পরীক্ষা- নীরিক্ষা করে একই ফল পাওয়া যায়। ডাক্তাররা কিডনি প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দেন।

বীনা বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজের ডা. মুবাশ্বের আলম সুজার চিকিৎসাধীন রয়েছেন।বীনার বড় ভাই নির্মল চন্দ্র রায় বলেন, বীনার কিডনিতে সমস্যা ধরা পড়ার পর দুই বছর ধরে চিকিৎসা চলছে। গত বছর ভারতও নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। জমানো ও জমি বিক্রির প্রায় আট লাখ টাকা চিকিৎসার পেছনে খরচ হয়েছে। এখন প্রতি মাসে চিকিৎসা ও ওষুধ বাবদ ২০ হাজার টাকারও বেশি খরচ হচ্ছে। ডাক্তাররা জানিয়েছেন, শেষ মুহূর্তে কিডনি সমস্যা ধরা পরেছে। এখন দ্রুত কিডনি প্রতিস্থাপন করা প্রয়োজন। বাবা-মা কিডনি দিতে রাজি হয়েছে। কিন্তু কিডনি প্রতিস্থাপনের আগে ও পরে সব মিলে ২০ লাখ টাকার প্রয়োজন। এ অবস্থায় সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের আবেদন জানাচ্ছি।বীনার বাবা দীনেশ চন্দ্র রায় বলেন, আমার মেয়েটার শরীর দিন দিন ফুলে যাচ্ছে। অনেক দিন থেকে চিকিৎসা করাচ্ছি। এখন কিডনি মিল হলে (ম্যাচ করলে) কিডনিও দেব। চিকিৎসা করতে করতে হাতের টাকা ও জমির টাকা সব শেষ। তোমরা আমার মেয়েটার জন্য পারলে কিছু করো।

বেরোবি কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইন্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড.মিজানুর রহমান বলেন, বীনার খোঁজ-খবর নিয়েছি। তার চিকিৎসার জন্য মোটা অংকের টাকা প্রয়োজন। আমাদের বিভাগ থেকেও কিছু সহযোগিতা করছি। আমরা প্রত্যেকেই যদি নিজ নিজ জায়গা থেকে সহযোগিতার হাত বাড়াই তাহলে সহজেই তার চিকিৎসা সম্ভব ।কেউ সহায়তার হাত বাড়াতে চাইলে এই নম্বরগুলোতে (বিকাশ/রকেট/নগদ) পাঠাতে পারেন । 01737475419, 01705831991 01782822440 ।

Previous articleমিরকাদিমে ইন্টারনেট সংযোগ ডিভাইস চুরির হিরিক, গ্রাহকদের ভোগান্তি
Next articleদেশে করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৪ হাজার ৮৩৮
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।