তাবারক হোসেন আজাদ: ৯ কোটি ১৭ লাখ টাকা ব্যায়ে-লক্ষ্মীপুরের রায়পুর-পানপাড়া ৬ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের শেষ হওয়ার চার দিনের মাথায় নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ করে এলাকাবাসী হাত দিয়ে সড়কের পিচ তুলে ফেলেন। এলজিইডি বলছে,মান ঠিক আছে। প্রায় ৬ কি‌লো‌মিটার সড়‌কে নিম্নমা‌নের সংস্কারকাজ করায় স্থানীয়রা ক্ষুব্ধ হ‌য়ে সড়‌কের কিছু অং‌শের পিচ ঢালাই তু‌লে ফেলে‌ছেন। এ ঘটনার এক‌টি ভি‌ডিও সামা‌জিক যোগা‌যোগমাধ‌্যমে ভাইরাল হওয়ার পর এটি আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

রায়পুর-পানপাড়া সড়‌কের ছয় কি‌লো‌মিটার সংস্কা‌রে অনিয়মের অভিযোগ এনে ২৬ ফেব্রুয়ারী সেখানকার লোকজন রাস্তার পিচ তু‌লে ফেলেন। মুরাদ হোসেন না‌মের এক ব‌্যক্তির ফেসবুক আইডি থে‌কে এটি লাইভ করা হয়, যা মুহূ‌র্তের ম‌ধ্যে ভাইরাল হ‌য়ে যায়। কিন্তু-এসড়কটি কয়েকদিন আগে স্থানীয় সাংসদ এডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী ও উপজেলা চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ পরিদর্শন করে সঠিকভাবে সংস্কার করার নির্দেশনা দিয়েছিলেন। ঠিকাদাররা সেই নির্দেশনা মানেননি।।

স্থানীয়দের অভিযোগ, নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করে সড়ক সংস্কার করায় কাজ শেষ হওয়ার চারদিনের মাথায় সড়কের কয়েকটি অংশের পিচ ঢালাই (কার্পেটিং) উঠে গেছে। পাথর, বিটুমিনসহ চলমান সংস্কারকাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয় বলে অভিযোগ করা হয়েছে। ইতোম‌ধ্যে যান চলাচল শুরু হওয়ায় এই কা‌র্পেটিং অনেক জায়গায় উঠে গে‌ছে।

শনিবার বিকেলে এলাকার বা‌সিন্দা মোঃ ফখরুল ব‌লেন, রায়পুর পৌরসভার লেংড়াবাজার থেকে পানপাড়া পর্যন্ত সাত কিলোমিটার সড়কের সংস্কারের কাজ চলছে। সড়কের জোড়পুল নামক এলাকায় ঠিকাদারের লোকজন গাছের পাতা ও-আর্বজনা পরিষ্কার না করে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

নিয়ম অনুসারে কমপ্রেশার মেশিন দিয়ে সড়ক পরিষ্কার করে প্রাইম কোট দিয়ে পিচ ঢালাইয়ের কাজ হওয়ার কথা। তা না করে গাছের পাতা ও ময়লার ওপরই চালিয়েছেন কার্পেটিংয়ের কাজ।

সড়কের তিন কিলোমিটার এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, নিম্নমানের বিটুমিন, বালি, পাথরের মিশ্রণে কাজ করায় যানবাহন চলাচলের সময় চাকার সঙ্গে অনেক জায়গার কার্পেটিং উঠে যাচ্ছে। চলতি বছরের শুরুর দিকে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) তত্ত্বাবধানে পল্লী সড়ক ও ব্রিজ-কালভার্ট মেরামতকরণ জিওবি মেইনটেন্যান্স প্রকল্পের আওতায় খানাখন্দে ভরা ছয় কিলোমিটার সড়কের সংস্কার অনুমোদন হয়।

এলজিইডির রায়পুর কার্যালয় থেকে জানাযায়, ‘সড়কটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এলজিইডি মন্ত্রনালয় থেকে আরসিআইপি প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করে দরপত্রের মাধ্যমে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স তমা এন্টারপ্রাইজ ও এম এ ইন্জিনিয়ারিং দেড় বছর আগে কাজটি শুরু করেছিলেন। প্রায় ৬ কিঃমিঃ সড়কে ৯ কোটি ১৭ লাখ টাকায় বরাদ্দ হয়েছে।

তবে অভিযোগ উঠেছে, নির্ধারিত সময়ে কাজ শুরু করতে না পারায় শেষ সময়ে এসে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের মাধ্যমে তড়িঘড়ি করে কাজটি শেষ করেছেন ঠিকাদারি দুই প্রতিষ্ঠান।

কেরোয়া গ্রামের মনিরুল ইসলাম ও মোঃ সোহাগসহ একাধিক বাসিন্দা অভিযোগ করে বলেন, সড়কটি সংস্কারে এতটা নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে যে, কাজ শেষ হতে না-হতেই সড়কের অনেক অংশের পিচ ঢালাই উঠে গেছে। হাত দিয়ে টান দিলেই পিচ উঠে যাচ্ছে।

নিম্নমানের কাজ করার অভিযোগ অস্বীকার করে ঠিকাদার আবু তাহের ও ভুলু চেয়ারম্যান সাংবাদিকদের বলেন, “এটি স্বয়ং এলজিইডি লক্ষ্মীপুর ও রায়পুর এলজিইডি প্রকৌশলীরা দেখভাল করেন। প্রতিনিয়ত কাজের মান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। তারপরেও নির্মাণকাজে কোনো ত্রুটি থাকলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যে ব্যবস্থা নেবে আমরা সেটা মানতে রাজি।’ স্থানীয় একটি পক্ষকে টাকা না দেয়ায় ইচ্ছাকৃতভাবে সড়কে পিচ তুলে ফেইসবুকে দিয়ে উত্তেজনা করে।

সংস্কারকাজে কোনো অনিয়ম হয়েছে কিনা জানিয়ে উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী মোস্তফা মিনহাজ বলেন, গুরুত্বপুর্ণ সড়কটির সংস্কারে অনিয়মের অভিযোগ পেয়েছি। সরজমিন পরিদর্শন করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleকবিরহাটে সড়ক সংস্কারে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ
Next articleমেঘনা নদীতে জেগে উঠা চরে ৫০ লক্ষ কেওড়া গাছের চারা রোপন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।