লিটন মাহমুদ: মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ইসলামপুর এলাকার এক হাত বিহীন যুবক তার পৈত্রিক সম্পত্তি ছেড়ে না দেওয়ায় প্রথমে তাকে মারধর পরে তার ঘরে অগ্নিসংযোগ এখোন ওই যুবককে বোমা হামলার মিথ্যা আসামী করে হয়রানী করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী ওই যুবক তার মাকে নিয়ে এখোন আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে।

জানাগেছে, পৌরসভার উওর ইসলামপুর এলাকার মৃত ইউনুস আলীর এক হাত বিহীন ছেলে আজমীর হোসেন অপুকে (২৫) প্রায় ১ বছর যাবৎ তার পৈত্রিক ভিটা ছেড়ে দিতে বলছে একই এলাকার যুবদলের সাবেক যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সিরাজ পাঠান। পৈত্রিক ভূমি ছেড়ে দেওয়ার কারন জিজ্ঞাসা করলে কোন কাগজ পত্র না দেখিয়ে সে ওই জমি ক্রয় করেছে বলে তাকে তার পৈত্রিক ভিটা ছেড়ে চলে যেতে বলে সিরাজ পাঠান। এনিয়ে ওই এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের অপু বিষয়টি অবহিত করলেও এলাকায় একাধিক শালিশী হলেও ওই সমস্ত শালিশীতে দলিল পত্র উপস্থাপন না করেই ওই যুবদল নেতা গায়ের জোড়ে অপুকে তার পৈত্রিক ভিটা ছেড়ে দেওয়ার জন্য চাপ দিয়ে আসছিল । অপু ছেড়ে না দেওয়ায় গত ১৩ মে তার বাড়িতে সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে এসে অপু ও তার মাকে মারধর করে সিরাজ পাঠান বাহিনী। পরে গত ১৬ মে গভীর রাতে তার বসত বাড়ির টিন ও কাঠ দিয়ে তৈরী ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয় সন্ত্রাসীরা। এ নিয়ে গত ১৭মে অপু বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ আদালতে মামলা দায়ের করলে মামলা দায়েরের পর হতে বিভিন্ন হুমকি দিয়ে আসছে সিরাজ পাঠান ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী। এ নিয়ে আতংঙ্কে আছেন অপু ও তার মা তাসলিমা বেগম।

অপুর মা তাসলিমা বেগম বলেন, আজ থেকে ২০ বছর আগে আমার স্বামী মারা যায়। আমি আমার ছেলে মেয়েকে অন্যের বাসায় কাজ করে বড় করে তুলেছে। অপুর বয়স যখন ২ বছর বাড়ির পশ্চিম পাশে খেলা করার সময় লাল বলের মতো বস্তু কুড়িয়ে পেয়ে তা নিয়ে খেলা করছিলো সে। তারপর ওই লাল বস্তু (ককটেল) বিস্ফোরনে তার বাম হাতের কব্জিটি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে অপুর বয়স যখন ১০ বছর তখন থেকে একটি অফিসে পিয়নের কাজ করে। তা দিয়ে যা আয় হয় আমার ছেলে আর আমি কোনরকম খেয়ে বেচেঁ আছি। কিন্তু আমাদের এলাকার সিরাজ পাঠান বলে আমার স্বামীর ভিটা ছেড়ে দিতে। ছেড়ে না দেওয়ায় ওরা আমার ছেলেকে মারধর করলো। আমি ধরতে গেলে আমাকেও মারধর করে পরে গভীর রাতে আমাগো ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। এখোন আমি ভয়ে রাতে ঘুমাইনা। কখন যেন আগুন ধরিয়ে ওরা আমাকে এবং আমার ছেলেকে জীবন্ত মেরে ফেলে তাই ছেলে গুমালেও আমি সারারাত জেগে থাকি।

অপু বলেন, আমার হাত না থাকায় ছোট বেলা হতেই আমাকে কেউ কাজে নিতোনা। পরে আমার এলাকায় ইন্সুরেন্স কোম্পানির লোকজন ইন্সুরেন্স করতে আসলে আমার এবং আমার মায়ের অবস্থা দেখে তারা আমাকে ন্যাশনাল লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পনীর মুন্সীগঞ্জ অফিসে পিয়নের চাকুরী দেয় । ওই চাকুরী করে মাকে নিয়ে কোন রকম বাবার ভিটায় খেয়ে পরে বেচেঁ আছি। কিন্তু সিরাজ পাঠান বলে আমার বাবার ভিটা সে কিনেছে। কিন্ত আমার বাবা দাদা কেউ এই ভিটা বিক্রি করেনাই। তারা আমাকে আমার বাবার ভিটা ছেড়ে দিতে বলছে। ছেড়ে না দেওয়ায় আমাকে মারধর করেছে ঘরে আগুন দিয়েছে এখোন আবার আমাকে বোমা হামলা মামলার আসামী করবে বলে ভয় দেখাচ্ছে। আমি তাদের ভয়ে অসুস্থ হয়ে পরেছি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সিরাজ পাঠান বলেন- ওই জমি আমি অপুর বাবার ফুপুর ওয়ারিশদের নিকট হতে ক্রয় করেছি। ওর বাবা পাশের বিল্ডিং বাড়ির কাছে ওদের জায়গা বিক্রি করছেন। গতকাল (২১ মে) দুপুরে হুমকি বিষয়ে সিরাজ পাঠানের মোবাইলে একাধিক বার ফোন করলে বন্ধ পাওয়া যায়।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দেব বলেন, আমি বিষয়টি সম্পর্কে খোজ নিয়ে যথাযথ আইনগত ব্যাবস্থা নিবো।

Previous articleব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুকুর থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার
Next articleসংকট নিরসনে শ্রীলঙ্কা ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মডেল’ অনুসরণ করতে পারে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।