বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ভারত গজলডোবা ব্যারাজের গেট খুলে দেয়ায় উজানের ঢল এবং বর্ষণে তিস্তার পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ডালিয়া ব্যারাজ পয়েন্টে শুক্রবার পানির উচ্চতা কিছু কমলেও তা বিপদসীমার উপরেরই রয়েছে। ইতোমধ্যেই তিস্তা অববাহিকার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ কমবেশি পানিবন্দি হয়ে আছে। তলিয়ে গেছে বাদামসহ উঠতি ফসল। দুর্গত মানুষের দরোজায় এখনো পৌঁছেনি কোনো ত্রাণ-সহায়তা।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবীব জানান, বৃষ্টিপাত এবং উজানের ঢলের কারণে ডালিয়া ব্যাজার পয়েন্টে তিস্তার পানি বৃহস্পতিবার রাতে ১০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। তবে শুক্রবার সকাল ৯টায় তা পাঁচ সেন্টিমিটার নিচে নেমে আসে। এখনো পাঁচ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। তিনি আরো জানান, আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে উজানে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। আর তা হলে ত্স্তিার পানি ডালিয়া পয়েন্টে আবারো বিপদসীমা অতিক্রম করবে।

পাউবোর এই কর্মকর্তা আরো জানান, এই পূর্বাভাস আমরা দুই-এক সপ্তাহ থেকে সংশ্লিষ্টদের জানাচ্ছি। যাতে নদী অববাহিকার লোকজন নিরাপদে অবস্থান নিতে পারেন। গবাদিপশুসহ অন্য জিনিস সরিয়ে নিতে পারেন।

এদিকে রংপুর আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ মোস্তাফিজার রহমান জানান, শুক্রবার রাত ৮টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় রংপুর অঞ্চলে ১১৯ দশমিক ৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, তলিয়ে গেছে রংপুরের গঙ্গাচড়ার নোহালী, আলমবিদিতর, কোলকোন্দ, লক্ষিটারী, সদর, গজঘণ্টা ও মরনেয়া, কাউনিয়ার বালাপাড়া, পীরগাছার ছাওলা, তাম্বলপুর ইউনিয়নের তিস্তার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের বাদামসহ বিভিন্ন ফসলি জমি। হাজার হাজার বাসা-বাড়িতে পানি ঢুকেছে। অনেক বাড়িতে এখন কোমর পানি। লক্ষিটারী ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে পানিবন্দি বয়স্ক ও শিশুদের নৌকায় করে উঁচু স্থানে নেয়া হয়েছে। বন্যা এলাকায় বিশুদ্ধ পানি, শুকনা খাবারের তীব্র সঙ্কট বিরাজ করছে। ভুক্তভোগীদের জন্য এখনো কোনো ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেনি কেউ। এদিকে তিস্তার বিভিন্ন পয়েন্টে ধরেছে তীব্র ভাঙ্গন। মানুষ অনেক কষ্ট করে বাড়ি-ঘর সরিয়ে নিচ্ছে।

লক্ষিটারী ইউনিয়নের পশ্চিম ইচলি গ্রামের পানিবন্দি সামিনা বেগমের কাছে পানির কথা জানতে চাইলেই তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে উঠলেন। তিনি বললেন, ‘হামরা পানিত মরি যাওসি। আর তোমরা খালি হামাক ভিডিও করি কামাই করোছেন। হামরা যে কয়দিন থাকি পানিত পরি আচি কেউই তো আইসলেন না। কই রান্দি কই বাড়ি, ছোট ছাওয়া পোয়াক ধরি কই যাই। চকির ওপররোত চকি দিয়া কোনোমতে আইত কোনা নিয়া যাই। নেম্বার-চেয়ারম্যানেরা এতি ভুলকি দিয়াও দ্যাকে না।’

একই এলাকার বয়োবৃদ্ধা ফাতেমা জানালেন, ‘হামরা ১৫ দিন থাকি পানিত। নেম্বর-চেয়ারম্যান কেউ আইসে নাই। বাচি আচি না মরি গেছি কেউ পুসও করে নাই। তোমরাগুলি খালি ফটো তুলি নিয়া যান, হামারগুলার জইন্যে কিছু করেন।’

লক্ষিটারী ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার মনেয়ারুল ইসলাম জানান, আমরা নৌকা দিয়ে বৃদ্ধ এবং শিশুদের উঁচুতে নিয়ে আসছি। কোনো সহযোগিতা করতে পারিনি। ওপরে জানিয়েছি। তারা এখন পর্যন্ত আসেওনি।

লক্ষিটারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল-হাদী জানান, বিপদসীমার ওপরে যাওয়ায় আমরা মাইকিং করে যারা বৃদ্ধা নারী ও শিশু আছে, তাদেরকে আমরা রেসকিউ করে নিরাপদ স্থানে এনেছি। আমার ইউনিয়নের পাঁচটি ওয়ার্ডের ইতোমধ্যেই ১০ হাজার বাড়িঘর তলিয়ে গেছে।

তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত পানিবন্দি কোনো মানুষকে আমরা সহযোগিতা করতে পারিনি। তবে ইউএনও মহোদয়কে জানানো হয়েছে। কিন্তু কোনো সাহায্য এখনো পাওয়া যায়নি।

কোলকোন্দ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ জানান, তার ইউনিয়নের ছয়টি ওয়ার্ডের প্রায় ১২ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। সেখানে বিশুদ্ধ পানি ও শুকনা খাবারের সংকট বিরাজ করছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত আমরা তাদেরকে কিছুই দিতে পারি নাই।

নোহালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ টিটুল জানান, ওই ইউনিয়নের ১৬ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তাদের খাবারের তীব্র সঙ্কট বিরাজ করছে।

মরনেয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান জানান, তার ইউনিয়নের প্রায় তিন হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। তিনিও এখন পর্যন্ত কাউকে কোনো খাদ্য সহায়তা দিতে পারেননি।

গজঘণ্টা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী জানান, প্রতিদিনই তার ইউনিয়নের চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলে পানি বাড়ছে। মানুষ পানিবন্দি হচ্ছে। বাদামের সব ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। সরকারের পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

এদিকে কাউনিয়ার বালাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনছার আলী জানান, বন্যা আর ভাঙ্গন আমার ইউনিয়নের দুই হাজার পরিবারকে বিপদের মধ্যে রেখেছে। আমি তাদের জন্য কিছুই করতে পারছি না।

সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ও নদীপাড়ের মানুষের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যমতে, তিস্তায় পানি বাড়ায় নিলফামারীর ডিমলার ছাতনাই এলাকা থেকে জলঢাকা, লালমনিরহাটের পাটগ্রাম, হাতীবান্ধা, কালিগঞ্জ, আদিতমারি, সদর, রংপুরের গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া, পীরগাছা, কুড়িগ্রামের রাজারহাট, উলিপুর, চিলমারি ও গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের হরিপুরের ব্রহ্মপুত্র নদ পর্যন্ত তিস্তা অববাহিকার ৩৫২ কিলোমিটার এলাকার চরাঞ্চল এবং নিম্নাঞ্চলে পানি উঠেছে। কোথাও কোথাও বাড়িতে কোমর পানি।

এসব এলাকার উঠতি ফসল বাদাম, আমনের চারা, পাট, সবজিসহ বিভিন্ন ফসল তলিয়ে গেছে। অনেক স্থানে রাস্তাঘাট ভেঙ্গে যাচ্ছে। দুর্গত এলাকায় মানুষ খুবই বিপাকে পড়েছেন। বিশেষ করে বৃদ্ধ ও শিশুদের কষ্টটা চরমে। গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে আছেন অনেকে। কোথাও সরকারি-বেসরকারি কোনো সহযোগিতা পৌঁছেনি এখনো।

Previous articleরূপপুর প্রকল্পে শ্রমিকের মৃত্যু
Next articleসুবর্ণচরে পিকআপভ্যান চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী গৃহবধূর মৃত্যু, চালক আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।