লিটন মাহমুদ: পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে শুরু হয়েছে নদী ভাঙন। মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের ৪ টি গ্রামের ১৪২ টি পরিবারের সর্বস্ব চলে গিয়েছে নদীগর্ভেছে।

এতে ভিটেমাটি হারা হয়েছে এ গ্রামের ১৪২টি পরিবার। তারা পরিবার নিয়ে অতি কষ্টে খোলা আকাশের নিচে দিনাতিপাত করছে।

আজ মঙ্গল বার ১৩ই সেপ্ট‌েন্বর সকাল ১০ ঘ‌টিকার সময় বাংলাবাজার ইউ‌নিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ‌সোহায়াব পির ও ইউ‌পি সদস‌্যদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে তাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন।

এ সময় বাংলাবাজার ইউ‌পির চেয়ারম‌্যান মোঃ‌সোহায়াব পির সহ ইউ‌পি সদস‌্য বৃন্দ নদী ভাঙ্গন এলাকা ও ক্ষতিগ্রস্থদের খোজখবর নেন এবং ১৪২ টি পরিবারর মা‌ঝে ১০ কেজি চাউল,১ কে‌জি আলু,১ কে‌জি তৈল ,১ প‌িয়াজ,১লবন ক্ষ‌তি গ্রহস্ত পরিবা‌রের হা‌তে এই ত্রান সামগ্রী তু‌লে দেন ।

নদী ভাঙ্গন সন্প‌র্কে বাংলাবাজ‌ার ইউ‌নিয়‌নের চেয়ারম‌্যান মোঃ‌সোহায়াব প‌ির ব‌লেন , মুন্সীগঞ্জ সদর উপ‌জেলার ট‌িএনও মহ‌োদয় নদীভাঙ্গনে ক্ষ‌তিগ্রস্ত প‌রিবা‌রের মা‌ঝে বিতর‌নের জন‌্য চার টন চাউল বরাদ্দ ক‌রে‌ছেন ।‌তি‌নি আ‌রো ব‌লেন , সাংবা‌দিক ভাই‌দের প্রতি আ‌মি কৃতজ্ঞ জানাই , আপনা‌দের নদী ভাঙ্গ‌নের সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় ,নদীভাঙ্গন এলাকায় পানি উন্নয়ন‌ বোর্ড ৪০ হাজার জিও ব‌্যাগ ফালা‌নোর সিদ্বান্ত নি‌য়ে‌ছে ।তারই অংশ হিসা‌বে ৪হাজার জিও ব‌্যাগ নদী ভাঙ্গন এলাকায় এ‌সে পৌ‌ছে‌ছে

Previous articleউল্লাপাড়ায় ইউএনও’র কাছ থেকে উপহার পেলেন শিক্ষার্থী ও শিক্ষকেরা
Next articleইসি ক্ষমতাসীনদের ভাষায় কথা বলছে: জিএম কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।