মোঃ জালাল উদ্দিন: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে মৌলভীবাজারে যুব সমাবেশে সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে এম নাসের রহমান বলেন, গণঅভ্যুত্থানের ভয়ে এই অবৈধ ফ্যাসিস্ট সরকার বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও জোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে।

হাস্যকর ওই গ্রেপ্তারি পরোয়ানার নেপথ্যে হচ্ছে ৪ কোটি ৩০ লাখ টাকা নাকি উনারা তছরুপ করেছেন। এটা কিসের কি। জনগণের কী তা বুঝতে বাকি আছে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের নির্দেশে সারা দেশব্যাপী গণসমাবেশ হচ্ছে। নানা প্রতিকূলতার পরও লাখ লাখ মানুষের সমাগম হচ্ছে। সেখান থেকে সরকারকে জনগণ যে লালকার্ড দেখাচ্ছে এটায় ভীত হয়ে এই অবৈধ সরকার উনাদের বিরুদ্ধে হাস্যকর গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে। এই সরকার একটি ফ্যাসিবাদী সরকার। যখন দেশের জনগণ আন্দোলনমুখী হয়ে ওঠে ঠিক তখনই যেকোনো ছুঁতো খুঁজে বেড়ায় কিছু একটা করার জন্য। এটাও তার একটি ছুঁতো সারা বাংলাদেশে এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল হচ্ছে। বর্তমান সরকারের দিন শেষ হয়ে যাচ্ছে। দেশের সব মানুষ বুঝতে পারছে। অবৈধ সরকার চেয়েছিল ইভিএম দিয়ে নির্বাচন করতে। কিন্তু ওই দিন পর্যন্ত তো উনারা যেতে পারবেন না। তার আগেই এই সরকারকে বিদায় নিতে হবে। এই সরকারের ক্ষমতায় থাকা না থাকার মাঝখানে খালি একটা জিনিসই আছে। সেটা হচ্ছে পুলিশ। আর কিছুই নেই। আগামীকাল যদি পুলিশ বলে আমরা নিরপেক্ষ হয়ে গেলাম। তখন চারদিকে আর আওয়ামী লীগকে খুঁজে পাওয়া যাবে না। ১৪ বছর ক্ষমতা চালিয়েছেন, যাই করেন এখন সসম্মানে বিদায় নিবেন, না গণঅভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত হয়ে গদি ছাড়বেন। তাদের সামনে এখন দু’টি পথই খোলা। স্বৈরাচার কখনো সোজা পথে যায় না। এটা পৃথিবীর ইতিহাসে নেই। অনেক রক্ত ঝরিয়ে স্বৈরাচারের পতন ঘটে। এটা নিশ্চিত এদেশে শেখ হাসিনার অধীনে আর কোনো নির্বাচন হবে না। উনার আর সেই ক্ষমতা নেই। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই আগামী নির্বাচন হবে। আর অবশ্যই সেই নির্বাচনে বেগম জিয়া অংশ নিবেন। তারেক রহমান দেশে ফিরবেন।

মৌলভীবাজার জেলা যুবদলের সভাপতি জাকির হোসেন উজ্জ্বলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এমএ মুহিতের পরিচালনায় যুব দলের ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার বিকালে যুবসমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মৌলভীবাজার জেলা শহরের কাশিনাথ আলাউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ মাঠে বিকালে জেলা যুবদল এই সমাবেশের আয়োজন করে।

সকাল থেকেই জেলার সাতটি উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড থেকে বিপুল সংখ্যক যুবদলের নেতাকর্মীরা দলীয় পতাকা, ক্যাপ, ব্যানার, রঙ-বেরঙয়ের ফেস্টুনসহ দলীয় নেতৃবৃন্দের ছবি ও স্লোগান সংবলিত প্ল্যাকার্ড নিয়ে আসতে থাকে। সমাবেশ শুরুর আগেই কয়েক হাজার নেতাকর্মী সমাবেশস্থলে এসে পৌঁছান। একের পর এক স্লোগানে মুখরিত করে অনুষ্ঠানস্থলে আসতে থাকেন নেতাকর্মীরা।

বিভিন্ন উপজেলা নেতা কর্মীদের সাথে কথা বললে তারা জানিয়েছে, বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসার পথে নানা স্থানে ১০-১৫ টি বড় বাস গাড়ি নিয়ে আসার সময় রাস্তায় পুলিশ বাধা দিয়ে সমাবেশস্থলে আসতে বাধা দেয় গাড়ি আটকিয়ে রাখে, পরে নেতা কর্মীদেরকে গাড়ি থেকে নামিয়ে দেয় ও নেতা কর্মীদের হতে দুপুরের খাবার ছিল খাবারও কেড়ে নেয় পুলিশ। পুলিশের এমন আচরণ দেখে কেউ কেউ আবার সম্মিলিতভাবে জিয়ার সৈনিক এক হও লড়াই করো স্লোগান দিচ্ছেন।

পুলিশের বাধা অপেক্ষা না করে পায়ে হেঁটে আজ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মৌলভীবাজার জেলা যুবদল এই সমাবেশের আয়োজনে যোগ দিয়েছেন তারা।
তারা আরও বলেন, পায়ে হেঁটে, ত্যাগ স্বীকার করেছি বলে আজ সমাবেশে লাখ মানুষের সমাগম হয়েছে তাই আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করি।
সমাবেশের নেতাকর্মীদের হয়রানি করার জন্য, জেলা শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কে মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক পুলিশ।

গেল কয়েকদিন থেকে যুবসমাবেশকে কেন্দ্র করে জেলাজুড়ে নেতাকর্মীদের মাঝে ছিল উৎসবের আমেজ।
নেতৃবৃন্দ বলেন, আজকের যুবনেতাকর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি এটাই প্রমাণ করে এই ফ্যাসিবাদী সরকারের পতন অনিবার্য। সমাবেশে বক্তারা আগামী ২০শে নভেম্বর সিলেটে বিএনপি’র গণসমাবেশ সফল করার আহ্বান জানান। সমাবেশে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত খালেদা জিয়ার মুক্তি, তারেক রহমান ও জোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে আদালতের গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে নানা প্রতিবাদী স্লোগান দিচ্ছেন নেতাকর্মীরা।

সমাবেশ শুরুর দিকে নেতাকর্মীদের নজর ছিলো মঞ্চে থাকা জেলা বিএনপির শীর্ষ দুই নেতার দিকে। দীর্ঘ দিন ধরে জেলা বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃত্বে থাকা জেলা বিএনপির সভাপতি এম নাসের রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ মিজানুর রহমান (ভিপি মিজান) এর মধ্যে অন্তর্কোন্দল থাকায় মূলত দলটি দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। রাজপথের কর্মসূচিও পৃথক পৃথক পালিত হয়ে আসছে। তবে এবার দুই নেতাকে একমঞ্চে একসাথে দেখতে পেয়ে নেতাকর্মীরাও আনন্দে আত্মহারা।

যুব সমাবেশে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদলের কেন্দ্রীয় মিটির সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু্র আসার কথা থাকলেও অনিবার্যকারণবশত তিনি আসতে পারেন নি বলে জানা গেছে। তিনি না আসায় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদলের কেন্দ্রীয় মিটির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মোনায়েম মুন্না।

সম্মানিত অতিথি বক্তব্য রাখেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, মৌলভীবাজার জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক এমপি এম নাসের রহমান। আরো অতিথি বক্তব্য রাখেন, মৌলভীবাজার জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি রেজিনা নাসের, সহ-সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ফয়সল আহমদ, জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক ও জেলা সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান (ভিপি মিজান), সাংগঠনিক সম্পাদক বকশী মিছবাহ-উর রহমানসহ জেলা যুবদলের নেতৃবৃন্দ।

এছাড়াও মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপি, উপজেলা বিএনপি, জেলা যুবদল, উপজেলা যুবদল, ছাত্রদলসহ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

Previous articleরামেক হাসপাতালে ডেঙ্গুতে বৃদ্ধের মৃত্যু
Next articleউলিপুরে ৩৪ বোতল বিদেশী মদসহ দুই মাদক ব্যাবসায়ী আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।