মিজানুর রহমান বুলেট: কলাপাড়ার বিবাহিত যুবক পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি পদ অনৈতিকভাবে বাগিয়ে নিল মো. মিরাজ হোসেন।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের দ্বিতীয় ভাগে ধারা ২৩ বিবিধ: এর (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বিবাহিতদের ছাত্রলীগে কোন পদে থাকতে না পারার কথাটি লেখা থাকলেও, কলাপাড়ার চম্পাপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা সচিব, উপ-সচিব পরিচয় দেওয়া ডিবি কর্তৃক আটক হয়ে জামিনে মুক্তি পেয়ে পালিয়ে থাকা মো. সাগর মৃধা ওরফে ফোরকান মৃধার পুত্র মো. মিরাজ হোসেন বিবাহের কথা গোপন করে পদ বাগিয়ে নিয়েছেন।

তথ্য সূত্রে জানা যায়, ছাত্রদলে থেকে ছাত্রলীগের নেতাকে হত্যা করে আওয়ামীলীগ নেতা বনে যাওয়া মো. সাগর মৃধা ওরফে ফোরকান মৃধা বর্তমান কলাপাড়াা উপজেলা আওয়ামীলীগ সদস্য তাহারই পুত্র ওই মিরাজ হোসেন।

চম্পাপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আনোয়ার হোসেন এ তথ্য জানান, চম্পাপুর ইউনিয়নের পাটুয়া গ্রামের মো. ফকু মৃধার পুত্র মো. সাগর মৃধার ছেলে মো. মিরাজ হোসেন একই ইউনিয়নের মো. আফতার গাজীর পুত্র মো. দুলাল গাজীর মেয়ে মোসা: নিলা বেগমকে নিয়ে পালিয়ে বিবাহ করে এবং পরে পারিবারিক ভাবে আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে বিবাহ সম্পন্ন হয়। বর্তমানে বৈবাহিক সূত্রে পারিবারিক জীবনে আবদ্ধ রয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ৯ নভেম্বর কেন্দ্রয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের কমিটি আগামী এক বছরের জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়। ওই কমিটিতে সহ-সভাপতি পদে মো. মিরাজ হোসেন’র নাম থাকায় জেলা ও উপজেলা ছাত্রলীগের অনেকেই বিস্মিত হয় এবং ছাত্রলীগের ওই কমিটি হইতে তার নাম প্রত্যাহারের জোড় দাবি জানায়।

Previous articleমাদারীপুরে প্রেমিকাকে হত্যা মামলায় প্রেমিকের ফাঁসি
Next articleকলাপাড়ায় পরকীয়া সন্দেহে যুবক ও গৃহবধূকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।