রবিবার, জুলাই ২১, ২০২৪
Homeঅপরাধভূঞাপুরে সাংবাদিক আবু সায়েম আকন্দের  মাসহ তিন হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচিত

ভূঞাপুরে সাংবাদিক আবু সায়েম আকন্দের  মাসহ তিন হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচিত

আব্দুল লতিফ তালুকদারঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে সাংবাদিকের মাসহ তিনটি হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে
টাঙ্গাইলের পিবিআই ও ভূঞাপুর থানা পুলিশ।

সুলতানা সুরাইয়া (৬৭) নামের সাংবাদিকের মায়ের গলাকাটা লাশ ভূঞাপুর পৌর এলাকার পশ্চিম ভূঞাপুরের নিজ বাড়ি থেকে উদ্ধারের ঘটনায় মো. লাবু (২৯) ও আল আমিন আকন্দ (২২) কে টাঙ্গাইলের পিবিআইয়ের ইন্সপেক্টর মোখলেছুর রহমানের নেতৃত্বে একদল চৌকসটিম বার বার ঘটনাস্থল পরিদর্শ করে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তাদেরকে আটক করে। আটককৃত মো. লাবু টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার চরপৌলির কাঞ্চাবাড়ী গ্রামের শাহজাহানের ছেলে ও আল আমিন ভূঞাপুর উপজেলার পশ্চিম ভূঞাপুরের সিরাজ আকন্দে ছেলে। এদিকে আল আমিন সুলতানা সুরাইয়ার পাশের বাড়ির দু:সম্পর্কের নাতী ও মো. লাবু পশ্চিম ভূঞাপুর এলাকার মেয়ের জামাই।

প্রেসব্রিফিংয়ে পিবিআইয়ের ইন্সপেক্টর মোখলেছুর রহমান জানান, আল আমিন লাবুকে জানায় দাদির বাড়িতে অনেক টাকা আছে আমরা যেভাবেই হোক ঘরে ঢুকে টাকাগুলো নিবো। গত বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) মধ্যে রাতে সুলতানা সুরাইয়ার প্রকৃতির ডাকে সারা দিলে সে বাথরুমে যায়। সেই সুযোগে আল আমিন ও লাবু ঘরে ঢুকে পড়ে। সুলতানা সুরাইয়া বাথরুম থেকে এসে ওদের দু’জনকে দেখতে পেয়ে ডাকচিৎকার করতে থাকে। একপর্যায়ে তারা গলায় গামছা ও চিকন লাইলনের সুতলি দিয়ে বেধেঁ ফেলে এবং ছুরি দিয়ে সুলতানা সুরাইয়াকে
গলাকেটে হত্যা করে নগদ ১২ হাজার টাকা ও দুইটি মোবাইল নিয়ে ঘরের দরজায় তালা ঝুলিয়ে পালিয়ে যায়।
উল্লেখ্য, সুলতানা সুরাইয়া (৬৭) দ্য বিজনেস ষ্ট্যান্ডার্ড পত্রিকার বার্তা সম্পাদক আবু সায়েম আকন্দের মা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহিম আকন্দের স্ত্রী।

এদিকে জান্নাতুল ফেরদৌস মুনিয়া (৩২) হত্যা মামলার রহস্য উদ্ধসঢ়;‌ঘাটন ও স্বামী মোস্তাককে (৪৮) গ্রেফতার করেছে ভূঞাপুর থানা পুলিশ। গত মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ভূঞাপুর রেল স্টেশন এলাকা থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঘাতক স্বামী মোস্তাককে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত মোস্তাক জেলার
গোপালপুর উপজেলার বাগুয়াটা গ্রামের মৃত হাজী আজমত আলী ছেলে। এছাড়া টাঙ্গাইলের বিজ্ঞ আদালতে স্ত্রী হত্যার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে মোস্তাক। এর আগে গত (১৫ সেপ্টেম্বর) ভূঞাপুর উপজেলার ঘাটান্দি গনেশ মোড় এলাকার জহুরুল ইসলামের ভাড়া বাসায় জান্নাতুল ফেরদৌস মুনিয়াকে (৩২) হত্যা করে লাশ গুম করার জন্য তার ভাড়াটিয়া বাসায় বক্স খাটের নিচে লাশ লুকিয়ে রেখে পালিয়ে যায় ঘাতক স্বামী। পরে মুনিয়ার ভাই আমিনুল ইসলাম খান বাদী হয়ে ভূঞাপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

 

জানা যায়, মোস্তাক আহমেদ ২০২২ সালের ডিসেম্বর মাসে ব্রুনাই থেকে দেশে ফিরেন। তারপর থেকেই বিভিন্ন সময়ে তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ হতো। দুই ছেলের একজন তার খালার বাসায় ছিল। গত বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাতে একরুমে ছেলেকে ঘুমিয়ে রেখে অন্য রুমে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করার পর মরদেহ খাটের নিচে রেখে শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ভোরে বাসার মূল দরজায় তালা ঝুলিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায় মোস্তাক। সকালে ছেলেটা ঘুম থেকে উঠে ডাক চিৎকার করলেও আশপাশের কেউ কোন ভাড়াটিয়া এগিয়ে যায়নি। পরে বাসার কেয়ারটেকার বাসার দরজা খুলে দেয়। এদিকে, মুনিয়া ইসলামের খোঁজ না পেয়ে বাসার বিভিন্ন রুমে খোঁজাখুঁজি করতে থাকে স্বজনরা। একপর্যায়ে ছোট ছেলে বক্স খাটের নিচে দেখতে বলে। পরে বক্স খাটের পাতাটন খুলে মুনিয়ার মরদেহ দেখতে পায়।

অপরদিকে, উপজেলার ফলদা এলাকায় স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিক‌কে ডে‌কে নিয়ে হত‌্যার রহস্য উদঘাটন বিষয়েও পুলিশ সাংবাদিকদের অবহিত করেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments