বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ইরাকের প্রভাবশালী নেতা মুক্তাদা আল-সাদরের রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণার পর থেকে শুরু হওয়া সহিংসতায় এ পর্যন্ত ৩০ জন নিহত ও ৭০০ জন আহত হয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে সাদরপন্থী বিক্ষোভকারীদের বড় ধরনের সংঘর্ষ হয়েছে। পরিস্থিতি এখনো থমথমে বলে জানিয়েছেন সাংবাদিকেরা।

সোমবার ইরাকের সাদর মুভমেন্টের প্রধান মুক্তাদা আল-সাদর এক বিবৃতিতে রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন। এরপর থেকেই বাগদাদে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। রাজধানীর সবচেয়ে নিরাপত্তাবেষ্টিত এলাকা গ্রিন জোনে সাদরপন্থীরা বিক্ষোভ দেখান এবং প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে প্রবেশ করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কারফিউ জারি করা হয়েছে। গ্রিনজোন থেকে সরে যেতে বিক্ষোভকারীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির সরকার।

ইরাকের বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, সোমবার রাত নামতেই বাগদাদের সুরক্ষিত গ্রিনজোন এলাকায় মেশিনগানের গুলির শব্দ শোনা যায়। আহতদের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর অন্তত ১১০ জন সদস্য রয়েছেন।

গত কয়েক বছরের মধ্যে এই প্রথম কারবালায় ইমাম হোসাইন রা:-এর মাজারের দরজাগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে। জিয়ারতের শহর কাজেমাইনেও জিয়ারতকারীদের প্রবেশ বন্ধ হয়ে গেছে।

সোমবার অপ্রত্যাশিতভাবেই রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন মুক্তাদা আল-সাদর। এক বিবৃতিতে জানান, তিনি কখনোই নেতৃত্ব এবং ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের দাবিদার ছিলেন না। চিরদিনের জন্য রাজনীতি থেকে ছেড়ে দিচ্ছেন। সাদর মুভমেন্টের সব দফতর ও প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়ার কথাও জানিয়েছেন তিনি।

নয় বছর আগেও একবার রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন মুক্তাদা সাদর। অবশ্য পরে তিনি আবারো রাজনীতিতে ফিরে আসেন।

ইরাকে প্রায় ১০ মাস আগে সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও রাজনৈতিক বিরোধের কারণে এখন পর্যন্ত নতুন সরকার গঠন করা সম্ভব হয়নি। সাদর মুভমেন্টের কিছু দাবির কারণে সরকার গঠনে বিলম্ব হচ্ছে।

সূত্র : পার্সটুডে

Previous articleবর্তমানে এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ পরিমাণ চালের মজুদ রয়েছে: খাদ্যমন্ত্রী
Next articleআ’লীগ ও বিএনপির পাল্টাপাল্টি সমাবেশকে কেন্দ্র করে আবারও উত্তপ্ত নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।