কাগজ প্রতিনিধি: পার্বত্য জেলা বান্দরবানে চাঁদের গাড়িতে তুলে নিয়ে এক পর্যটককে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। সোমবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে একটি পর্যটন মোটেলে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পর্যটন মোটেলের নৈশপ্রহরী মোহাম্মদ ওসমান গনিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তবে অভিযুক্ত ধর্ষক চাঁদের গাড়ির চালক মোহাম্মদ রাসেল পলাতক রয়েছে। সোমবার মধ্যরাতে শহরের কাছে মেঘলা এলাকায় পর্যটন মোটেলে এ ঘটনা ঘটে। চাঁদের গাড়িটিকে জব্দ করে থানায় নিয়ে এসেছে পুলিশ।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকার সময় তাঁর বন্ধুর পরিচিত গাড়িচালক মো. রাসেল সেখানে যান। রাসেল নারী পর্যটককে বলেন, তাঁর বন্ধুকে পুলিশ মারধর করতে করতে থানায় নিয়ে যাচ্ছে। তাঁকেও ধরে নিয়ে যাবে। এ সময় তাঁকে গাড়িতে উঠতে বলেন। কিছুটা ভয়ে এবং বন্ধুর পরিচিত গাড়িচালককে বিশ্বাস করে তিনি গাড়িতে ওঠেন। রাসেল তাঁকে সেখানে একটি মোটেলে নিয়ে যান।

মোটেলের নিরাপত্তাপ্রহরী ওসমান গণি (৩৫) ফটক খুলে দিয়ে উপস্থিতি খাতায় নাম না লিখে কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে গাড়িচালক রাসেল তাঁকে ধর্ষণ করেন। পরে খাবার আনতে যাওয়ার কথা বলে তাঁকে কক্ষে রেখে রাসেল চলে যান। এ সময় নির্যাতিত নারী তাঁর বন্ধুকে ফোন করে আটকে রাখার কথা জানান। পরে পুলিশ নিয়ে গিয়ে বন্ধু তাঁকে মোটেল থেকে উদ্ধার করেন।

বান্দরবান সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম জানান, ঢাকা থেকে বেড়াতে আসা পর্যটক হেলাল উদ্দিন তার বান্ধবীকে নিয়ে সোমবার রাতে একটি চাঁদের গাড়িতে করে শহরে ঘুরতে বের হয়। হেলাল উদ্দিন তার বান্ধবীকে চাঁদের গাড়িতে রেখে বান্দরবান বাজারে একটি হোটেল থেকে ভাত কিনতে গেলে সেখানে গাড়িচালক মোহাম্মদ রাসেল তরুণীকে পুলিশের ভয় দেখিয়ে পর্যটন মোটেলে নিয়ে যায়। পরে মোটেলের নৈশপ্রহরী মোহাম্মদ ওসমান গনির সহায়তায় ২০৫ নম্বর কক্ষে ওই তরুণীকে আটকে রেখে ধর্ষণ করে।

এ ঘটনায় বান্দরবান সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এনামুল হক জানিয়েছেন, মোটেলে ওই নারীকে আটকে রাখার খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রাত দুইটার দিকে তাঁকে উদ্ধার করা হয়। ঘটনার শিকার ওই নারী মো. রাসেল ও মোটেলের নিরাপত্তাপ্রহরী ওসমান গণির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। ওসমান গণিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রাসেল পলাতক রয়েছেন।

এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, ধর্ষণের শিকার নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হবে। পুরো বিষয়টি ঢাকায় তাঁর অভিভাবকদের জানানো হয়েছে।