কাগজ প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলায় আধিবাসী সম্পদায় শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা বৃত্তি ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের দাড়িয়ে রেখেই আলোচনা শুরু ও শেষ করার অভিযোগ উঠেছে।

জেলা প্রশাসক অনুষ্ঠান স্থলে আসার সাথে সাথেই পরিষদ হলরুমের গোল টেবিলের মাঝের ফাঁকা স্থানে দশম ও একাদশ শ্রেণীর দশজন করে বিশজন শিক্ষার্থী দুই লাইনে দাড়িয়ে পড়েন এবং অজ্ঞাত কারনেই তারা সেখানে আলোচনা সভার সমাপ্তি পর্যন্ত দাড়িয়ে থাকেন।

এ নিয়ে সভা কক্ষে ও বাইরে অভিভাবকদের মধ্যে আলোচনা সমালোচনা করতে দেখা যায়। শিক্ষার্থীদের এভাবে দাড়িয়ে রাখায় কেউ কেউ আবার নিজেদের মধ্যেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
একজন অভিভাবক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আদিবাসী হয়ে জন্ম নেওয়া কি অপরাধ।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয় হতে বিশেষ এলাকার জন্য উন্নয়ন সহায়তা শীর্ষক কর্মসূচির অংশ হিসেবে এর আয়োজন করে উপজেলা প্রশাসন। এতে পরিষদ সভাকক্ষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী আফরিদার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঠাকুরগাও জেলা প্রশাসক ড.কে এম কামরুজ্জামান সেলিম।
এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের ভালভাবে পড়াশুনা করার তাগিদ দিয়ে তাদের সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন। এবং দশজন শিক্ষার্থীর বাড়ী নির্মাণ করে দেওয়ার প্রতিশুতি দিয়ে তালিকা নেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান শাহরিয়ার আজম।
এছাড়াও বক্তব্য রাখেন ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল রানা ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শেফালী বেগম।

আলোচনা শেষে শিক্ষা বৃত্তি ও উপকরণ বিতরনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক ড.কে এম কামরুজ্জামান সেলিম। এ উপজেলায় মোট ৯৩৪ জন নার্সারী থেকে স্নাতকোত্তর পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের এ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে।