উল্লাপাড়ায় একই রোগীর দুই ভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্যাথলজি পরীক্ষায় ভিন্ন রিপোর্ট !

সাহারুল হক সাচ্চু: একই রোগীর আলাদা দুটি প্রতিষ্ঠানে প্যাথলজী পরীক্ষায় ভিন্ন রিপোর্ট মিলেছে। প্রতিষ্ঠান দু’টি হলো- উল্লাপাড়ার তামীম ডায়াগণস্টিক ক্লিনিক এবং খাজা ইউনুস আলী মেডিক্যাল কলেজ এন্ড হাসপাতাল। তামীম ডায়াগণস্টিক ক্লিনিক থেকে প্যাথলজী পরীক্ষায় রিপোর্ট দেওয়া হয়েছে রোগী ডেংঙ্গু ও ম্যালেরিয়া রোগে আক্রান্ত। অপরদিকে খাজা ইউনুল আলী মেডিক্যাল কলেজ এন্ড হাসপাতাল থেকে দেওয়া রিপোর্টে রোগী ডেংঙ্গু ও ম্যালেরিয়া রোগে আক্রান্ত নয়। এখন রোগী মোঃ আমিরুল ইসলাম (২২) ও তার অভিভাবকদের মাঝে প্রশ্ন জেগেছে কোন প্রতিষ্ঠানের রিপোর্ট সঠিক। রোগী আমিরুল ইসলাম বেসরকারী একটি প্রতিষ্ঠানে ইলেকক্ট্রিক বিভাগে চাকুরী করেন । এদিকে তামীম ডায়াগণষ্টিক ক্লিনিক থেকে বলা হয়েছে তাদের রিপোর্ট সঠিক নাও হতে পারে । প্যাথলজী রিপোর্ট সূত্রে, গত ৬ অক্টোবর উল্লাপাড়া শ্যামলীপাড়ায় অবস্থিত তামীম ডায়াগণস্টিক ক্লিনিকে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার নাগরৌহা গ্রামের মোঃ আমিরুল ইসলামের রক্ত ও প্র¯্রাব পরীক্ষা করানো হয়। এ ক্লিনিকে রোগীর রক্ত পরীক্ষায় ডেংঙ্গু এবং ম্যালেরিয়া রোগ নির্নয় করা হয়েছে। এছাড়া রুগীর প্র¯্রাব পরীক্ষায় পাছ সেল রিপোর্টে প্লানিটি ও ইপিথেলিয়াল সেলে আট থেকে দশ মাত্রা উল্লেখ করা হয়েছে। তামীম ডায়াগণস্টিক ক্লিনিক থেকে দেওয়া রিপোর্ট দেখে ডাঃ ফিরোজ হোসেন তালুকদার রোগীকে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার বিষয়ে ব্যবস্থাপত্রে উল্লেখ করেন। এদিকে পরের দিন সাত অক্টোবর খাজা ইউনুস আলী মেডিক্যাল কলেজ এন্ড হাসপাতালে রোগী আমিরুল ইসলামের রক্ত ও প্র¯্রব পরীক্ষা করানো হয়। এ হাসপাতাল থেকে দেওয়া রিপোর্টে রোগীর ডেংঙ্গু এবং ম্যালেরিয়া রোগ নেই। এছাড়া পাছ সেল ও ইপিথেলিয়াল সেল রিপোর্টে মাত্রা এক থেকে দুই উল্লেখ করা হয়েছে। একই রোগীর এমন ভিন্ন রিপোর্টে রোগী এবং তার অভিভাবকদের মনে প্রশ্ন জেগেছে কোন প্রতিষ্ঠানের রিপোর্ট সঠিক। এ বিষয়ে তামীম ডায়াগণস্টিক ক্লিনিকের মালিক মোঃ সাজ্জাদ হোসেন জানান, তার প্রতিষ্ঠান থেকে ডিভাইসের কারনে দেওয়া রিপোটর্টি সঠিক নাও হতে পারে। এদিকে রিপোর্টে ক্লিনিকটির মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (প্যাথ:) আব্দুর রহিমের নাম ও স্বাক্ষর থাকলেও মালিকের উপস্থিতিতে তিনি এ ধরনের কোন রিপোর্টে স্বাক্ষর করেন নি বলে জানান। উল্লাপাড়া সদর ৩০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ফিরোজ হোসেন তালুকদার জানান, ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়া রোগ একটি স্পর্শকাতর বিষয়। কোনটি সঠিক আর কোনটি সঠিক নয় তা বলা কঠিন। তবে দু’টির মধ্যে যে কোন একটি প্রতিষ্ঠানের রিপোর্ট সঠিক হবে। এছাড়া তিনি তামীম ডায়াগনষ্টিক ক্লিনিক থেকে দেওয়া রিপোর্টের ভিত্তিতে রোগীকে সিরাজগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে ব্যবস্থাপত্রে লিখে দেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. মোঃ সিহাব উদ্দিন জানান, বিষয়টি তিনি জরুরীভাবে তদন্ত করবেন।