পাবনায় গ্রাম কমিটি গঠনকালে আ‘লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১৫

কামাল সিদ্দিকী: পাবনার আতাইকুলা থানার সাদুল্লাপুর ইউনিয়নে গ্রাম কমিটি গঠন নিয়ে স্থানীয় আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপের সংঘষে কমপক্ষে ১৫ নেতাকর্মি আহত হয়েছেন। রোববার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। আতাইকুলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান জানান, ঘটনার রাতে সাদুল্লাপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের গ্রাম কমিটি করছিলেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা। কমিটি করার সময় কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস মুন্সির ছেলে আমির সোহেল ওরফে মিলন ও তার ক্যাডার বাহিনী নিয়ে প্রতিপক্ষের উপর সশস্ত্র হামলা চালায়। এ সময় দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলে তিনি জেনেছেন। খবর পেয়ে পুলিশ ফোর্স পাঠিয়ে এলাকার পরিবেশ শান্ত করেন। সাদুল্লাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক রইচ উদ্দিন খান জানান, শান্তিপূর্ণভাবে গ্রাম কমিটি গঠন করা হচ্ছিলো। সেখানে পক্ষ বিপক্ষ অবস্থান ও উচ্চ স্বরে কথা বলাটাই স্বাভাবিক ছিল। কিন্তু কথা কাটাকাটির এক পর্যায় হামলা ও বিশৃঙ্খলা ও সংর্ঘের ঘটনা ঘটে। কিন্তু এই কমিটি গঠনের সময়ে হামলা করাটা মোটেও ঠিক হয়নি বলে দাবী এই আওয়ামীলীগ নেতার। তিনি বলেন, সশস্ত্র হামলায় ইউনিয়ন আ’লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আসাদুল্লাহ সুইট, ৭ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধরন সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ জনি, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা রেজাউল করিম বাবুসহ সিনিয়র জুনিয়র মিলে অনেকে আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৫ জনকে রাতেই গুরুতর অবস্থায় পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সাদুল্লাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক বদরুদ্দোজা খান মানিক বলেন, সাদুল্লাপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস মুন্সি চেয়ারম্যান হওয়ার পর থেকে তাদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে এলাকার নানা শ্রেণির মানুষ। চেয়ারম্যান ও তার ছেলে মিলন এলাকায় সুদের ব্যবসা, মাদক ব্যবসা, শালিসী বাণিজ্যসহ বিভিন্ন অপকর্ম করে যাচ্ছেন। তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে গেলেই নির্যাতন চালায় মিলন বাহিনীর লোকজন। স্থানীয়রা বলেন, আওয়ামীলীগ নেতা, চেয়ারম্যান কুদ্দুস ও তার ছেলে মিলন বাহিনীর অত্যাচারে সাদুল্লাপুর ইউনিয়ন থেকে অন্তত দেড়শত পরিবার ভিটেমাটি ছেড়ে অন্যত্র বসবাস শুরু করেছেন। বিষয়টি নিয়ে আওয়ামীলীগের উপজেলা ও জেলা নেতৃবৃন্দকে অবহিত করার পরেও তারা কার্যকরী কোন পদক্ষেপ নিতে পারেননি। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ইবনে মিজান জানান, খবর পেয়েই পুলিশ ফোর্স পাঠিয়ে এলাকার পরিবেশ নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে। কোন পক্ষই থানাতে অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।