কলাপাড়ায় এই প্রথম পালিত হলো বাঙ্গালীর স্বাধীকার আন্দোলনে শহীদ আলাউদ্দিনের মৃত্যুবার্ষিকী

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় এই প্রথম বার পালিত হলো বাঙ্গালীর স্বাধীকার আন্দোলন ও উনসত্তরের গণ অভ্যুত্থানে দক্ষিণ বঙ্গের প্রথম শহীদ কলাপাড়ার কৃতি সন্তান কিশোর শহীদ আলাউদ্দিন’র স্মরণে শোক র‌্যালী ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কলাপাড়া নাগরিক উদ্যোগে কলাপাড়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন থেকে এক শোক র‌্যালী বের হয়ে শহীদ আলাউদ্দিন বেদীতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। বেলা ১১টায় শহীদ আলাউদ্দিনের কর্মময় জীবন ও দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। নাগরিক উদ্যোগ ও প্রগতি পাঠাগারের আহবায়ক নাসির তালুকদারের সভাপতিত্বে সভায় আলোচনা করেন শহীদ আলাউদ্দিনের ভাই আবুল কালাম খান, তৎকালীন ছাত্রনেতা সো. সানু সিকদার, আহসান উদ্দিন জসিম, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আবুল হোসেন, সমাজসেবক বিশ্বাস শফিকুর রহমান টুলু প্রমুখ। সভায় বক্তারা শহীদ আলাউদ্দিনের কলাপাড়া পৌর শহরে একটি রাস্তার নামকরণ ও স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মাণ করার দাবি জানান। উল্লেখ্য, ১৯৬৯ সালের ২৮ জানুয়ারি বরিশাল আসমত আলী খান ইসস্টিটিউনে ( এ কে স্কুল) দশম শ্রেণির ছাত্র থাকাকালে ঢাকার ছাত্রনেতা আসাদুজ্জামান ও কিশোর মতিউর রহমান হত্যার প্রতিবাদ ও আইয়ুব খানের পদত্যাগের দাবিতে বরিশাল জেলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেয় আলাউদ্দিন খান। মিছিলটি বরিশাল সদর রোডের অশ্বিসী কুমার টাউন হলের সামনে এলে তৎকালীন ইপিআরের গুলিতে আহত হয় আলাউদ্দিন। ওই দিন রাতে বরিশাল সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সে শাহাদাৎ বরণ করেন। তাঁর নামে তৎকালীন কলাপাড়া থানা সার্কেল অপিসার (উন্নয়ন) কলাপাড়া উপজেলা পরিষদের সামনে একটি লাইব্রেরি ও শহীদ মিনার নির্মাণ করেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্দ চলাকালীন পাকবাহিনী শহীদ মিনারটি ভেঙ্গে ফেলে। পরবর্তীতে এরশাদ আমলে শহীদ মিনারটি পুঃণনির্মাণ করা হয়।