যত্রতত্র ওষুধের ফার্মেসি ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার, হুমকির মুখে চান্দিনার স্বাস্থ্যসেবা

ওসমান গনি: কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার সাধারণ মানুষ তাদের মৌলিক অধিকার স্বাস্থ্যসেবা হতে বঞ্চিত হচ্ছে। সরকার মানুষের শতভাগ স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করলে ও স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত কতিপয় অসাধু লোকজনদের দায়িত্বে অবহেলা ও খামখেয়ালিপনার কারনে চান্দিনার লোকজন সেই সুবিধা হতে বঞ্চিত হচ্ছে। সরকার দেশের প্রতিটি উপজেলায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র এবং কমিউনিটি স্বাস্থ্য কেন্দ্র নির্মান করেছে, যাতে করে দেশের প্রতিটি বাড়ির পাশেই স্বাস্থ্যসেবা পায়। সেই হিসাবে কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলায়ও রয়েছে মানুষের স্বাস্থ্যসেবার জন্য উল্লেখিত স্বাস্থ্য কেন্দ্র সমূহ। কিন্তু এসব কেন্দ্র সমূহে দায়িত্ব প্রাপ্ত লোকজনের অবহেলার কারনে অথবা কেন্দ্র সমূহে সঠিক সময়ে উপস্হিত না হওয়ার কারনে বেশির মানুষ সরকারি স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে না। তাছাড়া চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স টি ছিল ৩০ শয্যা বিশিষ্ট। পরিবর্তীতে এটিকে ৫০ শয্যায় উন্নতি করণ করা হয়। অবকাঠামোগত ভাবে স্বাস্থ্য কেন্দ্র সমূহের অবস্থার পরিবর্তন হলে ও মানুষের সেবার মান তেমন সন্তোষজনক বাড়েনি। তাছাড়া চান্দিনা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠছে কতিপয় ডায়াগণষ্টিক সেন্টার। তাদের লক্ষ্য বা উদ্দেশ্য হচ্ছে মানুষের স্বাস্থসেবা দেয়া না। তাদের কাজ হলো মানুষের স্বাস্থ্যের পরীক্ষার নামে প্রতারণা করে অর্থ হাতিয়ে নেয়া। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তারদের সাথে এসব ডায়াগণষ্টিক সেন্টারের রয়েছে অলিখিত চুক্তি। কোন রোগী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে ডাক্তার রোগীদের রোগের বিবরণ শুনে এক গাদা পরীক্ষা/নিরীক্ষা লিখে দিয়ে বলে অমুক ডায়াগণষ্টিক সেন্টার থেকে পরীক্ষা গুলো করে নিয়ে আসেন। এভাবেই চলছে রোগীদের সাথে ডাক্তার ও ডায়াগণষ্টিক সেন্টারের প্রতারণামূলক ব্যবসা। তাছাড়া ও এসব ডায়াগণষ্টিক সেন্টারের দালালগণ সব সময় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বারান্দায় ঘুরাঘুরি করতে থাকে। কোন লোক কেন্দ্রে ঢোকা মাত্র শুরু হয়ে যায় তাদের টানা হেছড়া। কোন ডাক্তারের নিকট যাবেন, আপনার কি সমস্যা এসব বলতে থাকে। তাদের আচার আচরণে সাধারণ মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করে থাকে। ডাক্তারের চেম্বার থেকে কোন রোগী বের হওয়া মাত্র আবার শুরু হয় টানাহেঁচড়া। একজন বলে আমার নিকট আসেন কম টাকায় আপনার সব পরীক্ষা/নিরীক্ষা করে দেব,আরেকজন বলে আমাদের মেশিনপত্র অত্যাধুনিক, পরীক্ষা সঠিকভাবে রোগ ধরাপড়বে। আবার তারা তারা একে অপরের দুর্ণাম করতেও পিছ পা হয় না। তাছাড়া আরেকটা বিষয় হলো সরকারি কোন নিয়ম-নীতি না থাকার কারনে চিকিৎসকরা তাদের ইচ্ছামতো ভিজিট ফি নিয়ে থাকেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আশেপাশে আবার অনেক ডাক্তার নিজেই ডায়াগণষ্টিক সেন্টার খুলে বসেছেন। তারাও দালাল নিয়োগ করে গ্রামগুলোর পল্লী চিকিৎসকদের নিকট দালাল পাঠিয়ে থাকেন। দালালরা পল্লী চিকিৎসকদের নিকট গিয়ে বিভিন্ন লোভনীয় অপার দেয়। আমাদের নিকট রোগী পাঠালে অমুক অমুক সুবিধা পাবেন। মানে কমিশন বা গিফট সামগ্রী। আবার ডাক্তাররা ও বিভিন্ন ওষুধ কোম্পনী হতে মোটা অংকের টাকা বা গিফট সামগ্রী পেয়ে থাকেন। বিনিময়ে কোম্পনীর কিছু ওষুধ লিখে থাকেন। যাও আবার বেনামী কোম্পনীর ওষুধ। যা রোগী খেলে পরে উপকারের চেয়ে ক্ষতিই বেশীর ভাগ হয়। এছাড়া চান্দিনা উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজার গড়ে উঠছে অসংখ্য ওষুধের ফার্মেসী। যার অধিকাংশের ই কোন ড্রাগ লাইসেন্স নেই। এসব ফার্মেসীর মালিকরা তাদের ইচ্ছামতো যে যেমনে পারছে ওষুধ বিক্রি করছে। তাদের অধিকাংশেরই কোন ফার্মাসিস্ট প্রশিক্ষণ নেই। তাছাড়া গ্রামের চায়ের দোকান,মুদি দোকানেও বিক্রি হচ্ছে মানবদেহ রক্ষাকারী ওষুধ। যাদের ওষুধ সম্পর্কে কোন বিন্দু মাত্র ধারনা নেই। সাধারণ মানুষ বুঝে না বুঝে এসব ওষুধ খেয়ে বিভিন্ন জটিল ও কঠিন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এ ব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আহসানুল হক( মিলু) বলেন, এগুলো দেখার কাজ আমাদের না। এটা দেখবে ড্রাগ সুপারেনডেন্ট।

Previous articleআতাইকুলায় সরঞ্জামসহ ৬ মাদকসেবী আটক
Next articleকলাপাড়ায় সাংবাদিক মনিরুল ইসলামের উপর হামলা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।