কলাপাড়ায় সাংবাদিক মনিরুল ইসলামের উপর হামলা

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ম‌হিপুর থানা প্রেসক্লাব সভাপতি ও জি‌টি‌ভির কুয়াকাটা প্রতিনিধি ম‌নিরুল ইসলামের ওপর হামলা চালিয়ে ক্যামেরা ও মোবাইল ছিনতাই করে নেয়া হয়েছে। গত শনিবার সন্ধ্যায় মহিপুরের আমতলা এলাকায় হামলা ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। মহিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি,সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মালেক আকনের ছেলে মহিপুর শ্রমিকলীগের সাবেক সভাপতি সোহাগ আকনসহ তার বাহিনীরা হামলা চালায়। এসময় সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত হয়েছে সাংবাদিক মনিরের ছেলে শিহাব (১৭) ও তার ব্যবসার পরিচালক মনির খান। ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে স্মার্ট ফোন ও ভিডিও ক্যামেরা। মনিরুল ইসলামকে গুরতর আহত অবস্থায় প্রথমে কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম জানায়, তার উপর হামলাকারী সোহাগ আকন ২০১৪ সালে নারী পর্যটকদের শ্লীলতাহানি, মারধরসহ ছিনতাইয়ের অভিযোগে গ্রেফতার হয়। ওই সময় সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম সোহাগের ওই ঘটনায় সংবাদ পরিবেশন করায় তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে সোহাগ আকন বিভিন্ন সময়ে হয়রানি করে আসছে। সোহাগ আকন সাংবাদিক মনিরুল ইসলামের এর নিজস্ব ব্যবসায়িক কাজে বিভিন্ন সময় হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছিল। সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম মহিপুর এলাকায় বালির ব্যবসা করেন। সম্প্রতি সোহাগ আকন মনিরুল ইসলামের ব্যবসার পরিচালক মনির খানের কাছে চাঁদা দাবি করেন। শনিবার রাত ৮ টার দিকে সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম তার ছেলে শিহাব ও ব্যবসার পরিচালক মনির খানকে নিয়ে মহিপুর আমবাগান এলাকায় গেলে সোহাগ আকন তার দলবল নিয়ে মনির খানের উপরে হামলা চালায়। উপর হামলা চালিয়ে তার সাথে থাকা মোবাইল ও ক্যামেরা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। শ্রমিকলীগের সাবেক সভাপতি সোহাগ আকন জানান,তার উপর আনীত সকল অভিযোগ অস্বীকার করেছে। মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহবুব আলম জানান,অভিযোগ পেয়েছি। আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Previous articleযত্রতত্র ওষুধের ফার্মেসী ও ডায়াগণষ্টিক সেন্টার, হুমকির মূখে চান্দিনার স্বাস্থ্যসেবা
Next articleটেকনাফের চাকমারকুল ক্যাম্পে রোহিঙ্গা নারীর আত্নহত্যা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।