বাউফলে সংখ্যালঘু পরিবারের ঘরে তালা, দেশ ত্যাগের হুমকি!

অতুল পাল: বাউফলের এক সংখ্যালঘু পরিবারের ঘরে তালা লাগিয়ে দিয়েছে একটি চিহ্নিত প্রভাবশালী মহল। ঘরে তালা লাগিয়ে ওই পরিবারটিকে দেশ ত্যাগের হুমকিও দেয়া হয়েছে। আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের মাধবপুর বাজারে গত শুক্রবার এ ঘটনা ঘটছে। এব্যপারে গতকাল শুক্রবার রাতে বাউফল থানায় একটি মামলা দায়ের করার কথা জানিয়েছেন ভূক্তভোগিরা।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মাধবপুর এলাকার ১১৩ নম্বর জে.এলের ৪১৮ নম্বর খতিয়ানভূক্ত ১৮৬৪ ও ১৮৬৫ নম্বর দাগের ১১৫ শতাংশ জমির মালিক দুই ভাই কৃষ্ণ কুমার হাওলাদার ও নন্দ কুমার হাওলাদার। কৃষ্ণ কুমার হাওলাদারের ওয়ারিশ সূত্রে আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের সদস্য পরিতোষ হাওলাদার ৪০ শতাংশ জমির মালিক হয়ে নিস্কন্টক জমি হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে ভোগ-দখল করে আসছেন। সম্প্রতি পরিতোষ হাওলাদার তার জমির একাংশে একটি ঘর তোলেন। ঘর তোলার পর স্থানীয় বিএনপি নেতা মোতালেব হাওলাদার (৬৫) ও তার ছেলে ফারুক, মামুন, জাফর, জাকির ও নাতি শাকিল ওই জমি তাদের দাবি করে গত শুক্রবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে ঘরে তালা লাগিয়ে দেন। তালা লাগিয়ে দেয়ার পর পরিতোষ হাওলাদার ও তাদের পরিবারকে দেশ ত্যাগ করে ভারতে চলে যাওয়ারও হুমকি দেন। এঘটনায় পরিতোষ হাওলাদার শুক্রবার রাতে বাউফল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের একাধিক ব্যাক্তি জানান, ২০০৪ সালে জোট সরকারের আমলে এই মোতালেব হাওলাদারের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসি স্থানীয় হিন্দুদের ১৬টি গরু ও ৪টি ছাগল লুট করে নিয়ে ছিল। এব্যপারে বাউফল থানায় ২০০৪ সালের ২২ জুলাই একটি মামলাও হয়েছিল (মামলা নম্বর ০৭)। অপরদিকে স্থানীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ২০১৬ সালের ২২ মার্চ দ্বীনবন্ধু হাওলাদার নামের একজনকে কুপিয়ে ও রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে মোতালেব বাহিনী। ওই ঘটনার ২৬ দিন পর দ্বীনবন্ধু ২০১৬ সালের ১৭ এপ্রিল চিকিৎসাধিন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। এব্যপারেও দ্বীনবন্ধু হাওলাদারের ভাই অভিনাস হাওলাদার বাদি হয়ে বাউফল থানায় মোতালেব ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন। স্থানীয় ননী মাধব সরকার নামের এক ব্যাক্তি জোর করে জমি দখলের অভিযোগে ২০১৮ সালের ১ জুন বাউফল থানায় মোতালেব হাওলাদারের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন (মামলা নম্বর ১/১৮১)। এছাড়া মাধবপুর বাজারে পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপণের জন্য অনুকুল সরকার ও মেঘনাথ সরকার নামের দুই ব্যাক্তি ১৯৯৭ সালে ৩০ শতাংশ জমি দলিল করে দেন। সেই জমিও মোতালেব হাওলাদার জোর করে দখল করে বাসা-বাড়ি নির্মাণ করে রেখেছেন। এরকম আরো অনেক অভিযোগ মোতালেব হাওলাদারের বিরুদ্ধে রয়েছে। অর্থ এবং অদৃশ্য শক্তির প্রভাব খাঁটিয়ে মোতালেব হাওলাদার প্রতিটি মামলা থেকেই হয়তো জামিনে রয়েছেন না হয় মুক্ত হয়েছেন। মোতালেব হাওলাদারের অত্যাচারে স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। এবিষয়ে জানতে মোতালেব হাওলাদারের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এবিষয়ে একজন থানায় এসেছিলেন। এখনো লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনী পদক্ষেপ নেয়া হবে।