ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জে গত ২৪ ঘন্টায় কভিড ১৯ পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ৭৫ জন। এদের মধ্যে সদরে ৫২ জন, শিবগঞ্জে ৭ জন, গোমস্তাপুরে ৪ জন, নাচোলে ও ভোলাহাটে ৬ জন করে ১২ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত সর্বমোট ২ হাজার ৫৬৪ জন পজিটিভ রিপোর্ট আসে।

এখন পর্যন্ত সদর উপজেলায় আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ৪৮১ জন, শিবগঞ্জে ৪৮৬ জন, গোমস্তাপুর উপজেলায় ২৭১ জন, নাচোলে ১৯৭ ও ভোলাহাটে ১২৯ জন।

গত ২৪ ঘন্টায় সদর উপজেলায় সংগৃহীত স্যাম্পল এর সংখ্যা ৩০৭ টি। শিবগঞ্জে ২০, গোমস্তাপুর ৮৩, নাচোল ৭৩ ও ভোলাহাটে ৪৩ টি স্যাম্পল দেয়া হয়। মোট স্যাম্পল ৫২৬টি।

গত ১ মার্চ থেকে ৬ জুন পর্যন্ত মোট ১২ হাজার ৯০০ টি। এর মধ্যে সদরে নেয়া হয়েছে ৬ হাজার ৬৮৯, শিবগঞ্জে ২ হাজার ১৬৪, গোমস্তাপুরে ১ হাজার ৬৯৬, নাচোলে ১ হাজার ২৯৪ ও ভোলাহাটে ১ হাজার ৫৭ টি স্যাম্পল সংগ্রহ করা হয়।

জেলায় সর্বমোট চিকিৎসাধীন পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ১ হাজার ৪৪ জন। এর ভেতর সদরে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৫২২ জন, শিবগঞ্জে ১৯৯ জন, গোমস্তাপুরে ১৫২ জন, নাচোলে ১২১ জন ও ভোলাহাটে ৫০ জন চিকিৎসা নিচ্ছে।

৫ জুন পর্যন্ত পজিটিভ রোগী সুস্থ হয়েছে ১ হাজার ৪৬৪ জন। এর মধ্যে সদরে ৯৩১ জন, শিবগঞ্জে ২৬৮ জন, ১১৬ জন গোমস্তাপুরে, নাচোলে ৭২ জন ও ভোলাহাট উপজেলায় ৭৭ জন পজিটিভ রোগী সুস্থ হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা পজিটিভ আক্রান্ত হয়ে ৫৬ জন মৃত্যু বরণ করেন। এ ছাড়া কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগী আছে ৫০ জন। ডেডিকেটেড হাসপাতালে গত ২৪ ঘন্টায় ১০ জন রোগী ভর্তি হয়েছে। মোট ৩৬৪ জন এ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। যার ভেতর ৩১৪ জনকে ছাড়পত্র দেয়া হয়।

গত ২৪ ঘন্টায় সদরে আরটিপিসিআর ২২ টি নমুনার বিপরীতে ২ জন সনাক্ত হয়। র‌্যাপিড এন্টিজেন ১৯৬ টি নমুনার বিপরীতে ৫০ জন সনাক্ত হয়। শিবগঞ্জে আরটিপিসিআর ১০ টির বিপরীতে ২ জন, ভোলাহাটে ১০ টির বিপরীতে ৩ জন সনাক্ত হয়। মোট ৪২ টি আরটিপিসিআর নমুনার বিপরীতে সনাক্ত হয় ৭ জন। গোমস্তাপুর ও নাচোলে কোন নমুনা নেই।

গত ২৪ ঘন্টায় সদর উপজেলায় ১৯৬ র‌্যাপিড এন্টিজেন নমুনার বিপরীতে ৫০ জন সনাক্ত হয়। শিবগঞ্জ ২০ নমুনার বিপরীতে ৫ জন, গোমস্তাপুরে ৬৮ নমুনায় ৪ জন, নাচোলে ২৩ নমুনার বিপরীতে ৬ জন এবং ভোলাহাট উপজেলায় ৪৩ টি র‌্যাপিড এন্টিজেন নমুনার বিপরীতে ৩ জন সনাক্ত হয়। আরটিপিসিআর সনাক্তের হার ১৬.৬৬% ও র‌্যাপিড এন্টিজেন সনাক্তের হার এখন ১৯.৪২%। যার গড় ১৯.১৩%।

অপরদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রথম লকডাউনে ২৫ মে থেকে ৩১ মে পর্যন্ত ২ হাজার ৩১১টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। যাতে ৪৬৪ জন সনাক্ত হয়। যার গড় ২০.০৭%। ৬ জুন রোববার জেলায় বর্তমানে সনাক্তের হার গড়ে ২০.৩২%। কাজেই লকডাউনের জন্য গড় কমছে। শতভাগ করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করতে তাই জেলা প্রশাসন লকডাউন বাড়তে পারে এমনটাই মনে করা হচ্ছে।

Previous articleভূঞাপুরে চোলাই মদসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক
Next articleরায়পুরে জুয়া খেলার অভিযোগে ৬ যুবক গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।