তাবারক হোসেন আজাদ: দক্ষিন ও পুর্ব-এশিয়ার মধ্যে সব চেয়ে বড় লক্ষ্মীপুরের রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (হ্যাচারি) জনবল সংকটসহ নানা সমস্যায় ডুবতে বসেছে। হ্যাচারি নামে পরিচিত প্রতিষ্ঠানটি এখন চলছে জোড়াতালি দিয়ে। এ হ্যাচারিকে ঘিরে বিপুল সম্ভাবনা থাকলেও তা কাজে আসছে না। এতে ভেস্তে যেতে বসেছে সরকারের সুদূরপ্রসারী উদ্দেশ্য। এখানে উৎপাদিত রেণু-পোনার গুণগত মান ভালো থাকায় দেশের অন্তত ৩৫টি জেলায় তা সরবরাহ করা হয়। প্রতিবছর মৌসুমের সময় প্রতিযোগিতা দিয়ে চাষিরা তা সংগ্রহ করেন, কিন্তু চাহিদার তুলনায় প্রায় ৩০ শতাংশ সরবরাহ করতে পারছে প্রতিষ্ঠানটি। এতে খালি হাতে ফিরে যেতে হয় বিভিন্ন জেলা থেকে আসা মৎস্য চাষিদের। সম্ভাবনাময় এ হ্যাচারিকে উজ্জিবিত করতে তিন বছর আগে জনবলসহ ১৩টি সমস্যা চিহ্নিত করে সুপারিশ করেছে উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি। এতে ৩৬ কোটি টাকার একটি প্রকল্পের ফাইল আটকে আছে মন্ত্রনালয়ে। এখনো আলোর মুখ দেখছে না।

সূত্র জানায়, রায়পুরের এ হ্যাচারিটিতে ৮৩টি পদের মধ্যে ৫৮টিই শূন্য। মাত্র ২৫ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী জোড়াতালি দিয়ে কাজ করছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ১৯৮২ সালের জুনে ৫৪ একর জমিতে ও ২১.৮৩ হেক্টর আয়োতনের ৭৫টি পুকুর নিয়ে রায়পুর পৌরসভা পশ্চিম কাঞ্চনপুর গ্রামে হ্যাচারির নির্মাণকাজ হয়। ওই বছরের ৬ সেপ্টেম্বর তৎকালীন কৃষিমন্ত্রী এ জেড এম ওবায়দুল্লাহ খান এটির উদ্বোধন করেন। গুণগত মানসম্পন্ন রেণু ও পোনার সরবরাহ নিশ্চিতকরণ এবং মাঠপর্যায়ে মৎস্য খাতের সঙ্গে নিয়োজিতদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দেয়ার লক্ষ্যে হ্যাচারিটি প্রতিষ্ঠা করা হয়।

২০১৮ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদে রায়পুরের গুরুত্বপূর্ণ এ হ্যাচারি নিয়ে আলোচনা হয়েছিল। তখন লক্ষ্মীপুর-২ আসনের জাপার সাংসদ মোহাম্মদ নোমান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীর কাছে সম্পূরক প্রশ্ন করে বলেছিলেন, জনবল সংকট, ভবন ও পুকুরগুলো জরাজীর্ণ থাকায় হ্যাচারিটি বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। এটি সচল রাখার ব্যবস্থা করবেন কি না ? জবাবে মন্ত্রী বলেছিলেন, ‘প্রতিষ্ঠানটি অতি দ্রুত সম্ভাব্য সময়ের মধ্যে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনা হবে।’

এর পরিপ্রেক্ষিতে একই বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (মৎস্য) অসীম কুমার বালা ও মৎস্য অধিদপ্তরের উপপরিচালক (প্রশাসন) মো. রমজান আলী সরেজমিনে পরিদর্শন করেন। পরে তাঁরা ১৩টি সমস্যা চিহ্নিত করে মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে তা সমাধানের জন্য সুপারিশ করেন। কিন্তু গত তিন বছরেও তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি।

শুক্রবার (১৮ জুন/০২১) সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পলি জমে শুষ্ক মৌসুমে পানিশূন্য, পুকুর পারের রাস্তগুলো ভেঙে যাওয়া, পানি সরবরাহের সংযোগ দীর্ঘদিনেও সংস্কার না হওয়ায় এখন ২০টি পুকুর সংস্কারের কাজ চলছে। অনেকাংশে বিদ্যুৎ সরবরাহ সংযোগ বিকল। প্রশাসনিক, আবাসিক, হ্যাচারি, গুদাম, রেস্টহাউস ভবনগুলো জরাজীর্ণ এবং ব্যবহারের অনুপযোগী। অনেকাংশে উঁচু সীমানা প্রাচীর নেই। গাড়ি ও অন্যান্য সরঞ্জাম অপ্রতুল। লো-ভোল্টেজ-নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত না হওয়ায় কার্যক্রমে বেগ পেতে হচ্ছে।সম্প্রতি মন্ত্রনালয়ের অর্থায়নে ৯টি পুকুর সংস্কার কাজ চলছে। আগামি ২০২১ ও ২২ অর্থবছরে ১১টি সংস্কার করা হবে। অন্য ৩৬টি পুকুর পলি মাটি জমাট থাকায় ব্যবহারের অনুপুযোগি রয়েছে।হ্যাচারির পিছনের ডাকাতিয়ার সংযোগ খালগুলো স্থানীয় প্রভাবশালিরা বাঁধ দিয়ে দখল করে ইমারত নির্মান করায় পানি প্রবাহ বন্ধ রয়েছে। এতে হ্যাচারিতে নানান প্রকার সমস্যার সম্মক্ষিন হচ্ছে।।

হ্যাচারির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উৎপাদিত রেণু ও পোনার দেশ-বিদেশে খ্যাতি রয়েছে। চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, চাঁদপুর, যশোর ও গোপালগঞ্জসহ অন্তত ৩৫টি জেলা থেকে প্রতি মৌসুমে (জুন মাস) চাষিরা এসে এখান থেকে রেণু-পোনা সংগ্রহ করেন। চলতি বছরে প্রায় মে পর্যন্ত ৩০ লাখ টাকার ৫৯ হাজার পোনা ও রেণু বিক্রিতে রাজস্ব জমা হয়েছে। রেনু বিক্রি করে ২০২০ সালে ৬০ লাখ ৩৪ হাজার টাকা আয় করা হয়েছে। ২০১৬ সালে ১বার শ্রীলঙ্কায় রেনু রপ্তানি হয়েছে।।

রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. ওয়াহিদুর রহমান মজুমদার যুগান্তরকে বলেন, ‘চাহিদার প্রায় ৩০ শতাংশ সরবরাহ করতে পারছি। ১৩টি সুপারিশ পাঠানো হয়েছিলো। তার মধ্যে ৩৬ কোটি টাকার একটি প্রকল্পের ফাইল করোনা ও পদ্মা সেতু নির্মানের কারনে একনেকে তা উঠেনি। তবে তদন্ত কমিটির সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন করা গেলে উৎপাদিত পোনা-রেণু দিয়ে সারা দেশে বিপ্লব ঘটানো যাবে। লোকবল নিয়োগ দিলে উৎপাদন বৃদ্ধি করে কয়েক গুণ রাজস্ব বাড়ানো সম্ভব হবে।’

Previous articleগাইবান্ধায় বন্ধু সিয়ামের বাসায় আত্মগোপনে ছিলেন আবু ত্ব-হা: রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ
Next articleঈশ্বরদী প্রেসক্লাবে করোনা সুরক্ষা সামগ্রী উপহার দিলেন ইউএনও পি.এম. ইমরুল কায়েস
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।