বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীতে ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দ্বিবস উপলক্ষে মানববন্ধন করেছে বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন। বুধবার দুপুর ১২টায় নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন ও সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট আবদুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক এ্যাডভোকেট সাহাদাত হোসেন, দপ্তর সম্পাদক ওমর ফারুক টপি, সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি জসিম উদ্দিন ভিপি, জেলা যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ভিপি পলাশ, জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সাবের হোসেন প্রমূখ।

মানববন্ধন ও সমাবেশে প্রধান অতিথি এ্যাডভোকেট আবদুর রহমান বলেন, ১/১১এর পর যে সরকার ক্ষমতায় এসেছে তারা ষড়যন্ত্র করে এ দেশের গণতন্ত্রকে নস্যাৎ করার জন্য, আমাদের পাশ্ববর্তী সাম্রাজ্যবাদী দেশের সহযোগিতায় এ দেশের গণতন্ত্রকে ২০১৪ সালে নির্বাচনের মধ্যদিয়ে গণতন্ত্রকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছিলো। সেই নির্বাচনে এ দেশের কোনো রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করেনি।

৫ জানুয়ারির সেই নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় ১৫৩ জন নির্বাচিত হয়েছিলো। সরকার গঠন করতে লাগে ১৫১ জন, সেখানে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায়, বিনা ভোটে ১৫৩ জনকে নির্বাচিত করা হয়। সেই নির্বাচনে আপনারা দেখেছেন, যে কয়টা আসনে ভোট হয়েছিলো সেখানে কোনো মানুষ ছিলো না। সেখানে ছিলো গরু, ছাগল, কুকুর। এছাড়া আর কিছু ছিলো না। তারপরও সেই নির্বাচনকে তারা বৈধ নির্বাচন বলে বিশ্বের কাছে চালিয়ে দিয়েছে।

সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনাদের শুভবুদ্ধির উদয় হোক, আপনারা ক্ষমতা ছেড়ে দিয়ে তত্বাবধায়ক সরকারের ব্যবস্থা করুন এবং স্বাধীন নির্বাচন কমিশন গঠন করুন। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন এবং ওনার চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। তা না হলে এ দেশের মানুষের যে চোখের ভাষা, মনের ভাষা আপনারা কেনো বোঝেন না? তাহলে এ দেশে সামনে যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটবে সেজন্য সরকার ও প্রশাসন দায়ী থাকবে।

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া আন্দোলন করার কারণে, গণতন্ত্র পুণরুদ্ধারের আন্দোলনের কারণে তাকে মিথ্যা মামলা, ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে জেলে রেখে ধুকে ধুকে মারা হচ্ছে। আমি মনে করি সরকার ইচ্ছাকৃতভাবে জেলখানায় পয়জনিং করে তাকে মারার ষড়যন্ত্র চলছে। তিনি অসুস্থ তাই সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবি জানিয়ে আসলেও সরকার তা তোয়াক্কা করছে না।

তিনি আরও বলেন, আমরা এ দেশ স্বাধীন করেছিলাম আমাদের ভোটাধিকারের জন্য, মৌলিক অধিকারের জন্য, আমাদের দেশের মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য। কিন্তু আমরা কি দেখেছি, যে দল স্বাধীনতার নেতৃত্ব দিয়েছে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ- তারা কিন্তু সেই গণতন্ত্রের মূল্যায়ন করেনি। যে কারণে আমাদের গণতন্ত্র বিপন্ন হয়েছে। অনেক ত্যাগের বিনিময়ে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে এ দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো।

Previous articleভোট কেন্দ্রের পাশে থেকে আগ্নেয়াস্ত্রসহ যুবক আটক
Next articleরংপুরে আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ২২ লাখ ৬৫ হাজার মেট্রিক টন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।