জয়নাল আবেদীন: রংপুরে জেঁকে বসেছে হাড় কাঁপানো শীত। বিশেষ কওে উত্তরের হিমেল বাতাসে কাবু হয়ে পড়েছে এ জনপদেরমানুষ। এতে ছিন্নমূল ও নিম্নআয়ের মানুষ বেশী বিপাকে পড়েছেন।শীতের তীব্রতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় অগ্নিদগ্ধের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে আগুন পোহাতে গিয়ে গত ২ বছওে রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় নারী, শিশু ও বৃদ্ধসহ ২৫ জন প্রাণ হারিয়েছেন। এ সময় অগিদগ্ধের সংখ্যা ২ শতাধিক। আবহাওয়াবিদদের মতে রংপুরে জানুয়ারি মাস মানেই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নিচে। এ অবস্থা চলে আসছে আড়াই দশকের বেশি সময় ধরে। তবে এবার ব্যতিক্রম। রংপুর সহ আশপাশ এলাকার তাপমাত্রা ছিল ১২ দশমিক ৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস। এসময় তাপমাত্রা স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বেশি হওয়ার কারণ হিসেবে আবহাওয়াবিদ মনে করছেন নদীতে জোয়ার এবং আকাশে মেঘ থাকার কারণে এমনটা হচ্ছে। মেঘ কেটে গেলে শীতের তীব্রতা বাড়বে। জানা গেছে, গত বছর জানুয়ারির প্রথম দিকে এই অঞ্চলের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪ থেকে ৮ ডিগ্রী সেলসিয়াসে উঠানামা করেছে। কোনো কোনো এলাকায় মাঝারি শৈত্য প্রবাহবয়ে গেছে। গত বছরের ৪ জানুয়ারি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রীডা. এনামুর রহমান রংপুরে সফরে এলে প্রচন্ডশীত ও শৈত্য প্রবাহের কারণে এই অঞ্চলকে দুর্যোগপূর্ণ এলাকা হিসেবে ঘোষণা করেন। এবারের জানুয়ারিতে শীতের তীব্রতা তেমন নেই বললেই চলে। গত বছর ডিসেম্বরের শেষের দিকে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রীতে এলেও এবার ডিসেম্বরের শেষে তাপমাত্রা ছিল ১৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসের ওপর। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিট সূত্রে জানা গেছে,গতকাল বিকেল পর্যন্ত রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতলের বার্ন ইউনিটেঅগ্নিদগ্ধ অবস্থায় ভর্তি হয়েছেন ২১ জন।

তাদেরর মধ্যে শিশু, বৃদ্ধ রয়েছেন।গত ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ৩ জানুয়ারি পযর্ন্ত রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে এখন ৪০ জন অগ্নিদগ্ধকে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে বিকেল পর্যন্ত ২১ জন অগ্নিদগ্ধ ভর্তি রয়েছেন।হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটের চিকিৎসক জানান আগুনে দগ্ধ হয়ে এখানে ভর্তি হয়েছেন তাদের বেশির ভাগদিনাজপুর, ঠাকুরগাঁ ও পঞ্চগড় জেলা ও উপজেলার বাসিন্দা। চিকিৎসকদের শঙ্কা শৈত্য প্রবাহঅব্যাহত থাকলেঅগ্নিদদ্ধেরসংখ্যা ও মৃত্য ুঘটন াবাড়বে। এই মৃত্যু রোধে সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই বলে মনে করছেন চিকিৎসকগণ । কারণ হিসেবে তারা জানান, এ সময়ে বিশেষ কওে পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁ জেলায় সবচেয়ে বেশি শীত অনুভূত হয়।গত ২ বছরে শীতে রমেক চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৫ জন আগুনে পোড়া ব্যক্তি মারা গেছেন। রমেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান ডা. আব্দুল হামিদ পলাশ বলেন, শীতের কারণে অগ্নিদগ্ধ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ২১ জনের মধ্যে ৩ জনেরঅবস্থা আশঙ্কাজনক। আগুন পোহাতে গিয়ে তারা দগ্ধ হয়েছেন। তিনি বলেন, শীতের হাত থেকে বাঁচতে আগুনের উত্তাপ নেয়ার বিষয়ে জনগণের সচেতনতা জরুরি প্রয়োজন বলে মনে করেন। কারণ উত্তাপ নিতে গিয়ে প্রতিবছরই এ অঞ্চলের মানুষ মারা যাচ্ছেন। একদিকে বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। আবার সেই সঙ্গে বেড়েছে ঠান্ডা। আর এই দুয়ের প্রভাবে নাজেহাল উত্তরবঙ্গের অবাঙ্গিরা। এই চরম ঠান্ডায় দিন আনা দিন খাওয়া লোকেরা অনেক অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছে। এই প্রচন্ড ঠান্ডায় আটো-রিকশা চালক থেকে বিভিন্ন রকম সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। তারা পাচ্ছেনা সরকারি কিংবা বেসরকারি কোন সহযোগিতা। সৈয়দপুরে- ২৩ টা, রংপুরে- ১১ টা, রাজশাহী- ৩ টা ও ঈশ্বরদীতে- ২ টা সহ মোট ৩৯টি ক্যাম্পের মধ্যে লক্ষাধীক পরিবার জীবন যাপন করছেন। যারা শীতের থাবায় অবরুদ্ধ জীবন যাপন করছেন। তারা এখন পর্যš Íপায়নি কোন রকম জীবন চালিকার সাহায্য এক প্রকার অনাহাওে কাটছে তাদের দিন।

তাদের কয়েকজনের সাথে কথা বলে ফুটে উঠেছে তাদেও চলমান জীবনের চিত্র। অনেক পরিবারে রোগের পাদুর্ভাব বেড়েছে, মেডিকেলে চিকিৎসারত রয়েছে অনেকে। তারা দৃষ্টি রাখতে বলেন প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সহ সরকারি কিংবা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের। তারা বলেন অঅমরাতো এদেশের নাগরিকত্ব পেয়েছি ভোট এলে ভোট দেই সরকার গঠনে আমাদেরও ভূমিকা আছে ।

Previous articleমানিকগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতায় নারী নিহত
Next articleমুলাদীতে লঞ্চঘাট বন্ধ করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।