তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে শিক্ষিকা (অবঃ) গীতা রানী পালকে (৭২) বালিশ চাপা দিয়ে হত্যাকাণ্ডের রহস্য ৪ দিনেও উদঘাটন হয়নি। ফলে অনেকটা হতাশ তার পরিবার স্বজনসহ এলাকাবাসী।

শনিবার (১২ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে দুইজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ওসি নিহতের ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসলে হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত আসামিদের আইনের আওতায় আনা ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন হত্যাকাণ্ডের শিকার গীতা রানীর পরিবার।

নিহত গীতা রানী পাল উপজেলার কেরোয়া ইউপির উত্তর করোয়া গ্রামের পাল বাড়ীর বৃদ্ধ দ্বীনেশ চন্দ্র পালের অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষকা স্ত্রী।

এসময় লক্ষ্মীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পলাশ কান্তি নাথ, মংথাই মারমা, ওসি শিপন বড়ুয়া, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ জুয়েল, মামলার বাদী বিপ্লব বিহারি পাল ও সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

মামলার এজাহারে জানাযায়- গীতা রানী পাল প্রায় দশ বছর আগে পুর্ব মাছিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে অবসর নেন। তার স্বামী মাছিমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সহকারি প্রধান শিক্ষক-সহ দুই মেয়ে ও এক ছেলে কক্সবাজারের রেলওয়ে প্রজেক্টের হিসাব রক্ষক। গীতা রানী ও তার স্বামী বাড়িতে একাই বসবাস করতেন।

গত মঙ্গলবার (৮ ফেব্রুয়ারী) দুপুর তিনটার সময় গীতা রানী ও তার স্বামী খাবার খেয়ে তারা পৃথক কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। বিকাল ৫টার সময় গীতা রানীকে খাটের মধ্যে মৃত অবস্থায় দেখতে পেয়ে স্বামী চিৎকার দিলে পাশের লোকজন ছুটে এসে পুলিশকে সংবাদ দেন। এসময় দুর্বৃত্তরা গীতাকে বালিশ চাপা দিয়ে তার কান, গলা ও হাত থেকে দুই ভরি স্বর্ণ নিয়ে যায়। তিন ঘন্টা পর পুলিশ এসে গীতা রানীর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত শেষে তাদের পারিবারিকভাবে শেষকৃত্য শেষ করা হয়।

ঘটনার পর নিহতের ছেলে বিপ্লব বিহারি পাল বাদী হয়ে রায়পুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকার সন্ধেহে স্থানীয় রীনা রানী নামের এক নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে শরীরে মাথার কপালে,কানে ও গলায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়; যা পূর্বপরিকল্পিত ও প্রতিহিংসামূলক হত্যাকাণ্ড বলে পরিবারের ধারণা।

হত্যাকাণ্ডের ৪ দিনেও অতিবাহিত হওয়ার পরও পুলিশ নেপথ্যে থাকা খুনি চক্রের সন্ধান না পাওয়ায় গীতা রানী ও তার পরিবারের মধ্যে যেমন করে হতাশার সৃষ্টি হয়েছে, তেমনি নির্বিঘ্নে চলাফেরার জন্যে সৃষ্টি হয়েছে আতঙ্ক। তাই হত্যার আসল রহস্য বের করতে ঘাতককে গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পলাশ কান্তি নাথ যুগান্তরকে বলেন, অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষিকা বৃদ্ধা হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। তিনি কিভাবে মারা গেলেন বা তাকে কেন হত্যা করা হলো তা গভির ভাবে তদন্ত হচ্ছে। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে-ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তদন্ত শেষে বুঝা যাবে।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে হত্যা মামলার পলাতক ২ আসামী গ্রেফতার
Next articleদেশে করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫ হাজার ২৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।