বাংলাদেশ প্রতিবেদক: জমা-জমি আত্মসাত করতেই মুলাদীতে বখতিয়ার উদ্দীন প্রিন্সকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন তার মা। এছাড়া বুধবার রাতে প্রিন্সের প্রিন্সের ঘর থেকে একটি চিরকুট এবং গোসলখানার বালতির মধ্যে রক্তমাখা জামা-প্যান্ট পেয়েছেন তিনি। তবে প্রাথমিক সুরতহালে প্রিন্সের গায়ে কোনো আঘাত কিংবা দাগ লক্ষ্য করা যায়নি বলে জানিয়েছেন থানা পুলিশ।

গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার বাটামারা ইউনিয়নের আলীমাবাদ গ্রামের মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরিদ উদ্দীন হাওলাদারের ঘর থেকে তার ছেলে বখতিয়ার উদ্দীন প্রিন্সের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। বুধবার দাফনের পরে ওই ঘর থেকে প্রিন্সের নিরাপত্তাহীনতা সম্পর্কিত চিরকুট এবং রক্তমাখা জামা-প্যান্ট পান তার মা ও স্বজনরা। প্রিন্সের মা রাবিয়া বিপুল জানান, স্বামীর প্রথম স্ত্রী থাকায় আমি দীর্ঘ দিন ধরে ঢাকায় থাকি। ছেলে প্রিন্সও আমার সাথে থাকতো। ৩ বছর আগে প্রিন্স বাড়িতে তার বাবার কাছে চলে আসে এবং গ্রামের বাড়িতে ব্যবসা শুরু করে। এর পর থেকে প্রিন্সের সৎ ভাই-বোনেরা সম্পত্তি থেকে তাকে বঞ্চিত করার চেষ্টা করে আসছিলো।

মঙ্গলবার রাতে ঘর থেকে তাঁর মরদেহ পাওয়া গেছে। বুধবার ময়নাতদন্ত শেষে প্রিন্সের লাশ দাফন করা হয়। এর পরে তাঁর ঘরে থাকা টেবিলের ড্রয়ারের মধ্যে একটি চিরকুট পাওয়া গেছে। গোসলখানার বালতির মধ্যে প্রিন্সের রক্তমাখা জামা-প্যান্ট পাওয়া গেছে। চিরকুটে প্রিন্সকে প্রাণ নাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ রয়েছে। এছাড়া প্রিন্সের বাবা মারা যাওয়ার পর থেকে সে নিরাপত্তাহীনতা ভুগছিলো বলে চিরকুটে লেখা আছে।

এব্যাপারে মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস এম মাকসুদুর রহমান বলেন, প্রিন্সের লাশের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন, প্রাথমিক সুরতহাল প্রতিবেদন, স্বজনদের জিজ্ঞাসাবাদসহ সম্ভাব্য সকল কিছু সামনে রেখে তদন্ত চলছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleসাপাহারে ৪২০ পিস টাপেন্টাডল ট্যাবলেটসহ আটক ৩
Next articleমুলাদীতে ভিজিডির চাল বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।