আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে পুনর্বাসনে নিজ ঘরে রহস্যজনক ভাবে দুই শিশুর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় শিশুর মা (শহিদা) গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে । নিহত শিশুরা হলেন, সাজিম (৫) ও সানি (৪ মাস) পিতা ইউসুফ আলী।

রবিবার (২৪ এপ্রিল) বেলা ১১ টার দিকে উপজেলার নিকরাইল ইউনিয়নের ১নং পুনর্বাসন এলাকায় এ রহস্যজনক ঘটনা ঘটে।

নিহত শিশুর নানী সুর্য্য ভানু বলেন, রাতে না খেয়েই রোজা রেখেছি, সকাল ১০ টা বাজে, কারো কোন সারাশব্দ পাই না। পরে মেয়ে শহিদার ঘরের দরজা বন্ধ পেয়ে ডাকা ডাকি করি কিন্তু শহিদা কোন সারাশব্দ করে না, নাতি দুইটারও কোথাও দেখতে পাইনা পরে মেয়ের জামাই ইউসুফকে ফোন দেই, তুমি তাড়াতাড়ি বাড়িতে আসো শহিদা ঘরের দরজা খুলতেছে না। পরে জামাই এসে ঘরের টিনের বেড়ে খুললে দেখি নাতি দুইজন খাটে পড়ে আছে মেয়ে খাটের পাশে রক্তমাখা শরীরে পড়ে আছে। কিভাবে কি হলো বুঝতে পারছি না বলে কান্নায় বারবার ভেঙে

পড়ছে সুর্যভানু। সুর্যভানু আরো জানান, গত কয়েকদিন যাবৎ আমার মেয়ের সাথে আমার ছেলের বৌর ঝগড়া হতো।

এদিকে নিহত শিশুদ্বয়ের বাবা ইউসুফ বলেন, প্রতিদিনের মতো সন্ধ্যায় খাবার খেয়ে মাছ ধরতে যমুনায় যাই। আমি শনিবার রাতে ভালো মানুষ রেখে গিয়েছি। কি করে আমার সন্তান মারা গেলে? এভাবে বলতে বলতে বারবার অজ্ঞান হয়ে যাচ্ছে বাবা ইউসুফ। ইউসুফ স্ত্রী সন্তান নিয়ে ঘরজামাই থাকেন। ৬ বছর হলো ইউসুফ শহীদাকে বিয়ে করেন, এ ঘরে তাদের দুটি ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। এর আগে ইউসুফ মর্জিনা নামে আরো এক নারীকে বিয়ে করেন, সে ঘরে কোন সন্তান হয়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, নিহত শিশুদের ঘরে খাটের উপর যে ফ্যাটনটি রয়েছে তার দুটি পাখা ভেঙ্গে খাটের পাশে পড়ে আছে, সারা ঘর রক্তাক্ত। এ ঘটনায় এলাকাবাসি মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। কেউ বলছেন হত্যাকান্ড! কেউ বলছেন দুর্ঘটনা হতে পারে।

ভূঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম বলেন, কীভাবে ঘটনা ঘটেছে সেটা জানা যায়নি। তদন্ত চলছে।

Previous articleবিনা চিকিৎসায় ছেলের কোলে বাবার মৃত্যু, বদলি ৩
Next articleরংপুরে ভূমিহীন ও গৃহহীন ৬শ ৭৫টি পরিবারকে ঘর বরাদ্দ দেয়া হবে ২৬ এপ্রিল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।