বৃষ্টির পানিতে জলাধারে মাছ শিকারে কোমলমতি শিশুরা। ছবিটি উপজেলার অলোয়া থেকে তুলেছেন প্রতিবেদক আব্দুল লতিফ তালুকদার। 

আব্দুল লতিফ তালুকদার: বৃষ্টির পানিতে ভরতে শুরু করেছে জলাধারগুলো। জানান দিচ্ছে বর্ষার আগমন। বৃষ্টির নতুন পানিতে বিলের দেশীয় নানা প্রজাতির মাছ যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে। টাঙ্গাইলের বিভিন্ন নিম্ন এলাকার খাল-বিলে ধরা পড়ছে নানা প্রজাতির মাছ।

রাস্তার পাশে অসংখ্য নিঁচু জমিতে বছরে এক ফসল বোরো ধান চাষাবাদ হয়। এসব নিচু জমিতে বছরে প্রায় ৮ মাস পানি থাকায় দেশীয় মাছ প্রজনন করতে পারে। ফলে কৃষকরা এসব মাছ বিক্রি করে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারছে। এতে মাছের চাহিদা পূরণ হচ্ছে।

সরেজমিনে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে চরনিকলা, চর অলোয়া, কয়েড়া, আমুলাদহ বিল, কালিহাতী উপজেলার মাছুয়াহাটা গ্রামের নিকরাইল-সিংগুড়িয়া সড়কের পাশে তারাই বিলে বিভিন্ন বয়সের মানুষ মাছ ধরছে। অনেকেই এসব নিঁচু ভুমিতে পাড় তৈরী করে মাছ চাষ করে স্বাবলম্বি হচ্ছে। দেশীয় মাছের মধ্যে রয়েছে- শোল, বোয়াল, টাকি, কৈ, শিং, মাগুর, টেংরা, বাইম (গোচই), পুঁটি, মলা, ঢেলা ও নন্দাসহ নানা জাতের মাছ।

এসব বিলে প্লাংকটন, জুপ্লাংকটন কচুরিপানাসহ প্রচুর প্রাকৃতিক খাবার থাকায় মাছ বৃদ্ধি পায়। এসব নিঁচু জমিতে কৃষকরা কয়েক দফায় পানি সেচ করে মাছ ধরেন। এতে করে প্রতি শতক জমিতে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকার মাছ বিক্রি করতে পারেন। এসব দেশী প্রজাতির মাছ সুস্বাদু হওয়ায় চড়া দামে বিক্রি করা যায়।

মাছ শিকারি রহিম মিয়া বলেন, রাস্তার পাশে জমিতে বৃষ্টির পানিতে ভরপুর থাকে। বছরে ৭-৮ মাস পানি থাকার কারনে নানা ধরণের মাছ জন্মায়। এসব জমিতে সেচ করে কয়েক দফায় দফায় মাছ ধরে থাকি। ধান আবাদের চেয়ে মাছ চাষেই আমাদের লাভ বেশি হয়। ডিপ্লোমা কৃষিবিদ আব্দুল লতিফ তালুকদার বলেন, গ্রামে অসংখ্য নিচু জলাধার ও বিল-ঝিল রয়েছে। অনেক জমি নিচুঁ থাকায় কৃষকরা বছরে এক মৌসুমে ধান চাষ করতে পারে। ওসব জমিতে জলাবদ্ধ হওয়ায় প্রচুর পরিমাণে দেশী প্রজাতির মাছ জন্মে। এছাড়াও ধান- মাছ সমন্বিত চাষ করেও কৃষক প্রচুর লাভবান হতে পারে। এসব দেশীয়য় মাছ বাজারে প্রচুর চাহিদা থাকায় দামও বেশি।

এ বিষয়ে জেলার ভূঞাপুর উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা এটিএম সামসুজ্জামান বলেন, সামনে বর্ষা মৌসুমে মা মাছগুলো প্রজনন করবে। এসময় নিচু অঞ্চল ভূমিতে পানি কম থাকলেও কিছু পুরোনো মা মাছগুলো মাটির গর্তে লুকিয়ে থাকে। বৃষ্টির পানি পেলেই গর্ত থেকে উঠে আসে। এসময় মাছ গুলো ধরা পরে। তবে এ মাছগুলো ধরলে প্রজননক্ষম মাছ হ্রাস পাবে। তবে দেশী প্রজাতির মা মাছগুলো আমাদের রক্ষা করতে হবে।

Previous articleবঙ্গবন্ধুর ৬-দফা দাবির মাধ্যমে চূড়ান্ত স্বাধীনতার বীজ বপন করা হয়: সজীব ওয়াজেদ জয়
Next article‘ডেইরি আইকন’ পুরস্কার পেলেন ঈশ্বরদীর খামারি আমিরুল ইসলাম
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।