ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছার পাঠক শিকড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গোপনে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় গত বুধবার অবৈধভাবে গঠিত ম্যানেজিং কমিটি বাতিল করে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় কমিটি গঠনের দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন ক্ষুব্ধ অভিভাবক ও এলাকাবাসী।

অভিযোগে জানা গেছে, চলতি বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি পাঠক শিকড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের লক্ষে উপজেলা একাডেমিক সুপারভাজার ফারুকুজ্জামান ডাকুয়াকে প্রিজাইডিং অফিসার নিয়োগ করা হয়। তিনি নিয়োগ পেয়ে সেদিনই তফসীল ঘোষণা করেন। এমনকি সেদিনই প্রচারণার কথা বলা হয়। এছাড়া তফসীল অনুযায়ী, ১৫ মার্চ চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশের কথা থাকলেও ১৩ মার্চেই প্রকাশ করা হয়। অথচ ১৪ মার্চ ছিল মনোনয়ন প্রত্যাহারের নির্ধারিত তারিখ। শুধু তাই নয়, কমিটিতে যাদের অভিভাবক সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে তারাসহ এলাকাবাসী ও অন্য অভিভাবকরা কমিটি গঠনের আগে বিষয়টি জানতেন না। এমনকি এডহক কমিটির সভাপতিকেও জানানো হয়নি। সম্প্রতি বিষয়টি ফাঁস হয়। প্রিজাইডিং অফিসার ও উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার ফারুকুজ্জামান ডাকুয়া মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে গোপনে অবৈধভাবে ম্যানেজিং কমিটি গঠনে প্রধান শিক্ষক বিধান চন্দ্র রায়কে সহযোগিতা করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

পীরগাছা উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার ফারুকুজ্জামান ডাকুয়া ও পাঠক শিকড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান চন্দ্র রায়ের বাড়ি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ফলগাছা গ্রামে। একই গ্রামে বাড়ি হওয়ায় প্রধান শিক্ষকের দুর্নীতির ছায়া সঙ্গী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন একাডেমিক সুপারভাইজার। প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে একাধিক দপ্তরে অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার না পাওয়ায় মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন অভিভাবকরা। তারা এখন নিরব প্রতিবাদ হিসেবে নিজেদের সন্তানকে অন্য বিদ্যালয়ে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। ফলে এক সময়ে বিদ্যালয়টিতে শতশত শিক্ষার্থী উপস্থিত থাকলেও বর্তমানে শিক্ষার্থী সংখ্যা মাত্র ৪০ জনে নেমে এসেছে। যেখানে বিদ্যালয়ে শিক্ষক-কর্মচারি রয়েছেন ১৮ জন। ওই বিদ্যালয়ের সর্বশেষ এডহক কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম লিটন জানান, আমি এডহক কমিটির সভাপতি হলেও নিয়মিত ম্যানেজিং কমিটি গঠনের বিষয়ে আমাকে কিছু জানানো হয়নি। পাঠক শিকড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান চন্দ্র রায় বলেন, বেসরকারি স্কুল কলেজে ম্যানেজিং কমিটি এভাবেই সকলকে ম্যানেজ করে গঠিত হয়। অনিয়ম হয়ে থাকলে কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।

উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার ফারুকুজ্জামান ডাকুয়া বলেন, নিয়ম অনুযায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামসুল আরেফীন বলেন, গোপনে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleমহানবীকে কটুক্তি করার প্রতিবাদে কোলাপাড়ায় মানববন্ধন
Next articleসুনামগঞ্জে বন্যায় আটকা পড়েছেন ঢাবির ২১ শিক্ষার্থী, উদ্ধারের আকুতি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।