এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় শের-ই-বাংলা নৌ ঘাঁটির সম্প্রসারণের জন্য অতিরিক্ত ভূমি অধিগ্রহনে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা তাদের বিভিন্ন দাবী আদায়ের জন্য সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন করেছেন।

বুধবার (১৭ আগষ্ট) দুপুরে পটুয়াখালী প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন শেষে ক্লাবের সামনে মানববন্ধনে মিলিত হন তারা। ভূমি অধিগ্রহনে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যদের পুর্নবাসনসহ আবাসন ব্যবস্থা, জমির সঠিক মূল্য নির্ধারন, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাসহ জমির মালিকদের ভিটায় অবস্থিত সকল সম্পদ তালিকাভূক্তির মাধ্যমে মূল্য প্রদানের দাবীতে এ সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন, উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নে বাংলাদেশ নৌবাহিনী শের-ই-বাংলা নৌ ঘাঁটির সম্প্রসারণের জন্য অতিরিক্ত ৬২০ একর ভূমি অধিগ্রহন করেছেন। অধিগ্রহনকৃত ভূমির আওতায় প্রায় ৭০০ পরিবার বংশ পরম্পরায় বসবাস করে আসছে। দেশের উন্নয়ন ও মঙ্গলের স্বার্থে অত্র এলাকার মানুষ সরকারের সাথে একমত রয়েছে। তারা সরকারকে সাধুবাদ জানিয়ে বাপ-দাদার পৈত্রিক ভিটে বাড়ি ছাড়তে এক পায়ে দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু তারা যাতে তাদের ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত না হয় সে বিষয়টিও সরকারের মাথায় থাকা উচিত বলে তারা মনে করেন। বিশেষ করে তাদের বসবাসের জন্য আবাসন ব্যবস্থা অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। একত্রে ৭০০ পরিবারকে উচ্ছেদ করা হলে তাদের বসবাসের বিষয়টি সরকারের উপরোস্থ মহলের আমলে রাখা উচিত। তাদের মতে, ইতোপূর্বে একই ইউনিয়নে দেশের সর্ববৃহৎ সমুদ্র বন্দর “পায়রা বন্দর” ও তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ করা হয়। সেসকল ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে বসবাসের জন্য আবাসন ও প্রশিক্ষণসহ কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাহলে এখন কেনো তারা এসকল সুযোগ-সুবিধা হতে বঞ্চিত হবে। একই স্থানে দুধরনের ব্যবস্থা এটা সরকারের কোন সঠিক নীতি হতে পারে না বলে ভুক্তোভোগীদের অভিযোগ।

ক্ষতিগ্রস্থ ভুক্তোভোগীরা আরোও অভিযোগ করে বলেন, তাদের ভূমিতে অবস্থিত সকল স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি সম্পূর্ণ গননা করা হয়নি। এগুলো তাদের শেষ সম্বল। তাই সবগুলো সঠিকভাবে গননা করে রেকর্ডভূক্তো না করলে তাদের অবস্থা খুবই শোচনীয় হবে। এখানে অনেক অসহায় ও হতদরিদ্র পরিবার রয়েছে যাদের একটি ঘড় ও অস্থাবর সম্পত্তি ছাড়া কিছুই নেই। তাদের সেই শেষ সম্বলটুকু যদি গননা হতে বাদ পড়ে আবার থাকার জন্য আবাসন না পেলে পথে বসা ছাড়া কোন উপায় থাকবে না। তাদের মতে, বি.এস রেকর্ড এখনো অনেকে ৫৪ ধারায় সংশোধন করতে পারেনি। অথচ সরকার সেই বিএস রেকর্ড দিয়েই এখানকার ভূমি অধিগ্রহণ করেছে। এমতাবস্থায় ভূমির মালিকানার অংশিদারিত্ব নিয়েও মত বিরোধ রয়েছে। তাই অত্র এলাকার জমি নিয়ে একাধিক মামলা-মোকদ্দমা, হানাহানি ও অশান্তির আশঙ্কা করছেন ভূক্তোভোগীরা। এছাড়াও জমি অধিগ্রহণের ফলে এখানকার প্রায় সকল মানুষ পেশাচ্যুত হয়ে পড়বে। যদি প্রশিক্ষণ ব্যবস্থার মাধ্যমে কোন কর্মর্সস্থানের ব্যবস্থা না করা হয় তখন এই ক্ষতিগ্রস্থ ৭০০ পরিবারের ভবিষৎ অনিশ্চয়তা পরবে।

তাই ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা উপরোক্ত বিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাছিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ভূমি অধিগ্রহনে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্য ইমরান হোসেন পিয়াল। এসময় লালুয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. ইউনুছ ফরাজি, পারভীন বেগম ও হাওয়া বেগমসহ ক্ষতিগ্রস্থ পরিবরারের প্রায় দুইশতাধিক সদস্য উপস্থিত ছিলেন। পরে তারা একই বিষয় নিয়ে পটুয়াখালী প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন।

Previous articleদেশজুড়ে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে ঈশ্বরদীতে আ’লীগের বিক্ষোভ সমাবেশ
Next articleদেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে তাহিরপুরে বিক্ষোভ মিছিল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।