আহম্মদ কবির: আজ সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওর পড়ের কৃতি সন্তান অন্যন্য প্রতিভা ও পটভূমিতে গল্পগ্রন্থ সৃষ্টিতে অসাধারণ পন্ডিত্যের অধিকারী, অধ্যাপক সাহিত্যিক সাহেদ আলীর ২১তম মৃত্যু বার্ষিকী।

মরহুম সাহেদ আলী ১৯৫২ সালের ২৮মে,টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের তাহিরপুর উপজেলার হাওর সংলগ্ন শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের মাহমুদপুর নামক অজপাড়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।জন্ম যার যেতায় সেতায় কর্মেই তার পরিচয়,এমন উদাহরণ হাওর পাড়ের অধ্যাপক সাহিত্যিক সাহেদ আলী।

বহুধা প্রতিভার অধিকার অধ্যাপক সাহিত্যিক সাহেদ আলী ২০০১ সালে ৬নভেম্বর ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন।আজ ৬নভেম্বর সাহিত্যিক সাহেদ আলীর ২১তম মৃত্যুবার্ষিকী।কিন্তু সরকারি ভাবে দেশের প্রখ্যাত সাহিত্যিক অধ্যাপক সাহেদ আলীর জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকী পালনে লক্ষণীয় কোন উদ্যোগ না থাকায়,উনার কর্মজীবনের ইতিহাস উনার জন্মস্থান হাওর পাড়ের তরুণ প্রজন্ম দিনদিন হারিয়ে যেতে বসেছে।

স্থানীয় একাধিক প্রবীণ ব্যক্তির সাথে আলাপচারীতার এক পর্যায়ে জানা যায় হাওর পাড়ের অধ্যাপক সাহিত্যিক সাহেদ আলীর জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকী পালনে সরকারি অথবা স্থানীয়দের উদ্যোগ নিতে তেমন দেখা যায়নি। এমন কি জাতীয় অথবা আঞ্চলিক পত্র-পত্রিকায় উনার জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে উনার কর্মজীবন নিয়ে পূর্বে মাঝেমধ্যে কিছু লেখা প্রকাশ হলেও আজকাল তেমনটা চোখে পড়ার মতো নয়।তাই উনার জন্মভূমি হাওর পারের তরুণ প্রজন্মের কাছেও উনার কর্ম ইতিহাস দিনদিন হারিয়ে যেতে বসেছে।

আজ সাহেদ আলীর১৯,তম মৃত্যু বার্ষিকীতে উনার কর্মজীবন তরুণ প্রজন্মের কাছে জাগ্রত রাখার জন্য,বিভিন্ন তথ্য সুত্র সংগ্রহ করে,এই হাওর পাড়ের গৌরবময় ব্যক্তির কর্মজীবন তরুণ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্য আমার এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা।

এই হাওর পাড়ের সাহিত্যিক সাহেদ আলীর লিখনির ভাষায় ফুটে উঠেছে গ্রামের অবহেলিত খেটে খাওয়া জনমানুষের জীবনচিত্রের সার্থক প্রতিচ্ছবি। উনার গল্পে কোন সংঘাত হিংসা-বিদ্বেষ,নেই কোন অত্যাচার-নিপীড়ন,আরাজকথা-পৈশাকচিকতা। শুধুই মানবিক গুণাবলিতে ফুটে উঠেছে উনার লিখনির ভাষার গল্পগ্রন্থ।

দেশের মুসলিম জাতির মধ্যে যে কয়জন ছোট গল্পকারগনের গল্প লিখা চোখে পড়ে তারমধ্যে হাওর পাড়ের সাহেদ আলী নানান দিক বিবেচনায় উল্লেখযোগ্য। সাহেদ আলীর যে কয়েকটি বিষয়ে মুসলিম জাতি হিসাবে মূল্যায়ন করা উচিত,তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল উনি দেশের মুসলিম জনগোষ্ঠীর একজন স্বার্থক রূপকার। উনার লিখা গল্প চোখে পড়লেই খুঁজে পাওয়া যায়,এই প্রত্যন্ত অঞ্চল হাওর পাড়ের জনগোষ্ঠীর সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না, জীবন চলার নানা প্রতিকূলতার সংগ্রাম ইত্যাদি। সাহেদ আলী ব্যক্তিগত জীবনে একজন ইসলামিক চিন্তাবিদ ছিলেন উনি উনার হৃদয়ে যাহা লালন করতেন তাই লেখার ভাষায় প্রকাশ করতেন, যাহা আজ ফুটে আছে ইতিহাসের পাতায়।

সাহিত্যিক সাহেদ আলী মুসলমানদের জীবন কাহিনী লিখতে ভালবাসতেন,তেমনি গল্পগ্রন্থ লিখতে শব্দ ব্যবহারে ছিলেন অত্যন্ত সচেতন। উনি উনার লিখিত গল্পে এমন শব্দ ব্যবহার করেছেন যাহা এই ভাটি বাংলার নিজস্ব ভাষা,তিনি মুসলমানদের জীবন কাহিনী লিখতে যেভাবে ভালবাসতেন, তেমনি গল্পগ্রন্থ লিখতে শব্দ ব্যাবহারে ছিলেন অত্যান্ত সচেতন। এমন শব্দ তিনি তার গল্পে ব্যবহার করেছেন যা জন্মভুমি এই বাংলার নিজস্ব ভাষা, যাহা বাংগালীজাতির জনজীবনের চলমান শব্দাবলী।উনার গল্পগ্রন্থ পড়লে সহযেই বলা যায় গল্পের উদ্দেশ্য। সাহিত্যিক সাহেদ আলী যেমন তার লিখনির ভাষায় সুন্দর করে সাজিয়ে গুছিয়ে তুলতেন তার কল্পনার ভূবন, তেমনি উনি চিন্তামগ্ন করতেন তার জন্মভূমি গ্রাম,হাওর ও হাওরের জিববৈচিত্র এবং হাওর পাড়ের গরীব-দুখী,মেহনতি জনমানুষের কথা।

সাহেদ আলী শৈশবকাল হতেই ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী,তৎকালীন সময়ে উনার জন্মভূমি টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ে শিক্ষার ব্যবস্থা নাম মাত্র থাকলেও উনি ছিলেন অন্যদের ছেয়ে আলাদা,উনি উনার মেধাশক্তি কে কাজে লাগিয়ে সাফল্যতার সাথে প্রাথমিক শিক্ষা অর্জন করেছে । ১৯৪৩ খ্রিস্টাব্দে সুনামগঞ্জ জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় হতে প্রবেশিকা পরীক্ষা সফলতার সাথে উত্তীর্ণ হন,১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দে সিলেট এমসি কলেজ থেকে ব্যাচেলার ডিগ্রী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৫০ খ্রিস্টাব্দে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা সাহিত্যে মাষ্টার ডিগ্রী অর্জন করেন। উনি শুধু কথাশিল্পীই ছিলেন না তিনি সমাজ সংস্কারক ছিলেন। এই হাওড় পাড়ের সাহেদ আলী শুধু কথাশিল্পীই ছিলেন না, তিনি সমাজ সংস্কারকও ছিলেন। উনি পাকিস্তান আমলে ভাষা আন্দোলনে অন্যতম ভুমিকা পালন করেছেন, উনি ছিলেন একজন ভাষা সৈনিক। ১৯৪৮ সাল থেকে ১৯৫০ সাল পর্যন্ত ভাষা আন্দোলনের মুখপত্র দৈনিক সৈনিক পত্রিকায় সম্পাদনার দায়িত্ব পালন করেছেন সাহেদ আলী। এবং ১৯৪৮ হইতে ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দে ভাষা আন্দোলনের সার্বিক
কার্যক্রমে জড়িত ছিলেন তিনি। সাহিত্যিক সাহেদ আলী ভাষা আন্দোলনের সংগঠনের নাম ছিল তমুদ্দিন মজলিস এই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এবং সভাপতির দায়িত্ব পালন
করেন তিনি। ১৯৫১ খ্রিস্টাব্দে বগুড়া আজিজুল হক কলেজের শিক্ষাদানের মাধ্যমে শুরু হয় সাহেদ আলীর কর্মজীবন। পর্যায়ক্রমে রংপুর কারমাইকেল কলেজ, চট্রগ্রাম সিটি কলেজ ও প্রিন্সিপাল আবুল কাশেম প্রতিষ্ঠিত মিরপুর বাংলা কলেজে দীর্ঘদিন অধ্যাপনার দায়িত্ব পালন করেন সাহেদ আলী। ১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দে খেলাফত রব্বানী পার্টির ব্যানারে পূর্ব-পাকিস্তান আইন সভার সদস্য নির্বাচিত হন সাহেদ আলী। ১৯৫৪ হইতে ১৯৫৮খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত তিনি আইন সভার সদস্য ছিলেন। হাওড় পাড়ের সাহেদ আলী শৈশবকাল হতেই লিখতে ভালবাসতেন, তারি দ্বারাবাহিকতায় অষ্টম শ্রেণীতে অধ্যয়ন কালে তখনকার বিখ্যাত সওগাত পত্রিকায় তার সর্বপ্রথম গল্প অশ্রু” প্রকাশিত হয়।

১৯৪৪ হইতে ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত তিনি মাসিক প্রভাতী পত্রিকা সম্পাদনা করেন। ১৯৫৫ খ্রিস্টাব্দে দৈনিক বুনিয়াদ পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬০খ্রিস্টাব্দে ইসলামিক একাডেমী প্রতিষ্ঠিত হলে তিনি এর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬২ থেকে ১৯৮২খ্রিস্টাব্দ পার্যন্ত এ প্রতিষ্ঠানের অনুবাদ ও সংকলণ বিভাগের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করে অবসর গ্রহণ করেন। একেই সাথে তিনি ইসলামিক ফাউন্ডেশন পত্রিকা ও ফাউন্ডেশনের বিখ্যাত শিশু মাসিক পত্রিকা সবুজ পাতা এর সম্পাদনার দায়িত্বে ছিলেন। ১৯৬৩ থেকে ১৯৮২খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বাংলা একাডেমী পত্রিকার সম্পাদনা বোর্ডের সদস্য ছিলেন। ১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে তিনি দৈনিক মিল্লাত পত্রিকার সহকারী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৮০খ্রিস্টাব্দে তিনি মাল্যাসিয়ায় অনুষ্ঠিত সাহিত্য উৎসবে বাংলাদেশ সরকারের প্রেরিত একমাত্র সাহিত্যিক হিসেবে অংশ গ্রহণ করেন হাওড় পাড়ের সাহিত্যিক সাহেদ আলী। উনার রচিত ও প্রকাশিত গ্রন্থসমূহের মধ্যে রয়েছে- ১৯৪৬ খ্রিদটাব্দে প্রকাশিত একমাত্র পথ,তরুণ মুসলিমের ভূমিকা ও ফিলিস্তিনে রুশ ভূমিকা, ১৯৪৮খ্রিস্টাব্দে, সাম্রাজ্যবাদ ও রাশিয়া, ১৯৫০খ্রিস্টাব্দে তরুণের সমস্যা,১৯৬০খ্রিস্টাব্দে বাংলা সাহিত্যে চট্রগ্রামের অবদান,১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দে তওহীদ বুদ্ধির ফসল আত্মার আশিষ, ১৯৭০খ্রিস্টাব্দে ধর্ম ও সাম্প্রদায়িকতা ইক্যুনুমিক অর্ডার অফ ইসলাম,১৯৭৮খ্রিস্টাব্দে জীবন নিরবচ্ছিন্ন ১৯৮০,খ্রিস্টাব্দে রুহীর প্রথম পাঠ, ছোটদের ইমাম, আবু হানিফা,ইসলাম ইন-বাংলাদেশ, ১৯৮১খ্রিস্টাব্দে সোনার গাঁয়ের সোনার মানুষ,ইত্যাদি।এছাড়াও ১৯৯২খ্রিস্টাব্দে অনুবাদ কর্মের মধ্যে রয়েছে মোহাম্মদ আসাদ রচিত ইসলামী রাষ্ট্র ও সরকারী পরিচালনার মূলনীতি, ১৯৬৬ খ্রিস্টাব্দে মক্কার পথ, কে বি এইচ কোনা রচিত আধুনিক বিজ্ঞান ও আধুনিক মানুষ, হিরোরডাটাস রচিত ইতিবৃত্ত ইত্যাদি।১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দে তার একমাত্র উপন্যাস “হৃদয় নদী,১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে নাটিকা বিচার ধর্ম, সমাজ ও সংস্কৃতি বিষয়ক গ্রন্থ জীবন দৃষ্টি সাম্প্রদায়িকতা ইতিহাস বিষয়ক গ্রন্থ, বিপর্যয়ের হেতু প্রভৃতি।

উনার প্রকাশিত গল্পগ্রন্থের৭ টি গল্প সংকলিত হয়।গল্প গুলো হলো- ঐ যে নীল আকাশ, ফসল তোলার কাহিনী, নানীর ইন্তেকাল, এলোমেলো, পোড়ামাটির গন্ধ, আতশী ও জিব্রাইলের ডানা। জিব্রাইলের ডানা “হিন্দী,উর্দু, ইংরেজি ও রাশিয়ান ভাষায় লিপিবদ্ধ হয়েছে।স্বপ্ন ও বাস্তব দুটি এই আলাদা দুটি জগৎ তা নিয়ে নিয়ে মানুষের জীবনের যে প্রতিদিন গতিমান জীবনের সঙ্গে যে যুদ্ধ করতে হয় তাই সাহেদ আলী উনার লিখুনির মাধ্যমে অত্যন্ত সুন্দরভাবে জিব্রাইলের ডানায়” তুলে ধরেছেন। আন্তর্জাতিক ভাবে যার আলোড়ন চড়ায়।

বিভিন্ন সুত্রমতে জানা যায়, এই গল্পটি নিয়ে ভারতের কয়েজন জন চলচিত্রকার ফিল্ম নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। ধর্মনিরপেক্ষবাদী ও বামপন্থি বুদ্ধিজীবিদের চক্রান্তে তাদের পরিকল্পনা প্রচেষ্টা সফল হতে পারেনি। এবং পাশাপাশি বাংলাদেশের চিত্র পরিচালক ইবনে মিজানও জিব্রাইলের ডানা নিয়ে ছবি তৈরী করতে এগিয়ে এসেছিলেন।কিন্তু তিনিও পিছু হটেন অদৃশ্য কারনে।
দেশের কিছু বিদেশ ভক্ত কবি- সাহিত্যিকদের কারনে শাহেদ আলী এবং তার গল্পের প্রচার ও প্রসারে এভাবেই বার বার বিঘ্নতা ঘটছে।

১৯৬৩খ্রিস্টাব্দে সাহেদ আলীর১০ টি গল্প প্রকাশিত হয়। গল্পগুলো হল- সিতারা, পুতুল, মা, বমি, কান্না,অহেতুক, বন্যান, মহাকালের পাখনায়, দ্বীন ব্রাদার্স ও একই সমতলে।
১৯৮৫ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয় ৮টি গল্প নিয়ে তৃতীয় গল্পগ্রন্থ “ শা’নযর” । গল্পগুলো হল- নীল ময়না, জননী, কবি, নেপথ্যে, ছবি, মন ও ময়দান, নোঙর ও শা’নযর। এর মধ্যে “মন ও ময়দান” ভাষা আন্দোলনের উপর প্রকাশিতপ্রথম গল্প। ৬টি গল্প নিয়ে ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয় লেখকের চতুর্থ গল্পগ্রন্থ “অতীত রাতের কাহিনী-পৃথিবী, ইটের পর ইট, রাত অন্ধকার,সোনাখালী, মানুষের মানচিত্র ও অতীত রাতের কাহিনীসহ অসংখ্য গল্পগ্রন্থ।

এই বহুধা প্রতিভার অধিকার কথাশিল্পী সাহিত্যিক সাহেদ আলী১৯৬৪খ্রিস্টাব্দে ছোট গল্পের জন্য বাংলা একাডেমী পুরস্কার, ১৯৮১খ্রিস্টাব্দে ভাষা আন্দোলন পদক,১৯৮৯ খ্রিস্টাব্দে একুশে পদক, ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দে ইসলামিক ফাউন্ডেশন পুরস্কার, ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে ফররুখ স্মৃতি পুরস্কার, ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দে রাগীব-রাবেয়া সাহিত্য পুরস্কার, ২০০০ খ্রস্টাব্দে তমুদ্দিন- মজলিস মাতৃভাষা পদক ও জাসাস স্বর্ণপদক। ২০০৩ খ্রিস্টাব্দে কিশোর কন্ঠ সাহিত্য পুরস্কার (মরণোত্তর) সহ অসংখ্য পুরস্কার পান,হাওড় পাড়ের সাহিত্যিক সাহেদ আলী। তিনিএকাধারে ছিলেন, সাংবাদিক, সাহিত্যিক,ইসলামী চিন্তাবিদ, অনুবাদক ও গবেষক।অতিথে হাওড় পাড়ের সাহিত্যিক সাহেদ আলীর গল্প কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা সাহিত্যে পাঠ্য তালিকায় অন্তর্ভূক্ত থাকলেও বর্তমানে পাঠ্য তালিকা থেকে বাদ পড়ে যাচ্ছে।

সরকারী ভাবে এই গুনি কথাশিল্পীর সাহিত্যকর্ম ও জীবন দর্শন প্রকাশ ও প্রচার করা সময়ের দাবি বলে তরুণ সাংবাদিক ও ছড়াকার এবং উনার জন্মভুমির স্থানীয় সুশীল সমাজ প্রতিনিধিগন মনে করেন।

আহম্মদ কবির

Previous articleকারিগরি বোর্ডের বাংলা প্রথমপত্রের পরীক্ষা স্থগিত
Next articleগাজীপুরে সু-চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত মানুষের মাঝে বিনামূল্যে ঔষধ বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।