অতুল পাল: বাউফলে দিনমজুর বাবার মেধাবী একমাত্র মেয়ে কালিশুরী ইউনিয়নের রাজাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী রিতা রানী দাস (১৫) ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হলে অর্থের অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছে না।

বর্তমানে ওই শিক্ষার্থী মহাখালীরে জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনিস্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। রিতার চিকিৎসার খরচ মেটাতে প্রধানমন্ত্রী ও সমাজের বিত্তবানদের প্রতি সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিতে অনুরোধ জানিয়েছেন তার পরিবার। পারিবারিক সূত্র থেকে জানা গেছে, গত ৬ অক্টোবর রিতা অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে বিভিন্ন পরীক্ষা-নীরিক্ষার পর তার ব্লাড ক্যান্সার ধরা পরে। চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে না পেরে পরে তাকে মহাখালীরে জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনিস্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করে রাখা হয়েছে।

রিতার বাবা শ্যামল দাস জানান, মেয়ের চিকিৎসার জন্য ১০ থেকে ১২ লাখ টাকা লাগবে বলে ডাক্তাররা জানিয়েছেন। আমি একটি মুদি-মনোহারী দোকানে স্বল্প বেতনে শ্রমিকের কাজ করি। আমার কোন জায়গা-জমিও নেই। আমার পক্ষে এই টাকা জোগার করা কোন ভাবেই সম্ভব নয়। আমার মেয়েটা বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর দিকে চলে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী যদি এই খবরটা জেনে সহায়তা করেন এবং বিত্তবানরা সাহায্য করেন তবে হয়তো আমার মেয়েটা বাঁচবে। রিতার সাথে থাকা মামা দিলপি দাস জানান, জরুরী ভিত্তিতে রিতাকে থেরাপি দেয়া দরকার। কিন্তু টাকার অভাবে চিকিৎসা চলছে না।

রিতার চিকিৎসায় সহায়তার জন্য একটি ব্যাংক একাউন্ট এবং দুটি বিকাশ নম্বর দিয়েছেন তার ভাই প্রশান্ত দাস। শ্যামল দাস, সোনালী বাংক, হিসাব নম্বর: ৪৩০৬৭০১০০৫৯০৬, ব্রাঞ্চ কোড: ৪৩০৬৭, রাউটিং নং- ২০০৭৮০১৯১ এবং বিকাশ নম্বর:-০১৭৮৮-৫০৯৪৪৪ এবং ০১৭০৩-৯৮৩৩৮১।

Previous articleকম খরচে লাভ বেশি, বাদাম চাষে ঝুঁকছে চাষী
Next article‘ব্যালট বাক্স ভর্তি’ করার পুনরাবৃত্তি চান না জাপানি রাষ্ট্রদূত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।