বাংলাদেশ প্রতিবেদক: পাবনার ভাঙ্গুড়ায় ছেলের সাথে এসএসসি পাস করলেন মা। আনন্দের এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার খানমরিচ ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামে।

পাশ করা মা ভ্যানচালক আব্দুর রহিমের স্ত্রী মুঞ্জুয়ারা খাতুন এবং ছেলে মেহেদী হাসান। এই দম্পতির এক ছেলে ও এক মেয়ে।

মা মুঞ্জুয়ারার অভাব অনটনের কারণে অল্প বয়সে বিয়ে হয়ে যায়। পরে ২০ বছর পর ছেলের সাথে এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার ইচ্ছা থেকে এ সাফল্য।

জানা গেছে, ছেলে মেহেদী হাসান ভাঙ্গুরা উপজেলার খানমরিচ বিএম স্কুল অ্যান্ড কলেজ ভোকেশনাল শাখা থেকে জিপিএ ৪.৮৯ এবং মা তাড়াশ উপজেলার শামীমা জাফর মৎস্য ইনস্টিটিউট থেকে জিপিএ ৪.৯৩ পেয়েছে।

মা মুঞ্জুয়ারা বলেন, ২০ বছর আগে অভাব-অনটনের সংসারে বাবা বিয়ে দিয়ে দেন। বিয়ের পর স্বামীর বাড়িতে এসে আর পড়াশুনা হয়ে ওঠেনি। বিয়ের চার বছরের মাথায় ছেলের জন্ম হয়, পরে একটি মেয়ে হয়। সন্তানদের পড়ালেখা করাতে গিয়ে আবারো পড়াশোনার প্রতি টান অনুভব করেন তিনি। পরে তিনি স্কুলে ভর্তি হন।

পড়াশোনার জন্য স্বামীর উৎসাহ আর সহযোগিতা ছিল ব্যাপক। যেকারণে এই ফল তার ভাগ্যে জুটেছে। তিনি ন্যূনতম ডিগ্রি পাশ করতে চান। তবে পরিবারের আর্থিক অবস্থার মধ্যে ছেলে-মেয়ের পাশাপাশি নিজের লেখাপড়া কতোটা চালিয়ে নিতে পারবেন, তা নিয়ে বেশ চিন্তিত।

ছেলে মেহেদী হাসান জানায়, লেখাপড়ার কোনো বয়স নেই। মায়ের সাথে এসএসসি পাশ করে আমি গর্ববোধ করছি।

মুঞ্জুয়ারার স্বামী আব্দুর রহীম জানান, তার স্ত্রী ও ছেলে একসাথে পাশ করায় তিনি খুশি। তিনি তার স্ত্রীকে আরো পড়ালেখা করাতে চান।

খানমরিচ বিএম কলেজের অধ্যক্ষ মোফাজ্জল হোসেন জানান, মেহেদী হাসান আমার প্রতিষ্ঠানের ভোকেশনাল শাখার নিয়মিত শিক্ষার্থী। এখন শুনলাম, ছেলের সাথে তার মা এসএসসি পাশ করেছেন, বিষয়টি সত্যিই আনন্দের।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদ হাসান খান জানান, এ ধরনের উদাহরণ সমাজের জন্য খুবই ইতিবাচক। মা-ছেলের এ সফলতা অনেককেই উদ্দীপ্ত করবে।

Previous articleবিএনপির আন্দোলন জনগণের মুক্তির আন্দোলন: মির্জা ফখরুল
Next articleবৃহস্পতিবার থেকে রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘট শুরু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।