রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলারাজশাহী বাঘা পৌর নির্বাচন: বিদ্রোহী প্রার্থীর বিজয় ঠেকাতে মরিয়া দলীয় প্রার্থী

রাজশাহী বাঘা পৌর নির্বাচন: বিদ্রোহী প্রার্থীর বিজয় ঠেকাতে মরিয়া দলীয় প্রার্থী

মাসুদ রানা রাব্বানী: আগামী ২৯ ডিসেম্বর রাজশাহীর বাঘা পৌরসভার নির্বাচন। এই নির্বাচনে মেয়র, সদস্য ও সংরক্ষিত সদস‍্যসহ তিনপদে মোট ৬১ জন প্রার্থীর লোকজন স্ব-স্ব প্রার্থী পক্ষে নির্ঘুম প্রচার-প্রচারণা ও গনসংযোগ করছেন। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে উত্তাপ উৎকণ্ঠা।

দিনরাত আ’লীগ প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণা ও গন সংযোগ চললেও সতন্ত্র প্রার্থী আক্কাস আলীর প্রচারনায় বাধা বিঘেœর ব‍্যাপক অভিযোগ উঠেছে। এছাড়াও ভোটের মাঠে টাকার ছড়াছড়িতে অনেক প্রার্থীই হতাশা ব্যক্ত করেছেন। মেয়র পদে সতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, নির্বাচনে টাকার ব্যবহার নির্বাচনী পরিবেশকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। আমি নির্বাচন কমিশনের নির্ধারণ করা টাকার মধ্যেই নির্বাচনী ব্যয় সীমাবদ্ধ রাখার চেষ্টা করছি। তবে নৌকার প্রার্থী যেভাবে ব‍্যানার ফেষ্টুন ও পোষ্টার টানিয়েছেন তাতে করে নির্বাচনী ব‍্যায় পোস্টারেই অতিক্রম করেছে বলে আমি মনে করি। বিষয় গুলো খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া দরকার বলে দাবি করেন তিনি। যোগ্য প্রার্থী ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হবেন এটিই গনতন্ত্র।

সতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আক্কাস আলী বলেন , ভোটের মাঠে আমার প্রচার প্রচারনায় যেভাবে বাধা প্রদান করা হচ্ছে তার পরেও রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রয়োজনীয় ব‍্যবস্থা নিতে কালক্ষেপন করছেন। নির্বাচনে ভোটের মাঠে আমার পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে। প্রচার মাইক ভেঙ্গে ফেলা হবে বলে চালককে ভয় ভিতি প্রদর্শন করছে। নির্বাচনি মাঠে ছড়ানো হচ্ছে কালো টাকা। প্রকাশ্যে আমার কর্মি সমর্থকদের প্রাণ নাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে। এতে করে আগামীতে কোন ভদ্রলোক নির্বাচন করার সাহস করবে না। এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে যেন, টাকা ছাড়া ভোট পাওয়া যাবে না। এতে অনেক সম্মানিত ভোটারই বিব্রত হচ্ছেন। আমরা নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত টাকার মধ্যেই নির্বাচন সম্পন্ন করতে চাই। নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে টাকার ছড়াছড়ি বন্ধ করতে হবে। সব প্রার্থীর নির্বিঘেœ প্রচার প্রচারনা চালানোর পরিবেশ তৈরি করতে হবে। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহিনুর রহমান পিন্টু অবৈধভাবে ভোটারদের মাঝে টাকা বিতরণ করছেন। বিষয়টি খতিয়ে দেখা নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব। যেভাবে আচরণবিধি ভঙ্গ করা হচ্ছে এতে আমি এবং ভোটাররা শঙ্কার মধ্যে আছি। তিনি আরও বলেন, আমার বিজয় ঠেকাতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন আওয়ামীলীগের প্রার্থী। ক্ষমতা আর প্রভাব খাটিয়ে আমার কর্মী-সমর্থক, এবং ভোটারদের হুমকি ধামকি দেওয়া হচ্ছে। পৌর এলাকায় এখন আওয়ামীলীগের কর্মিরা মাঠ দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে।

আওয়ামীলীগ নেতারা মনে করেছেন, তারা এমন ভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে মাঠে থাকলে আমার কর্মি সমর্থকসহ সাধারণ ভোটাররা ভয়ে ভোট দিতে যাবেনা। সেক্ষেত্রে নির্বাচনকে প্রভাবিত করে ফলাফল তাদের অনুক‚লে নিতে পারবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবীণ আ’লীগ নেতা বলেন, বাঘা পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে আ’লীগ ও আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছাড়াও সতন্ত্র ব‍্যানারে জামায়াত বিএনপির প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। ভোটের প্রচার প্রচারনা সুষ্ঠুভাবেই চলছে। কিন্তু আওয়ামীলীগের কিছু অতি উৎসাহি ব‍্যাক্তি নির্বাচনী মাঠে উত্তাপ ছড়াচ্ছে। তারা ভাবছে, জামায়াত বিএনপি নয়, মুল লড়াই হবে আ’লীগ প্রার্থীর নৌকার সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থীর জগ মার্কার। বিদ্রোহী প্রার্থীকে দমন করতে পারলেই তাদের বিজয় সু-নিশ্চিত। এমনটি মনে করেই তারা সতন্ত্র প্রার্থী আক্কাস আলীর কর্মী, সমর্থক এবং সাধারন ভোটারদের হুমকি ধামকি দিচ্ছে এবং প্রচার প্রচারনায় বাধাগ্রস্ত করছে।

এ বিষয়ে নৌকা প্রতীকের প্রধান সমন্বয়ক ও উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুলকে তাঁর ব‍্যবহৃত ০১৭১৬-৯৮৭১৩৩ মুঠোফোন নম্বরে একাধিকবার কল করে রিসিভ কনেনি। ফলে তাঁর বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। এ ব্যপারে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও পৌর নির্বাচনে সহকারি রিটার্নিং অফিসার মুজিবুল আলম বলেন, গত বুধবার রাত ৯টা পর্যন্ত রিটার্নিং অফিসার মোঃ আবুল হোসেন স্যার সহ অন্যান্য কর্মকর্তারা মিলে সরেজমিন নির্বাচনী এলাকা পরিদর্শণ করেছি। ভোটারদের কোন প্রার্থী টাকা দিচ্ছেন এমন অভিযোগ কোন ভোটারের কাছে শুনিনি। তবে কিছুক্ষণ আগে অর্থাৎ বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) সন্ধা ৬টার দিকে মোঃ আক্কাস আলীর একটি অভিযোগ পত্র পেয়েছি। আমি সেটা রিটার্নিং অফিসার মোঃ আবুল হোসেন স্যারের কাছে পৌঁছে দেবো।

তিনি আরও বলেন, আমরা নির্বাচনকে সুষ্ঠুভাবে সমাপ্ত করতে সকল ধরনের পদক্ষেপ গ্রহন করেছি। কেউ যেন নির্বাচন কে প্রশ্নবিদ্ধ করতে না পারেন সেজন‍্য নির্বাচনী এলাকায় আমাদের কঠোর নজরদারি রয়েছে। নির্বাচনের পরিবেশ সুষ্ঠু রাখতে ম্যাজিস্ট্রেট, আইনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি থাকবে আইন প্রয়োগকারী বিভিন্ন সংস্থার সদস‍্য। কেউ দাঙ্গা-হাঙ্গামা সৃষ্টি করে ভোটের পরিবেশ নষ্ট করতে চাইলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। প্রসঙ্গত, আগামী ২৯ ডিসেম্বর বাঘা পৌরসভার ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী পৌর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌরসভার বর্তমান প‍্যানেল মেয়র শাহিনুর রহমান পিন্টু ছাড়াও মেয়র পদে সতন্ত্র হিসেবে জগ প্রতীকে নির্বাচন করছেন সাবেক মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস‍্য ( বতর্মান বহিষ্কৃত) আক্কাস আলী। নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি জামায়াত দলীয়ভাবে অংশগ্রহন না করলেও সতন্ত্র মোড়কে লড়াই করছেন যথাক্রমে কম্পিউটার প্রতীকে উপজেলা বিএনপির সভাপতি ( বহিষ্কৃত) কামাল হোসেন, নারিকেল গাছ প্রতীকে উপজেলা জামায়াতের আমির অধ‍্যক্ষ সাইফুল ইসলাম এবং মোবাইল প্রতীক নিয়ে লড়ছেন নির্দলীয় ইসরাফিল আলম।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments