বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
Homeসারাবাংলাফরিদপুরে গৃহবধূকে ধর্ষণ ও হত্যা, স্বামীসহ ২ জনের মৃত্যুদণ্ড

ফরিদপুরে গৃহবধূকে ধর্ষণ ও হত্যা, স্বামীসহ ২ জনের মৃত্যুদণ্ড

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ফরিদপুর সদরপুর উপজেলার ঢেউখালী গ্রামের গৃহবধূ রাশিদা আক্তার রুশিকে (৩০) ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে দুইজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে ফরিদপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান এ আদেশ দেন।

বিচারক রাশিদা আক্তারকে ধর্ষণের পর গলাটিপে শ্বাসরোধ করে হত্যার দায়ে একই গ্রামের প্রয়াত রহিম মাতুব্বরের ছেলে চুন্নু মাতুব্বরকে (৫০) এবং হত্যার পরিকল্পনাকারী হিসেবে নিহতের স্বামী একই গ্রামের প্রয়াত বারেক মোল্যার ছেলে জাহাঙ্গীর মোল্যাকে (৪৯) মৃত্যুদণ্ড দেন।

আদালতে রায় ঘোষণার সময় আসামিরা পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি এবং প্রত্যেককে এক লাখ টাকা জরিমানারও আদেশ দেন বিচারক।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০০ সালের জুন মাসে সদরপুর উপজেলার ঢেউখালী গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে রাশিদা আক্তার রুশির সঙ্গে একই গ্রামের প্রয়াত বারেক মোল্যার ছেলে জাহাঙ্গীর মোল্যার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকসহ নানা কারণে জাহাঙ্গীর রাশিদাকে নির্যাতন করতো। এক পর্যায়ে জাহাঙ্গীর সৌদি আরবে প্রবাসী হন। সৌদি থেকে ফিরে জাহাঙ্গীর ভাঙ্গা উপজেলার সুমা বেগমকে বিয়ে করেন। তখন রাশিদার ওপর নির্যাতন বেড়ে যায়। পরে জাহাঙ্গীর আবার প্রবাসে চলে গেলে রাশিদা তার বাবার বাড়ি চলে যায় এবং সেখানেই বসবাস করতে শুরু করেন। রাশিদা বাবার বাড়িতে বসবাসের সময় প্রতিবেশী চুন্নু মাতুব্বরের ছেলেকে প্রাইভেট পড়াতেন। এদিকে জাহাঙ্গীর বিদেশে বসেই রাশিদাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। এ জন্য তিনি রাশিদার প্রতিবেশী চুন্নু মাতুব্বরকে ২ লাখ টাকায় ভাড়া করেন। চুন্নু মাতুব্বর ২০১২ সালের ১৩ জানুয়ারি রাতে রাশিদাকে ধর্ষণের পর গলাটিপে হত্যা করেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট স্বপন পাল বলেন, রাশিদাকে হত্যার পরিকল্পনাকারী হিসেবে স্বামী জাহাঙ্গীর মোল্যাকে (৪৯) এবং ধর্ষণ ও হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জাবানবন্দি দেওয়ায় চুন্নু মাতুব্বরকে (৫০) মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন আদালত। রাশিদার স্বামী সৌদি আরবে পলাতক রয়েছেন এবং চুন্নু মাতুব্বরও পলাতক রয়েছেন। তাদের প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মামলার বাকি পাঁচ আসামির হত্যায় সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় তাদের খালাস দিয়েছেন আদালত।

মামলার আসামিপক্ষের আইনজীবী বিমল তুলশিয়ান বলেন, ‘মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা পলাতক রয়েছেন। তারা আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আমরা পরবর্তী করণীয় ঠিক করবো। আদালত বাকি আসামিদের খালাস দেওয়া আমরা খুশি।’

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments