শনিবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২৩
Homeসারাবাংলামাদারীপুরে তলিয়ে গেছে অনেক গ্রাম ও ফসলের মাঠ

মাদারীপুরে তলিয়ে গেছে অনেক গ্রাম ও ফসলের মাঠ

আরিফুর রহমান: মাদারীপুরে কয়েক দিনের টানা বর্ষণ এবং উজান থেকে নেমে আসা পানিতে বৃদ্ধি পেয়েছে মাদারীপুরে আরিয়াল খাঁ নদীর পানি। তলিয়ে গেছে অনেক গ্রাম ও ফসলের মাঠ। হঠাৎ আরিয়াল খাঁ নদের পানি নামতে থাকা, পানির টানে নদী তীরবর্তী এলাকায় বেড়েছে ভাঙন। অনেক জায়গায় মানুষের বাড়ি-ঘর, স্কুল-কলেজ, জমি-জিরাত, স্থাপনা-সব নদী গর্ভে বিলিন হচ্ছে।

এদিকে আরিয়াল খাঁ নদী ভাঙনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে চরাঞ্চলের মানুষ। তিন সপ্তাহের ব্যবধানে মাদারীপুর সদর উপজেলার তাল্লুকে,মহিষেরচর, পাঁচখোলা,কাজিরটেক ফেরিঘাট, বাবনাতলা,ঝাউদি ইউনিয়নের ব্রাহ্মন্দি,হোগলপাতিয়া,চর-হোগলপাতিয়া গ্রাম, মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার আলিনগর ইউনিয়নের, সস্তাল এলাকার ফাসিয়াতলার তিন নদীর মুখে, আনন্দ বাজার, সূর্যমনি,খাসেরহাট, মোল্লার হাট,সীমিতর হাট,ভাটোবালি, আলীপুর,বাঘাবাড়ি,আন্ডারচর,কাচিকাটা গ্রামে পাঁচ শতাধিক বসত বাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের মুখে পড়েছে হাজার হাজার একর ফসলি জমি ও বসতবাড়ি। ভাঙনকবলিত পরিবারগুলো মানবেতর জীবনযাপন করছে। এদিকে সরজমিনে গিযয়ে দেখা যায়, এই নদী ভাঙ্গন রোধের জন্য গেল বছর পানি উন্নয়ন বোর্ডের থেকে আলিনগর এবং ঝাউদি ইউনিয়নের মধ্যবর্তী স্থানে দেওয়া হয়েছিল জিও ব্যাগ। জিও ব্যাগসহ ভেঙ্গে গেছে তীরবর্তী অংশটি স্থানীয়দের দাবি অবৈধ ড্রেজার দিয়ে বালিকাটা ও হঠাৎ নদীর পানি কমে যাওয়ায় নদী ভাঙ্গন শুরুহয়েছে। এখন তারা বাড়িঘর ও ফসলি জমি নিযয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে,

স্থানীয় বাসিন্দা ৬৫ বছরের রহিমা খাতুন অভিযোগ করে বলেন,চার বছর আগে আমার স্বামী মারা গেছে। তখন নদীর মাঝখানে আমার ছোট একটা ঘর ছিল। এরকম বর্ষার সময় হঠাৎ নদী ভাঙা শুরু হয়।তখন বাড়িটা একটু সামনে আনি।এরকম সামনে আগাতে আগাতে ১০ বার বাড়ি ভাঙছি।নদী ভাঙতে ভাঙতে আমার সব জায়গা জমি কেঁড়ে নিয়েছে। এই নদীর জন্য আমি আমার স্বামীরে হারাইছি। আমার ঘরবাড়ি হারাইছি সংসার হারাইছি, এখন আমি অন্যের একটি ঘরে থাকি। ভাঙতে ভাঙতে তাও বাড়ির পাশেও নদী চলে এসেছে। কি আর বলবো? ভাঙ্গার কথা মনে পড়লে কান্না চলে আসে! আমরা সরকারকে ভোট দিয়েছি, সরকারকে আমরা জিতাইছি, সরকার যদি আমাদের দিকে তাকায়। তাহলে আমরা ঘরবাড়ি করে থাকতে পারবো। আর না হলে আমরা আর থাকতে পারবো না এই নদীর ভিতরে আমাদের তলিয়ে মরতে হবে। কৃষক গিয়াসউদ্দিন বেপারী বলপন,হঠাৎ নদীর পানি বেরে যাওয়ায় আমাদের নদী আবারো ভাঙতে শুরুকরেছে। আর তাই নদী ভাঙলেই আমার ঘর ভেঙ্গে যাবে। সরকার ও প্রশাসনের কাছে আমাদের দাবি তারা যেন অতি তাড়াতাড়ি আমাদের এখানে যেন একটা ব্যাবস্তাকরে। যাতে নদীভাঙ্গা থেকে আমরা রেহাই পাই। আমার বিয়ে হওারপর থেকে দেখে আছতেছি নদী ভাঙ্গন। প্রায় তিন থেকে চার একর জমি এই নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এবং আমার একটি গাছের বাগান ছিল নদীর পাড় প্রায় ৩০০ এর মতো গাছ লাগিয়েছিলাম। সেই বাগানটিও নদী নিয়ে নিছে। এখন সেই গাছের বাগান থাকলে অনেক টাকা আয় করতে পারতাম। শেষ সম্বলটুকু এটাও ভেঙে গেছে নদীর ভিতরে। এখন একটু ঘর উঠিযয়ে ছেলে সন্তান নিয়ে রয়েছি।

এখন যেভাবে নদী ভাঙ্গা শুরু করছে যদি এরকম করে নদী ভাঙ্গে তাহলে আমাদের আর থাকার মত কোন স্থান থাকবে না। সরকারের কাছে আমাদের কোন চাওয়ানেই। শুধু যেন সরকার আমাদের এই নদী ভাঙ্গাটা একটু বন্ধ করে দেয়। অতি কষ্ট এবং বুকে চাপা ক্ষোপ নিয়ে কথাগুলো বলতেছিলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধা ফরিদা বেগম। এদিকে শুধু ফরিদা, রহিমা,গিয়াসউদ্দিন, সবুজ,আনোয়ার নয় হাজার হাজার মানুষের কান্নায় কষ্ট রয়েছে এই নদীর জন্য। তারপরও তারা পায়নি নদী ভাঙ্গন রোধের কোন ব্যবস্ধসঢ়;হা।এই নদী কেড়ে নিছে তাদের শোনার ফসল। কেড়ে েিয়ছে ঘরবাড়ি তাই তাদের প্রত্যেকের দাবি এই নদী ভাঙ্গনের জন্য স্থাই একটি বাধ তৈরি করে দেয় যেন সরকার । এদিকে নদী পারাপারের নৌকার মাঝি সবুজ হাওলাদার অভিযোগ করে বলেন, আমাদের ঠিকমতো কোন নৌকা ভিড়ানোর ঘাট নেই। এই নদী ভাঙ্গার কারণে আমাদের যে ঘাটু ছিলও তাও ভেঙ্গে গেছে, এখন আমাদের নৌকা এপার থেকে ওপারে ভিড়াাইতে অনেক কিলোমিটার নৌকা চালিয়ে যেতে হয়। আগে তিন লিটার তেলে নৌকা চালাতে পারতাম সকাল থেকে রাত পর্যন্ত। এখন পাঁচ থেকে ছয় লিটার তেলে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নৌকা পারাপার করতে কষ্ট হয়ে যায়।

সরকারের কাছে আমাদের আবেদন তাড়াতাড়ি নদী ভাঙ্গা রোধ করেন। তাহলে আমাদের জন্য বড় উপকার হবে। আলীনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিদ পারভেজ বলেন, নদীতে পানি কমে যাওয়ায় নদী ভাঙনের বিষয়টি আমি শুনেছি।পানি উন্নায়ন বোর্ড এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে দ্রৃত যাতে ভাঙ্গন রোধ করা যায় সে ব্যবস্থা গ্রহণ করার পদক্ষেপ নেব।

ঝাউদি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম আবুল হাওলাদার বলেন, বিয়টি আমি পানি উন্নায়ন বোর্ডের কর্মকর্তাকে জানিয়েছি দেখি তারা কি ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

মাদারীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ সানাউল কাদের খান বলেন, হঠাৎ পানি কমায় নদী ভাঙ্গন কিছু কিছু জায়গায় শুরু হয়েছে। কোন কোন এলাকায় নদী ভাঙ্গন শুরু হয়েছে।আমাদের টিম পর্যবেক্ষণে রয়েছে। কোথায় কোথায় বেশি ভেঙেছে সেখানে জিওব্যাগ দেওয়ার প্রক্রিয়া থাকবে। এছাড়া কালকিনি উপজেলায় চারটি ভাঙন স্থানে জিওব্যাগ ফেলানো হয়েছে। এবং রাজৈরে নদী ভাঙ্গনের দুই স্থানে জিওব্যাগ দেওয়া কাজ চলমান রয়েছে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments