রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাআখের সাথে ‘সাথী ফসল’ চাষে লাভবান কৃষক

আখের সাথে ‘সাথী ফসল’ চাষে লাভবান কৃষক

স্বপন কুমার কুন্ডু: আখ দীর্ঘমেয়াদি ফসল। তাৎক্ষণিক অর্থ না আসায় কৃষকরা আখ চাষে আগ্রহ যখন হারিয়ে ফেলছিলেন। অথচ আখ বাংলাদেশের খাদ্য ও শিল্পে ব্যবহার্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অর্থকরী ফসল। যা জমিতে প্রায় ১২-১৩ মাস থাকে। তুলনামূলকভাবে অন্যান্য ফসলের তুলনায় আখের দাম না বাড়ার কারণে কৃষকরা আখ চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। এতে আখ চাষের জমির পরিমাণও কমে যাচ্ছে। যার প্রভাব পড়েছে দেশের চিনিশিল্পের ওপরে। তাই আখ ফসলকে রক্ষার জন্য আখের সাথে স্বল্পমেয়াদি ফসল চাষ করে কৃষক ও এই শিল্পকে বাঁচানোর প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে। আখের সাথে সাথি ফসল হিসেবে মটরশুঁটি, ছোলা, মসুর, মুগ, আলু, কপি, মসলাজাতীয় ফসলের মধ্যে পেঁয়াজ, রসুন চাষ করা হচ্ছে। সাথী ফসল চাষে ভাল ফলনেরও স্বপ্ন বুনছেন এখানকার কৃষকরা।

‘আর নয় শুধু আখ, সাথী ফসলের বাজাই ঢাক’ এবিষয়কে প্রতিপাদ্য করে আখের সাথে সাথীফসলের লাভজনক প্রযুক্তি হাতে নিয়ে কাজ করছে ঈশ্বরদীস্থ বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট। দেশের ১৫টি চিনিকল এলাকায় এই প্রযুক্তি সম্প্রসারণের মাধ্যমে আখের সাথে সাথীফসল হিসেবে ডাল, মসলা ও সবজি জাতীয় ফসল উৎপাদন করা হচ্ছে। ‘সাথী’ পদ্ধতি শুনতে নতুন মনে হলেও ঈশ্বরদীতে আখের সাথে সাথী ফসল চাষাবাদের জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। কম খরচে ভালো উৎপাদন হওয়ায় কৃষকরা এ পদ্ধতির সাথে সম্পৃক্ত হচ্ছেন।

কৃষকের জীবনমান উন্নয়ন ও তাদের সহায়তাকল্পে ঈশ্বরদীস্থ বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট বিগত ২০২১-২২ অর্থবছর থেকে শুরু করেছে এ প্রকল্পের কার্যক্রম। তিন বছর মেয়াদি এই প্রকল্পের নাম ‘আখের সঙ্গে সাথি ফসল হিসেবে ডাল, মসলা ও সবজি জাতীয় ফসল উৎপাদন প্রকল্প।’ এই প্রকল্পের কারণে কৃষকরা এখন আখের সাথে সাথি ফসল চাষে উদ্বুদ্ধ হচ্ছে। পাশাপাশি আখ শিল্পকে নিয়ে আবারও তৈরী হয়েছে নতুন সম্ভাবনা। প্রকল্পটি ইতোমধ্যেই কৃষকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে।

পুরাতন ঈশ্বরদী এলাকার কৃষক হাসেম আলী বলেন, আমি জমিতে আখের সঙ্গে সাথি ফসল মসুর, আলু ও ধনিয়া চাষ করেছি। গত বছরও এই প্রকল্প থেকে সুবিধা পেয়েছি। এবার তার চেয়ে বেশি লাভবান হতে পারব বলে আশা করছি।

মুলাডুলি ইউনিয়নের ফরিদপুর গ্রামের কৃষক আব্দুর রহমান জোয়ারদার বলেন, এ বছর আমি আখের সাথে পেঁয়াজ ও মুগডাল করেছি। সবখরচ প্রকল্প থেকে দেয়া হয়েছে। ফলনও ভালো হয়েছে।

প্রকল্প পরিচালক ড. আবু তাহের সোহেল বলেন, ১৫টি সুগার মিল এলাকায় এ প্রকল্পের কার্যক্রম চলছে। ২০২২-২৩ মৌসুমে প্রায় আট শতাধিক কৃষকের জমিতে প্রদর্শনী প্লট করা হয়। প্লটগুলোতে কৃষকরা যথেষ্ট সন্তুষ্ট।। আগামীতেও এ প্রকল্পের ধারাবাহিকতা রাখার চেষ্টা করা হবে। তিনি আরো বলেন, আখ চাষে দুই সারির মধ্যবর্তী স্থানের ফাঁকা জমি অব্যবহৃত হয়ে পড়ে থাকে। ওই ফাঁকা জমিতে সাথি ফসল হিসেবে ডাল, আলু, মসলা, সবজি চাষ করিয়ে কৃষকদের আর্থিকভাবে লাভবান করানোই হচ্ছে প্রকল্পের মূল লক্ষ্য।

বিএসআরআই এর মহাপরিচালক ড. ওমর আলী বলেন, ‘আখ দীর্ঘমেয়াদি ফসল। কিন্তু কৃষকের সবসময় টাকা দরকার। আমাদের জমিও কম, একই জমি থেকে আমরা বিভিন্ন ফসল পেতে চাই। খরচ বেশি হচ্ছে, তাই খরচও বাঁচাতে চাই। সেজন্য আমরা আখের পাশাপাশি সবজি, মসলা এবং ডাল জাতীয় ফসল চাষে উদ্বুদ্ধ করছি। এতে জমির সুষ্ঠু ব্যবহার এবং আখের ফলন বাড়ছে। জমির সুষ্ঠু ব্যবহার, খরচ কমানো ও ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যেই এ প্রকল্পের মাধ্যমে চাষীকে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।’

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments