শুক্রবার, মে ২৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলাসড়কে মুহূর্তে শেষ পুরো পরিবার

সড়কে মুহূর্তে শেষ পুরো পরিবার

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ফরিদপুর সদরের কানাইপুরে গতকাল মঙ্গলবার সকালে সড়ক দুর্ঘটনায় চার সদস্যের একটি পরিবারের সবাই নিহত হয়েছেন। বাদ এশা পারিবারিক কবরস্থানে তাদের পাশাপাশি দাফন করা হয়।

নিহতরা হলেন–রাকিব হোসেন মিলন (৩৫), তাঁর স্ত্রী শামীমা ইসলাম সুমী (২৩) এবং তাদের দুই ছেলে আলভি রোহান (৭) ও আবু সিনান (৪)।

মিলন ঢাকায় অর্থ মন্ত্রণালয়ে লিফটম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তাঁর বাড়ি ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ইউনিয়নের ছত্রকান্দা গ্রামে। তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে মিলন মেজ। ঈদ ও নববর্ষের ছুটি শেষে মিলন সোমবার ঢাকা গিয়ে অফিস করে বিকেলে বাড়ি ফেরেন। গতকাল সকালে স্ত্রী-সন্তান, মা হুবাইয়া বেগম (৬০), প্রতিবেশী মর্জিনা বেগম, পাশের আলফাডাঙ্গা উপজেলার কয়েকজনসহ পিকআপ ভ্যানে করে ফরিদপুরে যাচ্ছিলেন মিলন। পথে কানাইপুরে মাগুরাগামী ইউনিক পরিবহনের বাসের সঙ্গে পিকআপের সংঘর্ষে তাঁর পরিবারের চারজনসহ মোট ১৪ জন নিহত হন। হুবাইয়া বেগম ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গতকাল দুপুর ১টার দিকে মিলন ও তাঁর এক ছেলের লাশ গ্রামের বাড়িতে আনা হয়।

এ সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বজনরা। মিলনের এক স্বজন বলেন, সোমবার সকাল ৬টার দিকে মিলন পিকআপ ভ্যান নিয়ে ফরিদপুরের উদ্দেশে রওনা হন। পথে কানাইপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় সপরিবারে নিহত হন তিনি। এই পিকআপ ভ্যানের চালক আলফাডাঙ্গার কুসুমদী গ্রামের নজরুল মোল্লাও (৩৫) মারা গেছেন।

বেলা দেড়টার দিকে সুমী ও আরেক সন্তানের লাশ বাড়িতে আনা হয়। এ সময় স্বজনের আহাজারিতে বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। মর্মন্তুদ এ ঘটনায় গোটা গ্রামে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। দুই নাতিসহ চারজনকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ মিলনের বাবা মো. তারা মোল্যা। কাঁদতে কাঁদতে তিনি বলেন, ‘আমি কী অন্যায় করেছিলাম যে, আল্লাহ আমাকে এত বড় শাস্তি দিলেন?’

মিলনের বড় ভাই আলফাডাঙ্গা সরকারি হাইস্কুলের সহকারী শিক্ষক ফরিদ হোসেন ও ছোট ভাই হাবিবুর রহমান কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন। ফরিদ বলেন, ‘আদরের দুই ভাতিজা আর বাড়ি মাতিয়ে রাখবে না, ভাবলে পাজর ভেঙে যাচ্ছে। আমার মা ফরিদপুর মেডিকেলে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন।’ হাবিবুর বলেন, ‘ভাইয়ের খুব ইচ্ছে ছিল দুই ছেলেকে লেখাপড়া শিখিয়ে বড় করবে। সড়কে সব স্বপ্ন শেষ হয়ে গেল।’

আলভি আলফাডাঙ্গা উপজেলা সদরের মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল। আর সিনান এবার গ্রামের তাহেরা রাশেদ লিটল অ্যানজেল স্কুলে প্লেতে ভর্তি হয়েছিল। সদরের মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সাবিনা ইয়াসমিন খুব স্নেহ করতেন আলভিকে। মৃত্যুর খবরে ছুটে এসেছেন। কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘আলভি খুব মেধাবী ছিল। ও আর কোনো দিন স্কুলে আসবে না, ভাবতেই পারছি না।’

তোমরা আমার মাকে এনে দাও
দুর্ঘটনায় মারা গেছেন আলফাডাঙ্গা পৌরসভার হিদাডাঙ্গা গ্রামের শুকুরন বেগম (৯০) ও তাঁর মেয়ে মনিরা বেগম সূর্য (৫৫)। মা ও নানির শোকে পাথর রিমা বেগম (২৫) বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন। জ্ঞান ফিরলেই বলছেন, ‘তোমরা আমার মাকে এনে দাও; নানির কাছে নিয়ে চল।’
এ সময় রিমা বলেন, ‘১১ মাস বয়সে বাবাকে হারিয়েছি। মা আর নানি আমাকে অনেক কষ্ট করে বড় করেছেন। আমার আপন আর কেউ রইল না।’

মা নেই বিশ্বাস করছে না দুই বোন
সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন সদর ইউনিয়নের বেজিডাঙ্গা গ্রামের জাহানারা বেগম (৫০), তাঁর ভাতিজি সোনিয়া বেগম (৩০) ও সোনিয়ার ১১ মাস বয়সী মেয়ে নুরানী।
সোনিয়া সৌদিপ্রবাসী মিল্টন শেখের স্ত্রী। সোনিয়ার ছোট ভাই রাসেল হোসেন বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনায় আমার বড় বোন ও ভাগনি মারা গেছে। বড় ভাগনি মিলি খানম বেজিডাঙ্গা হাইস্কুলের অষ্টম ও মেজ ভাগনি লিনা খানম স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী। মা ও ছোট বোন নেই, তারা এটা বিশ্বাস করতে পারছে না। শোকে দুই বোন পাথর হয়ে গেছে।

কান্না থামছে না সীমা বেগমের
দুর্ঘটনায় নিহত পিকআপ চালক নজরুল মোল্লা আলফাডাঙ্গা পৌরসভার কুসুমদী গ্রামের কৃষক ছিরু মোল্যার ছেলে। তার দুই মেয়ে–নওরীন খানম পঞ্চম ও নুসরাত শিশু শ্রেণিতে পড়ালেখা করে। স্বামীর মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছেন সীমা বেগম, থামছেই না তাঁর কান্না। সীমা বেগম বলেন, ‘ভোরে পিকআপ নিয়ে ফরিদপুরের উদ্দেশে বের হন তিনি। সকালে খবর পেলাম নজরুলসহ অনেকে মারা গেছেন। আমার দুই মেয়ে এতিম হয়ে গেল। আমি এখন কী নিয়ে বাঁচব?’

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments