অবৈধভাবে দেশে ক্যাসিনো মেশিন ও সরঞ্জামাদি আমদানিকারক শার্শার দুই সহোদর সাইফুল ও আশরাফুল

শাহারিয়ার হুসাইন: বেত্রবতী এজেন্সি মাধ্যমে অবৈধভাবে দেশে ক্যাসিনো মেশিন ও সরঞ্জামাদি আমাদানি করে রাতারাতি কোটিপতি বনে গেছেন দুই ভাই সাইফুল ও আশরাফুল। শার্শার সামটার বেত্রবতী ফিলিং স্টেশন ও বেত্রবতী এজেন্সির সত্বাধীকারী সাইফুল ইসলাম ও তার সহোদর ভাই আশরাফুল ইসলাম উপজেলার সামটা গ্রামের মৃত্যু হবিবার রহমানের ছেলে।

জানাগেছে, শার্শার বাগআঁচড়ার সামটার বেত্রবতী ফিলিং স্টেশনের সত্বাধীকারী সাইফুল ইসলাম ও তার সহোদর ভাই আশরাফুল ইসলাম বেত্রবতী এজেন্সি নামের এক প্রতিষ্ঠান খুলে তার মাধ্যমে
অবৈধভাবে দেশে ক্যাসিনো মেশিন ও সরঞ্জামাদি আমাদানি করে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেেন। আর তাদের এহেন কাজে জড়িত ছিল তাদের মামা সাবেক এক কাস্টমস কর্মকর্তা। সম্প্রতি রাজধনী ঢাকা সহ সারাদেশে সরকার ক্যাসিনো বিরোধী অভিযান পরিচালনা করছেন। এই ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানে ক্যাসিনো সরঞ্জামাদি আমদানি কারক অন্যন্য প্রতিষ্ঠানের সাথে উঠে এসেছে বেত্রবতী এজেন্সির নাম।

ফলে ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েন বেত্রবতী ফিলিং স্টেশনের মালিক সাইফুল ইসলামের ভাই আশরাফুল ইসলাম। বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল। মাত্র অল্প সময়ে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়ার বিষয়টি জনসম্মুখে উঠে আসেলে বিষয়টি চারিদিকে দুরুত্ব ছড়িয়ে পড়ে। সূত্র জানায়, সাইফুল ও আশরাফুল দুই সহোদর ভাই অবৈধ ভাবে ক্যাসিনো সরঞ্জামাদি আমদানি করে প্রচুর অর্থ সম্পদের মালিক হয়ে তৈরি করেছেন আলিসান বাড়ি। তাদের এখন স্বনামে বেনামে রয়েছে অঢেল জমি জায়গা। দেশের বিভিন্ন ব্যাংকে জমা আছে কয়েক কোটি টাকা। অথচ এক সময় নুন আনতে তাদের পানতা ফুরাতো। ভাঙ্গা চুরা ঘরে বসবাস করতেন।

এ বিষয়ে বেত্রাবতী ফিলিং স্টেশন ও এজেন্সি মালিক সাইফুল ও তার ভাই আশরাফুলের মুঠো ফোনে বার বার যোগাযোগ করে কথা বলার চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি। এব্যাপারে এলাকার সচেতন মহল তাদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এনবিআর, দুদক সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।