বাকৃবিতে কৃষি প্রকৌশল অনুষদের বিক্ষোভ মিছিল, কৃষিমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ আগামীকাল

রাফী উল্লাহ,বাকৃবি: বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) কৃষি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলন এখনও অব্যাহত। চার দফা দাবিতে ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন করেছেন অনুষদের ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী। গত ৯ সেপ্টেম্বর থেকে তারা এ আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। এর ধারাবাহিকতায় বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তারা বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। বিক্ষোভ মিছিলটি অনুষদ থেকে শুরু করে ক্যাম্পাসের বেশ কিছু সড়ক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশের আয়োজন করে। ইমরান সিদ্দিকী পান্তর সঞ্চালনায় অনুষদের ২ নং গ্যালারীতে অনুষ্ঠিত সে সমাবেশে বক্তব্য দেন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নূরুল হক, সহযোগি ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. আজহারুল ইসলাম। আন্দোলতরত শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন, অতীশ বড়–য়া, কৌশিক আহমেদ ও মাশহুর। সমাবেশে তারা জানান, বাকৃবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসানের নেতৃত্বে ছাত্র-শিক্ষক সমন্বয়ে ১৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক এমপির সাথে সাক্ষাৎ করবেন। সেখানে তারা তাঁকে  স্মারকলিপি প্রদান করবেন। ওই প্রতিনিধি দলে কৃষি শক্তি ও যন্ত্র বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মঞ্জুরুল আলম, অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নূরুল হক, সহযোগি ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. আজহারুল ইসলাম, বোটানিক্যাল গার্ডেনের কিউরেটার অধ্যাপক ড. এ কে এম জাকির হোসেনেরও থাকার কথা রয়েছে। প্রতিনিধি দলের সাথে কথা বলে জানা যায়, বিসিএসের মাধ্যমে টেকনিক্যাল ক্যাডারে কৃষি প্রকৌশলীদের নিয়োগ দিতে প্রতিটি উপজেলায় নতুন পদ সৃষ্টি, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কৃষি প্রকৌশলীদের জন্য আলাদা উইং চালু, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনে (বিএডিসি) কৃষি প্রকৌশলীদের নিজস্ব পদ নিরূপন করা, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের অধীনে কৃষি বিষয়ে সরকারি স্কুল-কলেজের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে কৃষির পাশাপাশি কৃষি প্রকৌশলীদেরও সুযোগ প্রদানের বিষয়ে তারা কৃষিমন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন। এদিকে আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) থেকে ক্লাসে ফেরারও ঘোষণা দেন আন্দোলনের নেতারা। তারা জানান, উপাচার্যের আশ^াসে আমরা ১৭ দিন পরে ক্লাসে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যদি দ্রুতই দাবি আদায়ে আশানুরূপ অগ্রগতি না হয়, তবে আমরা ফের আন্দোলন যাবো। তখন সেটি হবে আরো কঠোর। তখন প্রতিটি রুমে তালা দিয়ে অনুষদ বন্ধ ঘোষণা দেওয়ারও জোর হুশিয়ারি দেন নেতারা।