রাফী উল্লাহ,বাকৃবি: বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) স্বাধীনতা দিবসের র‌্যালিতে ছাত্রী লাঞ্ছনার ঘটনায় বিচারের দাবি ও সেই সাথে ক্ষমা না চেয়ে ভুক্তভোগীদের দোষারোপ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে এক সংবাদ সম্মেলন করেন আন্দোলনকারী ছাত্রী নেতৃবৃন্দরা। সেই সাথে আন্দোলনে ছাত্রীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিয়েছে এবং এ আন্দোলনে কেউ কোনো ধরনের ইন্ধন যোগায়নি বলে দাবি করেন তারা।

সোমবার দুপুর ২ টার দিকে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে সংবাদ সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভুক্তভোগী ছাত্রীদের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বেগম রোকেয়া হল ইউনিট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানজিনা শিকদার প্রিয়া।

লিখিত বক্তব্যে তানজিনা শিকদার প্রিয়া বলেন, আমরা গত ২৬ শে মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে মরণ সাগর পাড়ে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে যাওয়ার সময় আনুমানিক সকাল ৮ টার সময় টিএসসির সামনে তায়েফ রিয়াদের নেতৃত্বে কতিপয় মানুষ আমাদের বাধা প্রদান করে এবং এক পর্যায়ে কয়েকজন আমাদের লাঞ্ছিত করে ধাক্কাধাক্কি করে। এসময় মিছিলের ভিতরে ঢুকে অকথ্য ভাষায় তারা গালিগালাজ করে ও হুমকি প্রদান করে। ওইসময় তায়েফ রিয়াদ বলেন, ‘কমিটি হলে সার্টিফিকেট কিভাবে হয় তোদের কোন বাপ আছে আমি দেখবো’।

তিনি আরও বলেন, ‘পরবর্তীতে আমরা শিক্ষার্থীরা মাননীয় ভিসি মহোদয়ের বাসভবনের সামনের রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করি । আশা করেছিলাম ন্যায়বিচার পাবো। অন্তত তারা আমাদের কাছে ক্ষমা চাইবে। কিন্তু উল্টো সংবাদ সম্মেলন করে আমাদেরই চরিত্র হননের চেষ্টা করা হয়েছে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নারী নির্যাতনের পর ভিকটিমের চরিত্র হনন করাই দুষ্কৃতিকারীদের প্রধান হাতিয়ার। আজ বিচার পাওয়ার বদলে আমরা ভিকটিম ব্লেমিংয়ের শিকার হয়েছি। আমরা এর ন্যায় বিচার আশা করছি।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের বেগম রোকেয়া হল ইউনিটের সহ-সভাপতি তানজিলা মোবাশ্বেরা স্বর্ণালী, সাংগঠনিক সম্পাদক অনামিকা দত্ত, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আইরিন আক্তার, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের সাংগঠনিক সম্পাদক এ.জেড.এম বর্ণী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলের সভাপতি সুমন দে, শাখা ছাত্রলীগের সাবেক উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক অভিনয় সাহা সৌম, আশরাফুল হক হল ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আসাদুজ্জামান, ঈশা খাঁ হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাক্কারুল ইসলামসহ আরও অনেকে।

সংবাদ সম্মেলনের আগে দুপুর ২টার দিকে ওই ঘটনার প্রতিবাদে সাধারণ ছাত্রীদের ব্যানারে একটি কালো পতাকা মিছিল বের করে। মিছিলটি বেগম রোকেয়া হলের সামনে থেকে বের হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি চত্বরের সামনে এসে শেষ হয়। এরপর সেখানে তায়েফুর রিয়াদের একটি কুশপুত্তলিকা পোড়ানো হয়। এ বিষয়ে অভিযুক্ত খন্দকার তায়েফুর রহমান রিয়াদ বলেন, ‘আমাকে অভিযুক্ত করে ঘটনাটি সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রনোদিত অপরাজনীতি ও সাজানো নাটক। বিশ্ববিদ্যালয়ে সিসি টিভি ক্যামেরা আছে। যদি আমি এরকম কিছু করে থাকি, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সিটি টিভি ফুটেজ দেখবেন। সুষ্ঠু তদন্তে যদি আমি দোষী সাব্যস্ত হয়ে থাকি তবে আমি যেকোনো শাস্তি মাথা পেতে নেব। তবে ঘটনাটি মিথ্যা হলে যারা আমার নামে অভিযোগ করেছেন তাদের বিচার দাবি করছি। এ ঘটনার পিছনে ইমতিয়াজ আবির, আবু রায়হান মিথুন ও সজিব চন্দ্র সরকারের প্রত্যক্ষ মদদ আছে এবং তাদের ইন্ধনেই ছাত্রীরা এসব করার সাহস পাচ্ছে।’ এর আগে গতকাল (রবিবার) ২৬মার্চের ঘটনার প্রেক্ষিতে অভিযুক্তরা আরেকটি সংবাদ সম্মেলন করেন এবং সেখানে ছাত্রী লাঞ্ছনার ঘটনাটিকে সাজানো নাটক বলে অভিহিত করেন।

Previous articleটাঙ্গাইলে গাড়ি চালকদের পেশাগত দক্ষতা ও সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ
Next articleব্লগার অনন্ত বিজয় দাশ হত্যা মামলা: ৪ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ও একজনকে খালাস
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।