কাগজ ডেস্ক : পাকিস্তান ভারতের সীমান্তবর্তী তিনটি এলাকায় ভারি মর্টার শেল ও গুলিবর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ করেছে ভারত। খবর হিন্দুস্তান টাইমস। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে পাকিস্তান ওই অঞ্চলের সঙ্গে যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে সীমান্তরেখার তিনটি এলাকায় হামলা চালায়। ওই তিনটি এলাকা হলো, পাকিস্তানি এলাকার আখনুর, নওসেরা ও জম্মু ও কাশ্মীরের কৃষ্ণঘাতী এলাকা।

ভারতের প্রতিরক্ষা মুখপাত্র লে. কর্নেল দেবেন্দ্রার আনাদ বলেন, পাকিস্তান মঙ্গলবার আখনুর, নওশেরা ও কৃষ্ণঘাতী এলকায় যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে। তিনি বলেন, সাড়ে ৫টার দিকে ভারি মর্টার শেল হামলা করে। এ ছাড়া ছোট অস্ত্র দিয়ে গুলি ছোড়ে।

তিনি বলেন, ভারতীয় সেনাবাহিনী শক্তভাবে এর প্রতিশোধ নেবে। তিনটি এলাকা হলো জম্মু-কাশ্মীরের জম্মু, রাজোরী, পঞ্চ এলাকা। সেনাবাহিনী জানায়, পাকিস্তানি সেনারা পুলওয়ামা জেলার আখনুর, রাজৈরী জেলার নওশেরা এবং পঞ্জ জেলার বালাকোট এলাকায় উন্মুক্ত গুলিবর্ষণ করে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, পাকিস্তানি সেনারা ১২০ মিলিমিটারের মর্টার দিয়ে হামলা করে। এতে বলা হয় পাকিস্তানি সেনারা নওশেরা ও বালাকোট বেসামরিক এলাকায় হামলা করে।

এর আগে মঙ্গলবার ভারতীয় বিমানবাহিনী পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখাওয়া এলাকায় বালাকোটের নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর বোমা হামলা করেছে। এতে ২০০-৩০০ সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে বলে দেশটির সংবাদমাধ্যমে বলা হয়। তবে এ হামলায় কোনো হতাহত হয়নি বলে জানিয়েছেন পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী গণসংযোগ অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর।

এদিকে ইমরান খানের নেতৃত্বে দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা কমিটির জরুরি বৈঠকের পর এক বিবৃতিতে বলা হয়, ভারত যে স্থানে হামলা করার দাবি জানিয়েছে, সেখানে সরেজমিনে পরিদর্শনের জন্য বিশ্বের জন্য স্থানটি খোলা রাখা হয়েছে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ভারতীয় সরকার আরেকবার তাদের আত্মস্বার্থে বেপরোয়া কাল্পনিক দাবির আশ্রয় নিয়েছে। ‘ঘরোয়া এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে ঘটনাস্থলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ভারত অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে যে আগ্রাসন চালিয়েছে, সময় ও স্থান অনুসারে পাকিস্তান তার জবাব দেবে।’ বৈঠকে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা, অর্থমন্ত্রী ও সেনাপ্রধান উপস্থিত ছিলেন।

কাশ্মীর সীমান্তের নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর মুজাফফরাবাদ সেক্টরে ভারতীয় বিমান অনুপ্রবেশ করেছিল বলে স্বীকার করেছেন। পাক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর মঙ্গলবার টুইটারে তিনি লিখেছেন- ভারতীয় বিমান নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর সীমান্ত লঙ্ঘন করলেও পাকিস্তানি বিমানের তাড়া খেয়ে পালিয়ে গেছে।

পরবর্তী সময় তিনি বলেন, পাক বিমানবাহিনী যথাসময়ে ও কার্যকরভাবে সাড়া দিয়েছে। তাড়া খেয়ে পালানোর আগে বালাকোটের কাছে বোমা ফেলে গেছে। তবে এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

পরবর্তী সময় আসিফ গফুর বলেন, জম্মু ও কাশ্মীরের মুজাফফরাবাদ সেক্টরের ভেতর তিন থেকে চার মাইলের ভেতর ভারতীয় বিমান ঢুকে পড়েছিল। তবে টুইটারে পাকিস্তানের ক্ষমতাসীন দল পিটিআই বলেছে, আমরা বুঝতে পারছি- এটি ভারতীয় নির্বাচনের বছর। কাজেই সীমান্তে তারা বেশ বেপরোয়াই থাকবে। তবে ঘটনা হচ্ছে, পাকিস্তানি টহল বিমান তাদের তাড়িয়ে দিয়েছে।

এর আগে ভারতীয় কৃষিমন্ত্রী গাজেন্দ্র সিং শেখওয়াত বলেন, নিয়ন্ত্রণরেখা পার হয়ে সন্ত্রাসীদের ক্যাম্পে মঙ্গলবার সকালে বিমান হামলা চালিয়েছে ভারতের বিমানবাহিনী। হামলায় সন্ত্রাসীদের ওই ক্যাম্প পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে।

মুজাফফরাবাদ এলাকাটি পাকিস্তাননিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের অংশ ও বালাকোট শহরটি কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণরেখা থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশে।

এর আগে ২০১৬ সালে নিয়ন্ত্রণরেখার অপর পাশে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সাতটি শিবিরে সার্জিক্যাল হামলা চালানোর দাবি করেছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী। ওই বছরের প্রথম দিকে জম্মু ও কাশ্মীরের উরি সেনাঘাঁটিতে হামলার প্রতিশোধ হিসেবে ওই অভিযান চালানো হয় বলে দাবি করেছিল ভারত।

প্রসঙ্গত, ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী বোমা হামলায় দেশটির আধাসামরিক বাহিনীর ৪৯ জন সদস্য নিহত হয়। এ নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।