কাগজ ডেস্ক: ইন্দোনেশিয়ায় একটি স্বর্ণের খনি ধসে পড়ার ঘটনায় এখনও প্রায় শতাধিক মানুষ আটকা পড়েছেন বা মারা গেছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত ১৯ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। অপরদিকে নয়জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

উদ্ধারকারী দল জানিয়েছে, সুলায়েশি দ্বীপে অবস্থিত ওই স্বর্ণের খনিটির লাইসেন্স নেই। অবৈধভাবে এই খনির কার্যক্রম চালানো হচ্ছিল। গত মঙ্গলবার খনিটি ধসে পড়ে। তারপর থেকেই তল্লাশি ও উদ্ধার অভিযান চালানো হচ্ছে। তবে কাদামাটি, খাড়া ভূমি এবং সরু ও বিপজ্জনক পথের কারণে উদ্ধার অভিযান ব্যহত হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে।

উদ্ধার ও তল্লাশি অভিযান আরও এক সপ্তাহ ধরে চলবে বলে উল্লেখ করেছে কর্তৃপক্ষ। তবে খনির ভেতরে কেউ বেঁচে থাকলে তাদের খাবার এবং পানি কিভাবে সরবরাহ করা হবে সে বিষয়ে কোন মন্তব্য করা হয়নি।

জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থার মুখপাত্র সুতোপো পুরও নুগরোহো জানিয়েছেন, দুর্ঘটনার সময় খনিটিতে কতজন ছিলেন তা এখনও জানা যায়নি।

দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে যাওয়ারা একেকজন একেক ধরনের তথ্য দিচ্ছেন। কেউ বলছে ভেতরে আটকা পড়েছে ৩০ জন, কেউ বলছে ৫০ বা ৬০ জন, আবার কেউ বলছে প্রায় ১শ জনের মতো।

এর আগে গত বছরের ডিসেম্বরে উত্তরাঞ্চলীয় সুলায়েশির বোলাং মোংগোনদাও এলাকায় একই রকম একটি স্বর্ণের খনিতে দুর্ঘটনায় পাঁচ শ্রমিকের মৃত্যু হয়। খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ ইন্দোনেশিয়ার বিভিন্ন স্থানে বহু অননুমোদিত খনি রয়েছে। প্রায়ই এসব খনিতে দুর্ঘটনায় শ্রমিকরা প্রাণ হারাচ্ছেন।