বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা আনিস ও তার স্ত্রী সম্পদ জব্দ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা কাজী আনিসুর রহমান ও তার স্ত্রী সুমি রহমানের শতকোটি টাকার সম্পদ জব্দ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

গত বছর ২৯ অক্টোবর আনিস-সুমি দম্পতির বিরুদ্ধে প্রায় সাড়ে ১৪ কোটি টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ থাকার অভিযোগ এনে আলাদা দুটি মামলা করে দুদক। ওই মামলাগুলোর তদন্তে নেমে দেশে-বিদেশে আনিস, সুমি দম্পতির বিপুল সম্পদের সন্ধান পাওয়া গেছে। শিগগির তাদের মামলার অভিযোগপত্র কমিশনে উপস্থাপন করা হবে।

এ ছাড়া তাদের বিরুদ্ধে আরও একাধিক মামলা হতে পারে বলেও জানিয়েছেন দুদক কর্মকর্তারা। কাজী আনিস ও তার স্ত্রী সুমি রহমান বর্তমানে বিদেশে পলাতক। ভারত, সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়াতে তাদের নামে বাড়িগাড়ি থাকার তথ্য রয়েছে দুদকের কাছে।

তদন্তকারী কর্মকর্তারা এমএলএআর পাঠিয়ে এ ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করছেন। কাজী আনিসের বিষয়ে তদন্তকালে তথ্য পেতে ৭৬টি দফতরে চিঠি দিয়েছে দুদক। ক্যাসিনো ব্যবসা ও চাঁদাবাজিসহ নানা উপায়ে শতকোটি টাকা উপার্জন করার অভিযোগ রয়েছে আনিসের বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, কাজী আনিস কেন্দ্রীয় যুবলীগের কার্যালয়ে পিয়ন হিসেবে যোগ দেন ২০০৫ সালে। বেতন ছিল মাসে পাঁচ হাজার টাকা। সাত বছর পর হয়ে যান কেন্দ্রীয় যুবলীগের দফতর সম্পাদক। যুবলীগের সবশেষ কমিটিতে তাকে গুরুত্বপূর্ণ এ পদ দেন সংগঠনটির শীর্ষ নেতৃত্ব। ক্যাসিনো ব্যবসা, চাঁদাবাজি, দরপত্র থেকে কমিশন ও যুবলীগের বিভিন্ন কমিটিতে পদবাণিজ্য করেই অঢেল সম্পদের পাহাড় গড়ে তোলেন কাজী আনিস।

Previous articleঢাবির ভর্তি পরীক্ষা বিভাগীয় শহরে, পরিবর্তন নম্বর বণ্টনেও
Next articleক্ষমতায় যেতে ওত পেতে থাকা বিএনপির জন্মগত অভ্যাস: কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।