সদরঘাটে যাত্রী হয়রানি চরমে

কাগজ প্রতিবেদক: রাজধানীর সদরঘাটে পানি পথে দক্ষিণাঞ্চলগামী ছাড়াও ৪১টি রুটে ঈদে ঘরমুখী যাত্রীরা। এসব যাত্রী চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন। নির্দিষ্ট কাউন্টার থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে না বলা, হলুদ পোশাক পরিহিত কুলির উৎপাত ও রাস্তা এবং ফুটপাাতে হকারমুক্ত না করায় এ হয়রানির শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা।
সরেজমিন, সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে ঈদমুখী যাত্রীদের চাপ বাড়ছে। আর শিকার হচ্ছেন ঘরমুখো মানুষ। ফুটপাত ও রাস্তা দখল করে বিভিন্ন ধরনের মওসুমি ফল বিক্রি ছাড়াও নানা প্রসাধনী বিক্রি করছে হকাররা। এসব হকার থেকে চাঁদা নিচ্ছে ফাঁড়ি পুলিশ, নৌ পুলিশ ও আনসার সদস্য ছাড়াও কিছু রাজনৈতিক নেতা।
সদরঘাট এক নম্বর টার্মিনাল ভবনের আশপাশের রাস্তা ও ফুটপাথ দখল করে নানা প্রসাধনী বিক্রি করছে। এ ছাড়া মওসুমি ফল বিক্রি করছে হকাররা । এতে যানজট লেগে আছে। একাধিক হকার জানান, পেটের দায়ে ঈদ সামনে রেখে এসব ফল ও নানান পোশাক বিক্রি করছেন তারা। তবে আনসার, পুলিশ ও রাজনৈতিক নেতাদের ১০০ থেকে ৩০০ টাকা দিতে হচ্ছে।
নতুন টার্মিনাল ভবনের সামনে থেকে পটুয়াখালী ঘাট পর্যন্ত হকারের উৎপাত ও হলুদ পোশাক পরা কুলির বেপরোয়া আচরণ। নতুন টার্মিনালের সামনে ঠিক সোয়া ৪টায় এক যাত্রী সিএনজি থেকে নামেন। ওমনি চারদিক ঘিরে ধরে হলুদ কুলি। তবে অসহায়ের মতো দাঁড়িয়ে আছে সরকার নিয়োগকৃত পোর্টার। তাদের মালামাল ধরতে দিচ্ছে না উড়ে এসে জোরে বসা হলুদ কুলি। বিআইডব্লিউটিএর পোর্টাররা জানান, ঈদে তারা ছাড়া অন্য কুলি যাত্রীদের মালামাল টানতে নিষেধ থাকা সত্ত্বেও তা মানছে না হলুদ পোশাক পরা কুলি সিন্ডিকেট।
এ দিকে নতুন টার্মিনালের মসজিদ সংলগ্ন গেট থেকে পটুয়াখালী ঘাট পর্যন্ত ফুটপাথ তো দূরের কথা রাস্তা দখল করে ঝুড়িতে করে জুতা, লুঙ্গি, শার্ট , বিছানার চাঁদর ও চোরাই মোবাইল বিক্রি করছে হকাররা। আর যাত্রীরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন। ওই স্পটের হকার দোকানপ্রতি ৩০০ টাকা চাঁদা নিচ্ছে লাইনম্যান নুরু। তিন শতাধিক দোকান থেকে চাঁদা তোলা হচ্ছে। আর চোরাই মোবাইল দোকানপ্রতি ৫ ০০ টাকা নেয় নুরু।
মনির নামে পটুয়াখালীর এক যাত্রী জানান, অপ্পো কোম্পানির একটি মোবাইল দেখলে, দোকানি দাম চায় ৫ হাজার টাকা । তিনি এক হাজার টাকা বললে দুইজন এসে কিলঘুষি দিতে থাকে। সঙ্গে থাকা মোবাইলটি নিয়ে যায় তারা। পরে বয়স্ক এক লোকের মাধ্যমে মোবাইলটি ফিরে পেলেও সম্মান তো আর পাবো না বলে চোখের জল মুছেন তিনি।
অন্যদিকে পটুয়াখালীর যাত্রী শাওন, তফিক, নাসিমা, শায়েলাসহ একাধিক যাত্রী জানান, নতুন টার্মিনালের কাউন্টার থেকে টিকিট কেনা হয়। অথচ লঞ্চ ওই পন্টুনে নেই। লঞ্চ স্টাফরা জানায়, টার্মিনাল থেকে বের হয়ে পশ্চিম দিকে ওয়াইজঘাটে পটুয়াখালীর লঞ্চ। পরে পুনরায় ঘাট টিকিট কিনতে হলো। তাছাড়া টার্মিনালে ঢুকতে ও বের হতে চরম হয়রানি হতে হয়েছে।
এ দিকে নৌ ৪১টি রুটে লঞ্চ চলাচল করবে। আজ প্রায় ১০০ লঞ্চ ছেড়ে যাবে। বিভিন্ন লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী দেখা গেছে। লঞ্চের ছাদেও ছিল না কোনো জায়গা। তার মধ্যে আমতলী রুটে প্রিন্স অব হাসান হোসেন ১, বরিশাল কাউখালি রুটে রেডসান ৫ ও ধুলিয়া ১ নামক লঞ্চগুলো ছাড়াও আরো বেশ কয়েকটি লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী দেখা গেছে। বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমোডর মাহাবুব উল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, ঈদে নির্বিঘ্নে যাত্রীরা ঘরে ফিরবে। তাতে কোনো ধরনের হয়রানির শিকার হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তিনি বলেন, যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে ডিএমপি পুলিশ, নৌ পুলিশ, কোস্টগার্ড, আনসার সদস্য ছাড়াও ঢাকা ডিসি অফিস তদারকি করছে। কোনো ধরনের অনিয়ম দেখলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।