বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান বলেছেন, আমি রাজনীতি করি ইবাদত হিসেবে, মানুষকে ভালোবেসে।

তিনি বলেন, ১৬ জুন বোমা হামলায় আমার বিশজন লোক মারা গেছে। আমার চন্দন শীলের পা নেই তিনি এখনো ইনসুরেন্স কোম্পানিতে কাজ করে খান। কোনো ধান্দাবাজি করেন না। এতেই আমার গর্ব লাগে। আমি রক্তের মধ্যে শুয়েও বলি শেখ হাসিনাকে বাঁচান।

তিনি বলেন, মুখোশের অন্তরালে লুকিয়ে থাকারা মুখোশ খুললে আতঙ্কিত হই। নীতি এবং আদর্শ সত্য কথা। কিন্তু আমরা দেখেছি বঙ্গবন্ধু যেদিন দেশে ফিরে এসেছিলেন তখন মোশতাক কী সুন্দর কান্না করছিলেন। তিনি বঙ্গবন্ধুকে বলেছিলেন, তাজউদ্দীন চান নাই আপনি দেশে ফেরেন। আমার বাবাকে (একে এম শামসুজ্জোহা) মোশতাকের সাথে যোগ দেয়ার প্রস্তাব দিলে তিনি বলেছিলেন আমাকেও হত্যা করো। আমরা মরেও প্রমাণ করতে চাই আমরা শেখ মুজিবের লোক ছিলাম।

বুধবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ জেলা টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের অভিষেক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে একথা বলেন তিনি।

নগরীর পুরাতন কোর্ট এলাকায় অবস্থিত পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য কাশেম হুমায়ুন, বিএফইউজে’র সভাপতি ওমর ফারুক, বিকেএমইএ’র সাবেক পরিচালক মাসুদুজ্জামান প্রমুখ।

সংগঠনের সভাপতি হলেন আনিসুর রহমান জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী সৈকত।

Previous articleসরকারি মাদরাসা-ই-আলিয়া ধ্বংসের ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে: জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়া
Next articleবিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া ভোট খুব ভালো হয়েছে: ইসি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।