মো. মুখলেসুর রাহমান: সরকারি মাদরাসা-ই-আলিয়া ঢাকা শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট নিরসন ও আল্লামা কাশগরী রহ. হলের পাশে অবস্থিত প্রধান হল সুপার এবং সহকারী হল সুপারের বাসভবন ভেঙ্গে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর নির্মাণ করার প্রতিবাদে আন্দোলনরত সাধারণ ছাত্রদের সাথে একত্মতা প্রকাশ করে বাংলাদেশ জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ জহিরুল ইসলাম ও প্রধান সম্পাদক মুহাম্মদ আহসান হাবীব দিদার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে এক যুক্ত বিবৃতি প্রদান করেন।

নেতৃদ্বয় বলেন, ‘মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর’ বাংলাদেশ জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়ার দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবী; কিন্তু সরকারি মাদরাসা-ই-আলিয়া ঢাকার স্বকীয়তা ও ঐতিহ্যকে জলাঞ্জলি দিয়ে নয়। সরকার চাইলে অন্য যে কোনো নতুন জায়গায় অধিদপ্তর স্থাপন করতে পারে; সরকারি জয়গার কোনো অভাব নেই। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় ও দায়িত্বশীলদের সদিচ্ছাই যথেষ্ট।

নেতৃদ্বয় আরও বলেন, যেখানে সরকারি মাদরাসা-ই-আলিয়া ঢাকার শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট চরম পর্যায়ে, সেখানে আবাসিক হলের সীমানা-প্রাচীরের মধ্যে হল নির্মাণ না করে অন্য একটা অধিদপ্তর নির্মাণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে চূড়ান্ত পর্যায়ের ধৃষ্টতা এবং অযুক্তিক। এ ক্ষেত্রে মাদরাসার ছাত্রদের দাবী যুক্তিক ও ন্যায় সঙ্গত। তাছাড়া সরকারি মাদরাসা-ই-আলিয়া ঢাকা’র ১০,০০০ শিক্ষার্থীদের মধ্যে শুধু মাত্র ৩৫০ জন শিক্ষার্থীদের আবাসন ব্যবস্থা রয়েছে। শতভাগ ছাত্রের আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করণ এবং মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর অন্যত্র স্থাপন করতে জোর দাবী জানান। নেতৃদ্বয়, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের যাতে আন্দোলনে আর নামতে না হয় সে জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও সরকারকে অতিসত্বর তাদের ন্যায্য দাবী মেনে নিয়ে অন্যত্র মাদরাসা শিক্ষা উন্নয়নের জন্য ‘মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর’ স্থাপনের আহ্বান জানান।

Previous articleদৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় তীব্র যানজট
Next articleআমি রাজনীতি করি ইবাদত হিসেবে: শামীম ওসমান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।