জয়নাল আবেদীন: বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ বলেছেন আগামী ১১ নভেম্বরের পর সারা দেশের রাজপথ যুবলীগের দখলে থাকবে । ওইদিন যুবলীগ সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করবে এবং ওই দিনের পর সারা দেশের রাজপথ যুবলীগের দখলে থাকবে। তখন দেখা যাবে কত ধানে কত চাল।

শনিবার দুপুরে রংপুর জিলা স্কুল মাঠে জেলা আওয়ামী যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন শেষে প্র্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।তিনি বলেন বিএনপি এখন মিছিল সমাবেশ করছে। আমরা বলছি এখন যত মিছিল সমাবেশ করার ইচ্ছে করে নেন। পরশ বলেন ৫ বছর বয়সে বাবাকে হারিয়ে আমি ২১ বছর বিচার চাওয়ার অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছি। তাদের শাসনামলে আমার অধিকার কই ছিল? আমি মনে করি বিএনপি ভন্ডদের দল, প্রতারকদের দল। এই দল এখন সভা সমাবেশের নামে দেশড়–ড়ে মিথ্যাচার করছে। মানুষকে মিথ্যা কথা বলে ধোকা দেওয়ার চেষ্টা করছে। সমাবেশে গিয়ে তাদের নেতারা নাকে কান্না করছে। মানুষের ভন্ডামির সীমা আছে কিন্তু বিএনপির কোনো সীমা নেই।

যুবলীগের চেয়ারম্যান বলেন বিএনপি আমলে আওয়ামী লীগের মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ ছিল নিত্যদিনের ব্যাপার। যারা ২১ আগস্ট সন্ত্রাসবিরোধী শান্তি সমাবেশে গ্রেনেড হামলা করে ২৫ জন নেতা-কর্মীকে হত্যা করে, তারা সমাবেশ করার অধিকার কোন মুখে চায়?

তিনি বলেন, ‘৩ নভেম্বর জেলখানার ভেতরে বিনা বিচারে মোশতাক-জিয়া হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে ইনডেমনিটির মতো কালো আইন সৃষ্টি করে, তারা আজ মানবাধিকার লঙ্ঘনের বক্তৃতা দেয়। তাদের কোনো লজ্জা শরম নেই। জেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক মামুনুর রশীদের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান বক্তা যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, বিএনপির সমাবেশ হলে আওয়ামী লীগ পরিবহন ধর্মঘট দেয়না। এই ধর্মঘট দেন পরিবহন শ্রমিকরা। কারণ পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা জানে বিএনপি অতীতে আন্দোলন সমাবেশের নামে জ্বালাও পোড়াও করেছে, ভাঙচুর করেছে। পেট্রল বোমা নিক্ষেপ করেছে, জীবন্ত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। এ কারণে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা বিএনপির হামলা ভাঙচুরের ভয়ে পরিবহন ধর্মঘট দেন। তারা ভয়ে গাড়ি বের করেন না। বিএনপির ভয়ে মানুষ ঘর থেকে বের হতে চায় না।

তিনি আরও বলেন, বিএনপি জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকতা করছে। বিএনপি চাঁদাবাজদের দল। এই দলের শীর্ষ নেতা থেকে তৃণমূলের নেতা পর্যন্ত চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িত। এখন চাঁদাবাজ দলের সঙ্গে জাতীয় পার্টির কিছু নেতা সুর মিলাচ্ছেন। অথচ বিএনপির শাসনামলে জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে সবচেয়ে বেশি নির্যাতন করা হয়েছে। মিথ্যা মামলা দিয়ে এরশাদকে কারাগারে রাখা হয়েছিল। জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা সেই ইতিহাস ভুলে গেছেন। অথচ বর্তমান সরকার এবং আওয়ামী লীগ এরশাদের দল জাতীয় পার্টিকে ভালো রেখেছে।এদিকে দীর্ঘ ২৭ বছরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে রংপুর জেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন।

রংপুর জিলা স্কুল মাঠে সকাল থেকেই যুবলীগের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের উপচেপড়া ভিড়ে জমজমাট পুরো মাঠ । বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করা হয়। সম্মেলনে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য প্রদান করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য শ্রী রমেশ চন্দ্র সেন এমপি, শাজাহান খান এমপি, বাণিজ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা টিপু মুন্সি, সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন শফিক সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। এদিকে রংপুর জেলা যুবলীগের কাউন্সিল অধিবেশন শুরু হয়েছে বিকেল ৫টায় রংপুর শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে। সন্ধ্যা ৬টায় এরিপোর্ট পাঠানো পর্যন্ত কে সভাপতি কে সম্পাদক কিম্বা অন্যান্য কে কোন পদে আসিন হচ্ছেন তা জানা যায়নি ।

Previous articleরাজশাহীতে ধর্ষণ মামলা তুলে নিতে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষকের হুমকি
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ৫৩ বিজিবি’র অভিযানে ৫০০ গ্রাম ভারতীয় হেরোইন জব্দ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।