সদরুল আইন:’ভালবাসার মূল্য ভালবাসা দিয়েই প্রতিদান দিতে চাই’ লক্ষাধিক লোকের শেষ জনসভায় আবেগ-আপ্লূত কন্ঠে কথাগুলো বলেছেন জনপ্রিয়তার শিখর স্পর্শ করে থাকা গাজীপুরের রাখাল রাজা ইকবাল হোসেন সবুজ।

শ্রীপুর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের বিশাল ক্যানভাস জুড়ে দৃষ্টনন্দন ফুলেল প্যান্ডেল স্মরণকালের স্মৃতিময় ইতিহাস হয়ে আবেশ ছড়াবে বহুকাল। এত জনসমাগম, বাঁধভাঙ্গা মানুষের উত্তাল উপস্থিতি স্বাধীনতা পরবর্তিকালে এই এলাকার মানুষ অতীতে আর কখনো প্রত্যক্ষ করেনি।

থানা আ’লীগের সভাপতি শামসুল আলম প্রধানের সভাপতিত্বে আ’লীগেরর কেন্দ্রিয় ও স্থানীয় পর্যায়ের অসংখ্য নেতা দুপুর থেকেই সরগরম করে রাখেন সভাস্থল। বিকেল ৪ টার কিছু পরে মা বোন, স্ত্রী ভাই এবং দুই কন্যাসহ সভামঞ্চে এসে উপস্থিত হন উঠান বৈঠকের অনন্য রুপকার ইকবাল হোসেন সবুজ।

উপস্থিত লক্ষাধিক জনতা এসময় প্রিয় নেতাকে দাড়িয়ে করতালির মাধ্যমে ফুলেল বৃষ্টিতে বরণ করে নেন।সবুজ তার বক্তৃতায় চাঁদাবাজ ও ভূমিদস্যূ মুক্ত মানবিক উপশহর গড়ার প্রতিশ্রুতি দেন। তিনি বলেন মিথ্যা মামলায় একদিন আমাকে জড়ানো হয়েছিল। আমি যদি নির্বাচিত হই তবে তা নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে বিচার করা হবে। এই আসনে কোন রাজনৈতিক হয়রানি হবে না। দল মত নির্বিশেষে সবায় হবে একটি পরিবার।সেই পরিবারে আমার অবুঝ দুই কন্যাও সদস্য হবে।

তিনি বলেন আমি এদেশের সবচেয়ে নির্যাতিত ব্যক্তি।নির্যাতিত হওয়ার ব্যথা কি আমি আমার জীবন থেকে, পরিবার থেকে শিখেছি।আমি চাই না আমার মায়ের মত আর কোন মা, ভাই বোন সন্তান বা কারো স্ত্রীর চোখ থেকে এই পবিত্র মাটিতে অশ্রু ঝরুক। তিনি বলেন শ্রীপুরের মানুষ যে ভালবাসার অনন্য নজির স্থাপন করে আমাকে সম্মানীত করেছেন, প্রয়োজন হলে বুকের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও আমি সেই ঋণ শোধ করে যাব।

সবুজ তার বক্তৃতার যে প্রতিবন্ধি ভিক্ষুকটি ভিক্ষার বদলে তার জন্য ভোট চেয়েছিলেন তাকে মঞ্চে ডেকে নিয়ে বক্তব্যের সুযোগ করে দেন।

এক পর্যায়ে ইকবাল হোসেন সবুজের স্বর্ণাগর্ভা জননী নিজ পুত্রকে জনতার খেদমতে উৎসর্গ করে বক্তব্য দেন। তিনি নৌকায় ভোট চেয়ে তার সন্তানের পাশে থাকার আহবান জানান।এই জনসভার মধ্য দিয়েই শেষ হয়ে যায় ইকবাল হোসেন সবুজের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা।