রফিক সুলায়মান: টার্কি শব্দের সাথে তুরস্ক জড়িয়ে গেছে। যদিও তুর্কিরা একে বলে হিন্দি। ফরাসিতে দিন্দে, রাশিয়ায় ইন্দুস্কা। কারণ অশিকাংশ ইউরোপিয়ান মনে করতো এটা ভারতীয় বড় আকারের মোরগ।

কিন্তু নৌপথে ব্যবসায়ীরা উত্তর আমেরিকা থেকে এটি ইউরোপে বাজারজাত করতো এবং তাদের প্রধান বন্দর ছিলো তুরস্ক। তাই টার্কিফাউল নাম হয়ে যায় এর। এমন কী উইলিয়াম শেক্সপিয়ারও তাঁর Twelfth Night এ টার্কির কথা উল্লেখ করেছেন।

টার্কির মূল দেশ পেরু। সেখানে এর ল্যাটিন নাম আছে। পর্তুগালে এর নাম পেরু। অর্থাৎ মূল দেশের নামে এর নাম। দুর্দান্ত। শুধু তুরস্কের বন্দর ব্যবহারের কারণে এর নাম টার্কি হয়ে যাওয়ায় তুর্কিদের খুব মন খারাপ।

ক্রিসমাস টার্কির যম। যেমন কোরবানির ঈদে গরু-ছাগল-মহিষ-উট কিংবা নেপালে মহিষ পূজার সময় গণ হারে মহিষ কাটা হয়। ক্রিসমাসে টার্কি প্রথম খেয়েছিলেন রাজা হেনরি ৭, ৫০০ বছর আগে। এরপর অভিজাত বিত্তশালী ইংরেজরা এটিকে খাওয়া শুরু করলেও প্রায় ৫০০ বছর পর [১৯৫০ সালের পর] ব্যাপক হারে এটি ক্রিসমাস ভোজনের অংশ হয়ে দাঁড়ায়। এক্ষেত্রে রেফ্রিজারেশনের আবিস্কারও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

বাংলাদেশেও বছর ৩ ধরে এই প্রাণীটিকে দেখা যাচ্ছে। এবং অমানবিকভাবে এর বাজারজাতকরণ শুরু হয়েছে। বিশালাকারের টার্কি এখানে সেখানে বিক্রি হচ্ছে খাঁচায় বা ঝুলিয়ে। জবাই করে পোল্ট্রি মুরগির মতো গ্রাহকের হাতে তুলে দিচ্ছেন বিক্রেতারা। বিভিন্ন হোটেলেও টার্কির মাংশ বিক্রি হচ্ছে বলে শোনা যায়।